বাংলা নিউজ > ময়দান > টোকিও অলিম্পিক্স > ব্যাকআপ পিস্তল থাকা সত্ত্বেও কেন খারাপ পিস্তল বদল করেননি মনু? উঠছে প্রশ্ন
মনু ভাকের। ছবি- পিটিআই।
মনু ভাকের। ছবি- পিটিআই।

ব্যাকআপ পিস্তল থাকা সত্ত্বেও কেন খারাপ পিস্তল বদল করেননি মনু? উঠছে প্রশ্ন

  • হতাশা কাটিয়ে বাবাকে ফোন মনুর, ‘দেখব কতদিন ভাগ্য সঙ্গ না দেয়’।

টোকিও অলিম্পিক্সে ভারতের পদক জয়ের অন্যতম সম্ভাবনা ছিলেন মনু ভাকের। ব্যাক্তিগত ও মিক্সড টিম ইভেন্ট, দুই বিভাগেই টিন-এজার মনু ছিলেন ফেবারিট। যদিও ব্যক্তিগত ইভেন্টে দেশবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি মনু। দুর্ভাগ্যের শিকার হয়ে কোয়ালিফিকেশন রাউন্ড থেকেই ছিটকে যান ১৯ বছর বয়সী ভারতীয় শুটার।

শুরুটা দারুণ করলেও ইভেন্টের মাঝে বিগড়ে যায় মনুর পিস্তল। টেস্ট টেন্টে গিয়ে পিস্তল সারাই করতে বেশ কিছুটা সময় নষ্ট হয় মনুর। যার প্রভাব পড়ে ইভেন্টে। অল্পের জন্য ফাইনালের টিকিট হাতছাড়া হয় তাঁর।

স্বাভাবিকভাবেই ইভেন্টের শেষে হতাশ দেখায় মনুকে। যদিও তাঁর হার না মানা মানসিকতা প্রশংসিত হচ্ছে ভারতীয় ক্রীড়ামহলে। মানসিকভাবে মনু ভাকের কতটা দৃঢ়, সেটা বোঝা যায় তাঁর কথাতেই। ইভেন্টের পর ফোনে মনু তাঁর বাবাকে বলেন, ‘বাবা, দেখি কতদিন ভাগ্য আমার থেকে মুখ ফিরিয়ে থাকে।’

হিন্দুস্তান টাইমস বাংলায় অলিম্পিক্সের যাবতীয় আপডেটে চোখ রাখতে ক্লিক করুন এখানে।

মনুর পিতা রামকিষাণ ভাকের টাইমস অফ ইন্ডিয়াকে বলেন, ‘নিয়তির সঙ্গে লড়াই করা যায় না। হয়ত ওর ভাগ্য চায়নি এই মুহূর্তে ও অলিম্পিক পদক জিতুক। তবে ও (মনু) বলে, আমি জেদি। সামনে রাস্তা খোলা রয়েছে। ও বলে, বাবা, টেনশন নিও না। আমি লড়াই চালিয়ে যাব।’

মনুর পিতা এও জানান, তারকা শুটার ইভেন্টের মাঝে কেন পিস্তল বদল করেননি। তিনি ব্যাকআপ পিস্তল থেকে সার্কিট খুলে ইভেন্টের পিস্তলে লাগিয়েছিলেন। গোটা প্রক্রিয়ায় মোট ২২ মিনিট সময় নষ্ট হয়। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে, মনু ব্যাকআপ পিস্তলে অনুশীলন করা সত্ত্বেও কেন সরাসরি পিস্তল বদল করে ইভেন্টে ফিরে গেলেন না। এক্ষেত্রে মনুর পিতা জানান যে, ব্যাকআপ পিস্তলের গ্রিপ একই রকম হলেও অনুভূতিটা একই রকম হয় না। তাই ইভেন্টের মাঝে পিস্তল বদলাতে চাননি তিনি।

বন্ধ করুন