বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > অলিম্পিক্স ফাইনাল থেকে নাম প্রত্যাহারে নেই আক্ষেপ, মানসিক অবসাদ মোকাবিলার কথা জানালেন বাইলস
আমেরিকান জিমন্যাস্ট সিমোনে বাইলস (ছবি:রয়টার্স) (REUTERS)
আমেরিকান জিমন্যাস্ট সিমোনে বাইলস (ছবি:রয়টার্স) (REUTERS)

অলিম্পিক্স ফাইনাল থেকে নাম প্রত্যাহারে নেই আক্ষেপ, মানসিক অবসাদ মোকাবিলার কথা জানালেন বাইলস

  • বাইলস বলেন ভালো থাকার ক্ষেত্রে তাকে এই কঠোর নাম প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। এই 'স্বল্পমূল্য' তাকে চোকাতে হয়েছে নিজেকে ভালো রাখতে।

শুভব্রত মুখার্জি: ২০১৬ সালে রিও অলিম্পিক্সে জিমন্যাস্টিক্সের ফ্লোর মাতিয়ে দিয়েছিলেন তরুণী আমেরিকান জিমন্যাস্ট সিমোনে বাইলস। এত কম বয়সে যে পরিমাণ নিখুঁত রুটিন তিনি করেছিলেন তা দেখে অনেকেই তার তুলনা করেছিলেন নাদিয়া কোমানিচির সঙ্গে। সেই বাইলসকে ঘিরে স্বাভাবিকভাবেই টোকিও অলিম্পিক্সে প্রত্যাশার পারদ চড়েছিল। আর দিনের শেষে সেটাই কাল হল বলা যায়। মানসিক অবসাদের শিকার হয়ে টোকিওতে ৬ টি ফাইনালের মধ্যে পাঁচটি ফাইনাল থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছিলেন বাইলস। আর গেমস শেষে তাই তিনি নির্দ্বিদ্ধায় জানিয়ে দিলেন তার নাম প্রত্যাহারের বিষয়ে কোন আক্ষেপ নেই। কারণ হিসাবে তিনি বলেন, 'যখন আমি ঠিক অনুভব করছি না তখন আমাকে সেটা সর্বসমক্ষে বলতে হবে। লোকানোর কোন মানে হয়না।'

বাইলস বলেন ভালো থাকার ক্ষেত্রে তাকে এই কঠোর নাম প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। এই 'স্বল্পমূল্য' তাকে চোকাতে হয়েছে নিজেকে ভালো রাখতে। তিনি এও জানাতে ভোলেননি 'গোটা পৃথিবীর জন্য আমি কোনকিছু পরিবর্তন ঘটাব না। আমাকে ভালো থাকতে যা সাহায্য করবে আমি তাই করব।' উল্লেখ্য জাপান থেকে একটি রুপোর পদক হাতে করেই এবারের গেমস থেকে তাকে ফিরতে হয়েছে। সেই পদকটিও ছিল দলগত বিভাগ থেকে। এ ছাড়া ব্যক্তিগত বিভাগ থেকে তিনি একটি ব্রোঞ্জ জিতেছেন। বাইলস আর ও বলেন 'আমি অ্যাথলটিদের সামনে একটা মঞ্চ তৈরি করেছি মানসিক স্বাস্থ্যের বিষয়ে কথা বলার ব্যাপারে। তাদের ভালো থাকার বিষয়ে। আমি তাদেরকে উপলব্ধি করানোর চেষ্টা করেছি যে মানুষ হিসেবে নিজের অধিকারটা আগে। অ্যাথলিট হিসেবে নয়।'

উল্লেখ্য বাইলসের এই ঘটনার পরে ২১ শে সেপ্টেম্বর থেকে আমেরিকার, অ্যারিজোনাতে জিমন্যাস্টিক্স এবং নাচ মিলিয়ে একটি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। যেখানে আমেরিকার জিমন্যাস্ট ক্যাটেলিন ওহাসির তরফে মানসিক স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দেওয়ার বিষয়টির গুরুত্ব সম্বন্ধে বোঝানো হবে। এই ট্যুরে বাইলসও অংশ নেবেন। তার সাথে থাকবেন তার অলিম্পিক্সের সতীর্থরা। গ্রেস ম্যাককালাম, জর্ডন চিলিস, মাইকাইলা স্কিনার এবং জেড ক্যারিকে তাঁর সঙ্গে দেখা যাবে।

বন্ধ করুন