বাড়ি > ময়দান > ২৩ মার্চ: ফিরে দেখা টিম ইন্ডিয়ার অম্ল-মধুর ইতিহাস
২০১৬ টি-২০ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভারতের জয়ের মুহূর্ত। ছবি- স্ক্রিণ গ্র্যাব
২০১৬ টি-২০ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ভারতের জয়ের মুহূর্ত। ছবি- স্ক্রিণ গ্র্যাব

২৩ মার্চ: ফিরে দেখা টিম ইন্ডিয়ার অম্ল-মধুর ইতিহাস

  • গত ২৬ বছরে ২৩ মার্চের তিনটি অম্ল-মধুর স্মৃতি রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটে।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে আইপিএলের প্রস্তুতি নিয়ে এতদিনে মেতে থাকত সারা দেশ। করোনা ভাইরাসে ঠেলায় আইপিএল তো দূর অস্ত, এই মুহূর্তে গলি ক্রিকেটে পাড়া মাতানোর কথাও ভাবা সম্ভব নয়। এমন সংকটময় অলস সময়ে নিতান্ত হতাশ না হয়ে নজর দেওয়া যাক ইতিহাসের পাতায়।

২৩ মার্চ ভারতীয় ক্রিকের অত্যন্ত ঘটনাবহুল একটা দিন। গত ২৬ বছরে ২৩ মার্চের তিনটি অম্ল-মধুর স্মৃতি রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেটে। কালক্রমে পিছনে ফেরা যাক স্মৃতির সরণী বেয়ে।

কপিল দেব। ফাইল চিত্র।
কপিল দেব। ফাইল চিত্র।

২৩ মার্চ, ১৯৯৪: ভারতের সর্বকালের সেরা অল-রাউন্ডার তথা দেশের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক কপিল দেব ঠিক এই দিনটিতেই বিদায় জানিয়েছিলেন টেস্ট ক্রিকেটকে। হ্যামিল্টনে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ভারতের টেস্ট শুরু হয়েছিল ১৯ মার্চ। শেষ হয় ২৩ মার্চ। এটিই ছিল কিংবদন্তি কপিল দেবের শেষ টেস্ট ম্যাচ। কেরিয়ারের অন্তিম টেস্টের দুই ইনিংসে ১টি করে উইকেট নিয়েছিলেন কপিল। প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতে ১৮ রান করেন। ড্র ম্যাচে দ্বিতীয় ইনিংসে আর ব্যাট করার সুযোগ হয়নি তাঁর। টেস্ট ক্রিকেট ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আলবিদা বলেছিল বিশ্বের অন্যতম সেরা তারকাকে।

ভারতকে হারিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিন অস্ট্রেলিয়া। ছবি-রয়টার্স।
ভারতকে হারিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিন অস্ট্রেলিয়া। ছবি-রয়টার্স।

২৩ মার্চ, ২০০৩: দক্ষিণ আফ্রিকায় আইসিসি বিশ্বকাপের ফাইনালে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের টিম ইন্ডিয়া বিধ্বস্ত হয়েছিল রিকি পন্টিংয়ের অস্ট্রেলিয়ার কাছে। টুকরো হয়ে গিয়েছিল দ্বিতীয়বার ভারতের বিশ্বজয়ের স্বপ্ন। জোহানেসবার্গে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং নিয়েছিল ভারত। শুরুতে ব্যাট করে অস্ট্রেলিয়া ২ উইকেটে ৩৫৯ রানের বিশাল বোঝা চাপিয়ে দেয় ভারতের ঘাড়ে। জবাবে টিম ইন্ডিয়া অল-আউট হয়ে যায় ২৩৪ রানে। ভারতকে ১২৫ রানে হারিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন হয় অজিরা।

২৩ মার্চ, ২০১৬: চিন্নাস্বামীতে টি-২০ বিশ্বকাপের ম্যাচে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ১ রানের উত্তেজক জয় তুলে নেয় মহেন্দ্র সিং ধোনির ভারত। বরং বলা ভালো চূড়ান্ত হঠকারীতায় ম্যাচ হেরে বসে বাংলাদেশ। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ১১ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। হার্দিক পান্ডিয়ার ওভারের প্রথম ৩ বলে ২টি বাউন্ডারির সাহায্যে ৯ রান তোলে টাইগাররা। তবে তারা শেষ ৩ বলে হারায় ৩টি উইকেট। শেষ বলে দৌড়ে এসে মুস্তাফিজুর রহমানকে ধোনির রান-আউট ভারতীয় ক্রিকেটের লোকগাথায় জায়গা করে নিয়েছে।

বন্ধ করুন