বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > লম্বা ছুটির পরিকল্পনা করে রেখেছেন, ৬ মাস পর শ্রীজেশকে দেখার অপেক্ষায় তাঁর স্ত্রী
পরিবারের সঙ্গে শ্রীজেশ।
পরিবারের সঙ্গে শ্রীজেশ।

লম্বা ছুটির পরিকল্পনা করে রেখেছেন, ৬ মাস পর শ্রীজেশকে দেখার অপেক্ষায় তাঁর স্ত্রী

  • শ্রীজেশের সঙ্গে তাঁর স্ত্রী অনেশার দেখা হয়নি প্রায় ৬ মাস। তাই ব্রোঞ্জ পদক জয়ের নায়ককে সামনে দেখে দেখার অপেক্ষায় রয়েছেন অনেশা। শ্রীজেশের সঙ্গে কিছু সময় কাটাতে চান তিনি।

অলিম্পিক্সের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তিনি। সেই সঙ্গে করোনার প্রভাব। যার জেরে  টানা ৬ মাস স্বামীর সঙ্গে দেখা হয়নি। অলিম্পিক্সের জন্য এক রকম কৃচ্ছসাধন করে গিয়েছেন অনেশা। পিআর শ্রীজেশের স্ত্রী। স্বামীকে দেখার জন্য এখন ছটফট করছেন তিনি। অনেশার মতো সব হকি প্লেয়ারদেরই পরিবারই হয়তো এ ভাবে দূরে থেকেই শুধু সাফল্য কামনা করে গিয়েছে। তাদের এই আত্মত্যাগের কারণেই নতুন করে টোকিও-তে ইতিহাস লিখতে পেরেছেন শ্রীজেশ-মনপ্রীত সিংরা।

বৃহস্পতিবার শ্রীজেশের সাফল্যে উচ্ছ্বসিত অনেশা। একটি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়ে তিনি বলছিলেন, ‘জানি না কী ভাবে এই সাফল্য সেলিব্রেট করব। এটা সত্যিই খুবই আনন্দের একটি মুহূর্ত। আমার ইচ্ছে, ওর সঙ্গে কিছুটা সময় কাটানোর। আমাদের প্রায় ৬ মাস দেখা হয়নি। আমি শুধু ওকে সামনাসামনি দেখতে চাই। এই অলিম্পিক্স ওর কাছে বড় স্বপ্ন ছিল। এ দিকে কোভিড-১৯ অতিমারির জন্য আমাদের সকলের জীবনই একেবারে এলোমেলো হয়ে গিয়েছে। যে কারণে ও বাড়ি আসতে পারিনি। তবে এই সময়টাকে খুব ভাল ভাবে কাজে লাগাতে পেরেছে।’ এর সঙ্গেই অনেশা যোগ করেছেন, ‘আমরা এই পদক জয়টা সেলিব্রেট করতে লম্বা ছুুটি নিয়ে কোথাও ঘুরতে যাব।’

ম্যাচের একেবারে শেষ মুহূর্তে পেনাল্টি কর্নার বাঁচিয়ে হকিতে ব্রোঞ্জ পদক জয়ের ম্যাচের নায়ক শ্রীজেশই। তাঁকে নিয়ে উচ্ছ্বাসের ঢল নেমেছে। তাঁর বাড়িতে কেরলের এর্নাকুলামে একেবারে উৎসব শুরু হয়ে গিয়েছে। অনেশা বলছিলেন, ‘এই বছর আমি নিশ্চিত ছিলাম, ও পদক আনবেই। এর জন্য কঠিন পরিশ্রম করতে আমি দেখেছি। এটা ওর বড় স্বপ্ন ছিল। ভারতের হয়ে ও একটি অলিম্পিক্স পদক জিততে চেয়েছিল। সেটা আজ (বৃহস্পতিবার) সত্যি হয়েছে। এটা আমাদের জীবনে সবচেয়ে খুশির মুহূর্ত।’

ব্রোঞ্জ পদকের ম্যাচের আগে অনেশা ফোনে শ্রীজেশের কাছে জানতে চেয়েছিলেন, জয়ের বিষয়ে কতটা আশাবাদী তিনি? শ্রীজেশ অনেশাকে জানিয়েছিলেন, ‘এটা আমাদের দিন হবে। আমরাই জিতব।’ অনেশা আরও বলছিলেন, ‘ও অনেকগুলো অসাধারণ সেভ করেছে। আমরা এর জন্য খুবই গর্বিত। ও নিজের কাজটা খুব ভাল ভাবে করেছে। যখন টোকিও-তে যাচ্ছিল, তখনই কিন্তু ইনস্টাগ্রামে আমি একটি পোস্টে লিখেছিলাম, পদক জয়ের জন্য যাত্রা শুরু হল। এখন আমি আবার একটি পোস্টে লিখব, পদক নিয়ে যাত্রা শুরু হল।’

বন্ধ করুন