বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > Tokyo 2020: ফিটনেস বিতর্ক উস্কে দিয়েই অলিম্পিক্সের ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ মুরলি
নিরাশ করলেন মুরলি। ছবি: পিটিআই

Tokyo 2020: ফিটনেস বিতর্ক উস্কে দিয়েই অলিম্পিক্সের ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ মুরলি

  • এ দিন নিজের সেরা পারফরম্যান্সের ধারেকাছেও যেতে পারেননি লং জাম্পার মুরলি। শনিবার লং জাম্পের যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বে ৮ মিটারই টপকাতে পারেননি তিনি। প্রথম বার ৭.৬৯ মিটার লাফিয়েছিলেন। দ্বিতীয় বার ৭.৫১ মিটার লাফিয়েছিলেন। আর তৃতীয় বার ৭.৪৩ মিটার লাফান মুরলি।

তাঁকে অলিম্পিক্সে পাঠানো নিয়েই তীব্র বিতর্ক হয়েছিল। কিন্তু কারও কথায় কর্ণপাত না করে ভারতীয় অ্যাথলিট সংস্থা মুরলি শ্রীশঙ্করকে টোকিও-তে পাঠিয়ে দিয়েছিল। আর তার ফল যা হওয়ার তাই হল। জঘন্য পারফরম্যান্স করে অলিম্পিক্সের মঞ্চ থেকে ছিটকে গেলেন মুরলি শ্রীলঙ্কার।

এ দিন নিজের সেরা পারফরম্যান্সের ধারেকাছেও যেতে পারেননি লং জাম্পার মুরলি। শনিবার লং জাম্পের যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বে ৮ মিটারই টপকাতে পারেননি তিনি। প্রথম বার ৭.৬৯ মিটার লাফিয়েছিলেন। দ্বিতীয় বার ৭.৫১ মিটার লাফিয়েছিলেন। আর তৃতীয় বার ৭.৪৩ লাফান মুরলি। এ দিকে মুরলি শ্রীলশঙ্করের নিজের সেরা হল লাফ হল ৮.২৬ মিটার। শনিবার তার ধারে কাছে পোঁছতে পারলে, মুরলি ফাইনালে উঠে যেতেন।

ফেডারেশন কাপে ৮.২৬ মিটার লাফিয়ে অলিম্পিক্সের টিকিট পেয়েছিলেন মুরলী। তখন নিজেরই জাতীয় রেকর্ড ভেঙেছিলেন তিনি। কিন্তু এর পর থেকে তাঁর সে ভাবে কোনও পারফরম্যান্স ছিল না। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর ফিটনেস নিয়ে তীব্র জলঘোলা শুরু হয়েছিল। তাঁর চোট রয়েছে বলেও অনেকেরই দাবি ছিল। যে কারণে তাঁর ফিটনেস ট্রায়াল নেওয়া হলে তিনি ৮ মিটারই টপকাতে পারেননি। ৭.৪৮ মিটার লাফিয়ে ছিলেন। ট্রায়ালে পরের লাফটা ছিল ৭.৩৩ মিটার। সে সময়ে অনেকেই দাবি তোলেন, মুরলি যা লাফিয়েছেন, তার থেকে জুনিয়র জাতীয় চ্যাম্পিয়নশিপেও লংজাম্পাররা ভাল লাফান। এমন আনফিট লং জাম্পারকে অলিম্পিক্সে না পাঠানোর দাবিতে সরব হয়েছিলেন। কিন্তু তাতে কোনও লাভ হয়নি।

কিছুটা জোর করেই মুরলি শ্রীশঙ্করকে টোকিও-তে পাঠায় এএফআই। যার ফল তারা হাতেনাতেই পেল। চূড়ান্ত ব্যর্থতাকে সঙ্গী করে খালি হাতে টোকিও থেকে ফিরছেন ভারতের লং জাম্পার শ্রীশঙ্কর মুরলি।

বন্ধ করুন