আরসিবির হয়ে শতরানের পর ক্রিস গেইল। ছবি- বিসিসিআই।
আরসিবির হয়ে শতরানের পর ক্রিস গেইল। ছবি- বিসিসিআই।

ফিরে দেখা IPL, ২৩ এপ্রিল গেইল ঝড়ে তছনছ হয়েছিল পুণে

  • চিন্নাস্বামীতে চার-ছক্কার বন্যা বইয়েছিলেন দ্য ইউনিভার্স বস।

ধ্বংসাত্মক ইনিংস এযাবৎ আইপিএলে বহু দেখা গিয়েছে। কেরিয়ারে ক্রিস গেইলের বিধ্বংসী ইনিংস নেহাত কম নেই। তবে না আইপিএলে আর কখনও দেখা গিয়েছে এমন ব্যাটিং তাণ্ডব। না গেইল টপকে যেতে পেরেছেন নিজের পুরনো নজির। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগে ১৭৫ রানের রূপকথার ইনিংসে দ্য ইউনিভার্স বস ক্রিকেট বিশ্বকে স্তম্ভিত করে দিয়েছিলেন সাত বছর আগের ঠিক এই দিনটিতেই।

২০১৩ আইপিএলে আজকের দিনেই (২৩ এপ্রিল) পুণে ওয়ারিয়র্সের বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছিল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোর। চিন্নাস্বামীতে সেই ম্যাচে আরসিবির হয়ে গেইল ৬৬ বলে অপরাজিত ১৭৫ রানের আগুনে ইনিংস খেলেছিলেন। সেদিন মোট ১৩টি চার ও ১৭টি ছক্কা মেরেছিলেন গেইল।

উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, তিনি ৮টি চার ও ১১টি ছক্কার সাহায্যে মাত্র ৩০ বলে সেঞ্চুরির গণ্ডি টপকে যান, যা আজও টি-২০ ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্রুততম শতরানের বিশ্বরেকর্ড। গেইল ৬টি চার ও ৪টি ছক্কার সাহায্যে ১৭ বলে হাফ-সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। তিনি ১৫০ রানে পৌঁছতে খরচ করেন ৫৩ বল।

গেইলের এমন ধ্বংসাত্মক ইনিংসের সুবাদে ঘরের মাঠে ব্যাঙ্গালোর নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটের বিনিময় রেকর্ড ২৬৩ রান তোলে। জবাবে পুণে ওয়ারিয়র্স ৯ উইকেটে ১৩৩ রানে আটকে যায়। ১৩০ রানের বড় ব্যবধানে ম্যাচ জেতে আরসিবি। গেইল এক ওভার হাত ঘুরিয়ে ৫ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট নেন।

পরে বাংলাদেশ প্রিমিয়র লিগে গেইল ১৭টি ছক্কার রেকর্ড ভেঙে ১৮টি ওভারবাউন্ডারি মারলেও আইপিএলের ১৭৫ রান টপকে যেতে পারেননি। ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগের ইতিহাসে এখনও পর্যন্ত এটিই সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস।

বন্ধ করুন