বাংলা নিউজ > ময়দান > লজ্জায় মুখ পুড়ল পাকিস্তানের, ডোপ টেস্টে ব্যর্থ বার্মিংহ্যামে পদকজয়ী কুস্তিগির
আলি আসাদ।

লজ্জায় মুখ পুড়ল পাকিস্তানের, ডোপ টেস্টে ব্যর্থ বার্মিংহ্যামে পদকজয়ী কুস্তিগির

ইংল্যান্ডের বার্মিংহ্যামে ৫৭ কেজি বিভাগে ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন পাকিস্তানের কুস্তিগির আলি আসাদ। জানা গিয়েছে, কমনওয়েলথ গেমসে অংশ নিতে ইংল্যান্ডে উড়ে যাওয়ার ঠিক আগে নিষিদ্ধ ড্রাগ নিয়েছিলেন তিনি। ডোপ পরীক্ষার ফল সামনে আসতেই আসাদের ব্রোঞ্জ কেড়ে নেওয়া হয়েছে।

পাকিস্তানের মুখ পোড়ালেন ব্রোঞ্জজয়ী কুস্তিগির আলি আসাদ। ডোপ পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। যার জেরে এ বারের কমনওয়েলথ গেমসের পদক কেড়ে নেওয়া হল তাঁর থেকে। এমনিতেই পাকিস্তান এ বার মাত্র আটটি পদক জিতেছিল। তার মধ্যে থেকে একটি পদক কেড়ে নেওয়া হল পাকিস্তানের। কারণ, তাদের ব্রোঞ্জজয়ী কুস্তিগির আলি আসাদ ডোপ পরীক্ষায় ব্যর্থ হয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনায় মুখ পুড়েছে পাকিস্তানের।

ইংল্যান্ডের বার্মিংহ্যামে ৫৭ কেজি বিভাগে ব্রোঞ্জ জিতেছিলেন পাকিস্তানের কুস্তিগির আলি আসাদ। জানা গিয়েছে, কমনওয়েলথ গেমসে অংশ নিতে ইংল্যান্ডে উড়ে যাওয়ার ঠিক আগে নিষিদ্ধ ড্রাগ নিয়েছিলেন তিনি। ডোপ পরীক্ষার ফল সামনে আসতেই আসাদের ব্রোঞ্জ কেড়ে নেওয়া হয়েছে। ‘বি’ নমুনা পরীক্ষা করানোর সুযোগ দেওয়া হয়েছে তাঁকে।

পাকিস্তান স্পোর্টস বোর্ডের ডোপ পরীক্ষাতেও অনুত্তীর্ণ হয়েছেন পাকিস্তানের এই কুস্তিগির। স্বভাবতই পাকিস্তানের কাছে এই ঘটনা বড় লজ্জার। বার্মিংহ্যাম কমনওয়েলথ গেমসে পাকিস্তান মোট আটটি পদক জিতেছিল। এর মধ্যে ছিল দু’টি সোনা এবং তিনটি করে রুপো ও ব্রোঞ্জ। তার মধ্যে একটি ব্রোঞ্জ বাতিল হয়ে গেল।

সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে পদকজয়ীদের নিয়ে একটি অনুষ্ঠান হয়। সেখানে প্রত্যেক পদকজয়ীকে আর্থিক পুরস্কার দেওয়া হয়। কিন্তু আসাদকে সেই তালিকা থেকে বাদ দিতে হয়। এখন বোঝা যাচ্ছে, কেন তাঁকে পুরস্কার দেয়নি পাকিস্তান স্পোর্টস বোর্ড। তাদের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ‘ডোপিং নিয়ে ওর ব্যাপারে আমাদের কাছে আগে থেকেই কিছু তথ্য ছিল। তার ভিত্তিতেই আমরা ওর পুরস্কারের ১০ লক্ষ টাকা আটকে দিয়েছি।’

পাকিস্তানের তারকা বক্সার অবশ্য সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তাঁর দাবি, ‘আমি কখনও কোনও নিষিদ্ধ ড্রাগ ব্যবহার করিনি। জানি না কী করে পজিটিভ হলাম। বি নমুনার পরীক্ষা করাব। কর্তাদের সঙ্গে এবং পরিচিতদের সঙ্গে কথা বলি। এই মুহূর্তে এর থেকে বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়।’