বাংলা নিউজ > ময়দান > চিনের শীর্ষপদস্থ নেতার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ সানিয়া মির্জার প্রাক্তন ডাবলস পার্টনার পেংয়ের
সানিয়া মির্জা ও পেং শুয়াই। ছবি- গেটি ইমেজেস।
সানিয়া মির্জা ও পেং শুয়াই। ছবি- গেটি ইমেজেস।

চিনের শীর্ষপদস্থ নেতার বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ সানিয়া মির্জার প্রাক্তন ডাবলস পার্টনার পেংয়ের

  • পেং দু'টি গ্র্যান্ডস্ল্যাম চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পাশাপাশি অতীতে বিশ্বের এক নম্বর ডাবলস টেনিস তারকাও ছিলেন। 

মি-টু মুভমেন্টে গোটা বিশ্বজুড়ে একাধিক বড় বড় তারকার কুকীর্তি ফাঁস হওয়ার খবর নতুন কিছু নয়। এবার সেই তালিকায় যুক্ত হল আরও এক বড় নাম। চিনের প্রখ্যাত টেনিস তারকা এবং একদা সানিয়া মির্জার ডাবলস পার্টনার পেং শুয়াই, যে সে নয় একেবারে দেশের প্রাক্তন ভাইস প্রিমিয়র ঝাং গাউলির বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ আনলেন।

মঙ্গলবার রাতে চিনের টুইটারের মতো এক সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ওয়েবোতে নিজের ভেরিফাইড অ্যাকাউন্ট থেকে পেং এই অভিযোগ করেন। চিনে এইসব বিষয়ে মহিলাদের ওপর হামেশাই কড়াকড়ি রয়েছে এবং আদালাতেও বেশিরভাগ সময়েই তাদের অভিযোগ খারিজ করে দেওয়া হয়। উপরন্তু, সোশ্যাল মিডিয়ায় সরকারে অত্যাধিক কড়াকড়ির মাঝে এই অভিযোগ গোটা দেশকে নাড়িয়ে দিয়েছে। এর আগে চিনের কমিউনিস্ট পার্টির এত উচ্চপদস্থ কোনো কর্তার বিরুদ্ধে এহেন অভিযোগ আনার সাহস পাননি কেউ।

নিজের পোস্টে পেং লেখেন, ‘আমি জানি ভাইস প্রিমিয়র ঝাং গাউলি, আপনি স্পষ্ট বলেছেন আপনার মতো ক্ষমতাসম্পন্ন লোক এসবে ভয় পায় না। তবে সবার বিরুদ্ধে আমায় একা লড়তে হলেও, জিনিসটা যতোই বোকা বোকা লাগুক এবং আমায় তা ধ্বংসই করে দিক না কেন, আমি আপনার সত্যিটা সকলের সামনে আনব।’ ২০১৮ সালে ঝাং অবসর গ্রহণের পরেই দুজনের সম্পর্ক পুনরায় শুরু হয় বলে দাবি করেন পেং। বিশ্বের প্রাক্তন এক নম্বর ডাবলস টেনিস তারকা জানান ঝাং তাঁকে প্রথমবার টেনিস খেলতে ডাকার ছলে তাঁকে হেনস্থা করেন।

যদিও সেই সময়টা ঠিক কখন, সেই বিষয়ে তিনি সুস্পষ্টভাবে কিছু লেখেননি। পাশপাশি তাঁর অভিযোগের স্বপক্ষে কোনরকম তথ্য প্রমাণও দিতে পারবেন না বলে জানান ৩৫ বছর বয়সী টেনিস তারকা। কয়েক মিনিটের মধ্যেই এই পোস্ট মুছে ফেলা হলেও তাঁর অভিযুক্ত এবং অভিযোগকারীর খ্যাতির জেরে এই পোস্টের নিয়ে বিতর্ক গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। পেং এর নাম, এমনকী টেনিস শব্দটা দিয়ে সার্চে পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়, যা চিনে প্রশাসনে থাকা পার্টির নেতাদের নিয়ে কোন অভিযোগকে ধামাচাপা দেওয়ার প্রচেষ্টার ছবিই ফের তুলে ধরে।

বন্ধ করুন