বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > Tokyo 2020: 'অ্যান্টি সেক্স' খাট যথেষ্ট শক্তপোক্ত, পরখ করে জানালেন আইরিশ অ্যাথলিট
আইরিশ জিমন্যাস্ট রাইস ম্যাকক্লেনাঘন (ছবি:টুইটার)
আইরিশ জিমন্যাস্ট রাইস ম্যাকক্লেনাঘন (ছবি:টুইটার)

Tokyo 2020: 'অ্যান্টি সেক্স' খাট যথেষ্ট শক্তপোক্ত, পরখ করে জানালেন আইরিশ অ্যাথলিট

  • দেখে নিন আইরিশ জিমন্যাস্টের এই কান্ড, 'অ্যান্টি সেক্স' খাটে উঠে তিনি কী প্রমাণ দিলেন। 

ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে একজন আইরিশ জিমন্যাস্ট বিছানার উপর লাফাচ্ছেন। আর বারবার বলছেন এটা ফেক নিউজ, এটা ফেক নিউজ। অনেকেই ভাবতেই পারেন এটা কী হচ্ছে। আসলে কয়েক দিন আগেই খবর আসে করোনার কারণে এক অন্য রকম সিদ্ধান্ত নিয়েছে অলিম্পিক সংস্থার কর্তারা। শোনা গিয়েছিল উদ্যোক্তারা গেমস ভিলেজে 'অ্যান্টি সেক্স' খাট তৈরি করেছে। যারফলে করোনা থেকে অ্যাথলিটদের সুরক্ষিত রাখা যাবে।

সকলেই প্রশ্ন করেছিলেন তাহলে কী ভাবে তৈরি হল এই ‘অ্যান্টি সেক্স’ খাট। বিভিন্ন ভাবে এই খবর সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়তে থাকে। জানা যায়, যা জানা গেছে তাতে অ‌্যাথলিটদের দূরত্ববিধি মেনে চলার ক্ষেত্রটি মাথায় রেখেই এক বিশেষ ধরনের কার্ডবোর্ড দিয়ে তৈরি হয়েছে এই খাট। যা মাত্র একজনের দৈহিক ওজন বহন করতে সক্ষম। অর্থাৎ খাটে উঠে কোন দুই অ্যাথলিট সঙ্গমে লিপ্ত হওয়ার চেষ্টা করলে দু'জনের দৈহিক ওজন বহনের ক্ষমতাহীন এই খাট ভেঙে পড়বে। তবে ভেঙে পড়লেও এই খাটগুলো রিসাইকেল করা সম্ভব। সেক্ষেত্রে গেমস ভিলেজে কোন অ্যাথলিট নিয়ম মানছেন আর কে মানছেন না, তা জানা অনেকটাই সহজ হবে।

গেমস ভিলেজে করোনাকালে অ্যাথলিটরা নিজেদের মধ্যে সঙ্গমে লিপ্ত হলে করোনার ছড়ানোর আশঙ্কা থেকে যায়। সেই বিষয় আটকাতেই নাকি এবার গেমস ভিলেজে অ্যাথলিটদের ঘরে রাখা হয়েছে 'অ্যান্টি সেক্স' বিছানা। এই 'অ্যান্টি সেক্স' খাট ইনস্টল করা হয়েছে গেমস ভিলেজের ঘরে। 

তাই এই খবর দেখার পরে গেমস ভিলেজে নিজের ঘরে ঢুকে আগে ‘অ্যান্টি সেক্স’ খাটের পরীক্ষা করেন আইরিশ জিমন্যাস্ট রাইস ম্যাকক্লেনাঘন। তিনি একটি ভিডিও তৈরি করেন। যেখানে দেখা যায় তিনি খাটের উপর উঠে লাফাচ্ছেন। এরপরেও তাঁর খাট কোনও ভাবেই ভেঙে যায়নি। তিনি ভিডিয়োর মধ্যেই বলতে থাকেন এটা ভুল খবর। এই ভিডিয়ো তুলে তিনি নিজের টুইটারে পোস্ট করেন। যা ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে। এখন প্রশ্ন হল তাহলে এই খবর ছড়িয়ে দেওয়া হল কেন?  এ বারের গেমস শুরুর আগে অ্যাথলিটদের কন্ডোম দেওয়া হলেও তা ভিলেজে ব্যবহার করতে নিষেধ করা হয়েছে। তা বাড়ি নিয়ে যেতে তাঁদেরকে আবেদন করা হয়েছে সুভিনিয়র হিসেবে। করোনার অতিমারীর কঠিন চ্যালেঞ্জের সামনে দাঁড়িয়ে আরও বেশি সতর্কতা অবলম্বন করতে চাইছে স্থানিয় আয়োজক কমিটি। পরে এই ভিডিয়ো অলিম্পিক্সের সরকারি টুইটার থেকেও শেয়ার করা হয়। আইরিশ জিমন্যাস্ট রাইস ম্যাকক্লেনাঘনকে উদ্দেশ্য করে মজার বার্তাও দেওয়া হয়।  

বন্ধ করুন