বাড়ি > ময়দান > ফিরে দেখা ২৯ মার্চ: ইতিহাস বদলে নজফগড়ের নবাব হয়েছিলেন মুলতানের সুলতান
ত্রিশতরানের পর সেহওয়াগ। ছবি- টুইটার।
ত্রিশতরানের পর সেহওয়াগ। ছবি- টুইটার।

ফিরে দেখা ২৯ মার্চ: ইতিহাস বদলে নজফগড়ের নবাব হয়েছিলেন মুলতানের সুলতান

  • ১৬ বছর আগে মুলতানে ঠিক এই দিনটিতেই ইতিহাস গড়েন সেহওয়াগ।

অভিষেক টেস্টে সেঞ্চুরি করে বীরেন্দ্র সেহওয়াগ বুঝিয়ে দিয়েছিলেন লম্বা রেসের ঘোড়া তিনি। তবে নজর কাড়ার মতো বিষয় ছিল বীরুর অকুতভয় মেজাজ। আগ্রাসী ব্যাটিংয়ের জন্য বিশেষজ্ঞরা সেহওয়াগকে টেস্টের উপযোগী নন বলেই মনে করতেন। তবে রত্ন চিনতে ভুল করেনি জহুরির চোখ। ক্যাপ্টেন সৌরভ প্রথাগত ধারণার বাইরে গিয়ে সেহওয়াগকে টেস্ট ওপেনার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হওয়ার সুযোগ করে দেন।

সেহওয়াগ অধিনায়কের সিদ্ধন্তের মর্যাদা দেন শুরু থেকেই। তবে ২০০৪ সালের পাকিস্তান সফরে গিয়ে যে তাণ্ডবলীলা চালান বীরু, তা ভোলা মুশকিল পাক ক্রিকেটার তথা সমর্থকদের। তখন অবশ্য টিম ইন্ডিয়ার নেতৃত্বে ছিলেন রাহুল দ্রাবিড়।

১৬ বছর আগে মুলতানে ঠিক এই দিনটিতেই (২৯ মার্চ) ইতিহাস গড়েন সেহওয়াগ। প্রথম ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে টেস্টে ট্রিপল সেঞ্চুরি করার কৃতিত্ব অর্জন করেন বীরু। সেই সঙ্গে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে টিম ইন্ডিয়ার যত যন্ত্রণাদায়ক স্মৃতি ছিল, এক লহমায় মুছে ফেলেন সব। গোটা ইনিংসে ৩৯টি চার ও ৬টি ছক্কা মারেন সেহওয়াগ।

ভারত ১ ইনিংস ও ৫২ রানে ম্যাচ জিতলেও সচিন ১৯৪ রানে অপরাজিত থাকা অবস্থায় রাহুল দ্রাবিড় ইনিংস ডিক্লেয়ার করে দেওয়া নিয়ে বিতর্ক হয় বিস্তর।

আইসিসি নজফগড়ের নবাবের মুলতানের সুলতান হয়ে ওঠার দিনটিকে ক্রিকেটপ্রেমীদের স্মরণ করিয়ে দেয় সোশ্যাল মিডিয়ায়। অফিসিয়াল টুইটার হ্যান্ডেলে আইসিসি বীরুর ছবি পোস্ট করে লেখে, 'রান-৩০৯, চার/ছয়-৩৯/৬। ২০০৪ সালের এই দিনটিতে প্রথম ভারতীয় ক্রিকেটার হিসেবে টেস্টে ট্রিপল সেঞ্চুরি করেছিলেন বীরেন্দ্র সেহওয়াগ।'

সঙ্গে অনুরাগীদের দিকে একটি প্রশ্নও ছুঁড়ে দেয় আইসিসি। লেখে, 'আপনাদের কি মনে আছে, ঠিক কত ব্যবধানে ভারত জিতেছিল ম্যাচটা?'

কাকলতীয়ভাবে ২৯ মার্চ দিনটিতেই সেহওয়াগ মুলতানের ট্রিপল সেঞ্চুরিকে টপকে গিয়েছিলেন। ঠিক চার বছর পর অর্থাৎ ২০০৮ সালে চিপকে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ৩১৯ রান করেছিলেন বীরু। আগের দিন (২৮ মার্চ) তিনি অপরাজিত ছিলেন ঠিক ৩০৯ রানে। টেস্টে ভারতীয়দের মধ্যে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস এখনও পর্যন্ত সেহওয়াগের ৩১৯ রানই। সেদিক থেকে চার বছরের ব্যবধানে একই দিনে নিজের পুরনো রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়েছিলেন বীরু। সব মিলিয়ে ২৯ মার্চেই রেকর্ড ভাঙা-গড়ার অভূতপূর্ব খেলায় মেতেছিলেন টিম ইন্ডিয়ার প্রাক্তন এই ধ্বংসাত্মক ওপেনার।

বন্ধ করুন