বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > Tokyo 2020: একটি সিনেমাই বদলে দিয়েছে রানি রামপালদের ভাগ্য, দাবি ভারতীয় কোচের
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে উচ্ছ্বসিত ভারতীয় দল। ছবি- এএনআই।

Tokyo 2020: একটি সিনেমাই বদলে দিয়েছে রানি রামপালদের ভাগ্য, দাবি ভারতীয় কোচের

  • কোয়ার্টার ফাইনালে অস্ট্রেলিয়াক ১-০ গোলে পরাস্ত করে ভারতীয় মহিলা হকি দল। 

পরপর তিন ম্যাচে পর্যদুস্ত হওয়ার পর দুরন্তভাবে কামব্যাক করে তিন ম্য়াচ জিতে টুর্নামেন্টের সেমিফাইনালে জায়গা পাকা করা, ঘটনাটা অনেক রুপোলি পর্দার চিত্রনাট্যের মতো মনে হলেও এখন এটাই বাস্তব। ঠিক এমনভাবেই লড়াকু মনোভাবের পরিচয় দেখিয়ে প্রথমবার অলিম্পিক্সের সেমিফাইনালে নিজেদের জায়গা করে নিয়েছে ভারতীয় মহিলা হকি দল। তবে এই কামব্যাকের নেপথ্যেও আছে একটি সিনেমাই।

মাত্র সপ্তাহখানেক আগেও পরপর ম্যাচে বিপক্ষের কাছে পর্যদুস্ত হওয়া ভারতীয় মহিলা হকি দল অলিম্পিক্সের সেমিফাইনালে নিজেদের জায়গা পাকা করবে, এমনটা হয়তো খুব বড় সমর্থকও ভাবতে পারেননি। তবে অস্ট্রেলিয়াকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমিফাইনালে নিজেদের জায়গা পাকা করতে সক্ষম হয়েছে রানি রামপালের দল। কোচ সর্ড মারাইনের মতে নাকি তাঁর দেখানো একটি সিনেমা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়েই রানিদের কামব্যাক। 

অজি বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক জয়ের পর মারাইন বলেন, ‘আমি মেয়েদের ম্যাচ হারালেও আত্মবিশ্বাস না হারানোর পরামর্শ দিয়েছিলাম। বর্তমান মুহূর্তে থাকাটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এমনকী এই নিয়ে আমি ওদের একটা সিনেমাও দেখিয়েছিলাম এবং আমার মতে সেটা বেশ কাজে লেগেছে। আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে আমরা বারবারই ওই সিনেমার বিভিন্ন ঘটনার কথা মনে করে নিজেদের চাঙ্গা করছিলাম। যদিও সেই সিনেমার নাম জানাতে চাননি তিনি।’

ভারতীয় কোচের দাবি নিজের লক্ষ্যে সবসময় উঁচু রাখার প্রয়োজন, তবেই ভাল কিছু করা সম্ভব। ‘ভারতের ক্ষেত্রে সবসময় সবচেয়ে উঁচু জায়গায় পৌঁছানোই লক্ষ্য হওয়া উচিত। কেউ যদি মেঘের উদ্দেশ্যে পাড়ি জমায় তাহলে সে অন্তত সর্বোচ্চ পাহাড়ে চড়তে সক্ষম হবে। কিন্তু পাহাড়ের লক্ষ্যে পা বাড়ালে মাটিতে আছড়ে পড়তে হয়। আমরা সেই মেঘের ঠিকানাতেই পৌঁছানোর চেষ্টায় আছি। আমি ওদের বলি এরপর যা হবে তা সবটাই অর্থহীন, তবে যে কোন মতে, যে কোন পরিস্থিতিতে আমাদের লক্ষ্যে যেন নড়চড় না ঘটে।’ বলেন ডাচ কোচ।

বন্ধ করুন