বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > 'অন্য যে কোনও টুর্নামেন্টে চতুর্থ হয়ে খুশি হওয়া যায়, অলিম্পিক্সে নয়', পদক হাতছাড়া করে আক্ষেপ অদিতির
অদিতি অশোক। ছবি- পিটিআই (PTI)

'অন্য যে কোনও টুর্নামেন্টে চতুর্থ হয়ে খুশি হওয়া যায়, অলিম্পিক্সে নয়', পদক হাতছাড়া করে আক্ষেপ অদিতির

  • তিন রাউন্ডের শেষে রুপোর দাবিদার ছিলেন অদিতি, শেষ রাউন্ডে হাতছাড়া হয় পদক।

অন্য যে কোনও টুর্নামেন্টে চতুর্থ স্থানে থাকলে অদিতি অশোক যারপরনাই খুশি হতেন। তবে অলিম্পিক্সের আসরে চতুর্থ হওয়া মোটেও খুশি করছে না ২৩ বছর বয়সী ভারতীয় গল্ফারকে। হতে পারে তিনি ভারতীয় হিসেবে অলিম্পিক্সের গলফ ইভেন্টে সর্বকালের সেরা পারফর্ম্যান্স উপহার দিয়েছেন। তবে শেষ মুহূর্তে পদক হাতছাড়া হওয়ার বিষয়টা মেনে নেওয়া কঠিন সন্দেহ নেই।

ইভেন্টের শেষে অদিতি বলেন, ‘ আমি মনে করি যে, আমি নিজের একশো শতাংশ মেলে ধরেছি। তবে হ্যাঁ, অলিম্পিক্সে যেখানে তিনটি পদক দেওয়া হয়, সেখানে চতুর্থ হওয়া এক ধরণের ধাক্কা। অন্য যে কোনও টুর্নামেন্টে চতুর্থ হলে আমি সত্যিই খুশি হতাম। তবে এখানে চতুর্থ হয়ে খুশি হওয়া মুশকিল। আমি ভালো খেলেছি এবং নিজের সেরাটা দিয়েছি।’

(টোকিও অলিম্পিক্স ২০২০-র যাবতীয় খবর, আপডেটের জন্য চোখ রাখুন হিন্দুস্তান টাইমস বাংলায়)

অদিতি আরও বলেন, ‘শেষ রাউন্ডের খেলা শুরুর আগে আমি বিশেষ কিছু ভাবিনি। তবে রাউন্ড যত শেষের দিকে গড়িয়েছে, বিশেষ করে শেষ কয়েকটা হোলের ক্ষেত্রে আমি নিজের সবটুকু সঁপে দেওয়ার চেষ্টা করেছি। সাধারণ টুর্নামেন্টে আপনি দ্বিতীয় হলেন না চতুর্থ, তাতে কিছুই যায় আসে না। তা নিয়ে কেউ ভাবে না।’

শেষে অদিতি বলেন, 'আমি অবশ্যই চাইব, আমার হাতে একটা পদক থাকুক। তবে আশা করি, পদক না এলেও বাকিরা সবাই খুশি।

বন্ধ করুন