বাড়ি > ময়দান > IPL 2020- ঘন ঘন কোভিড টেস্ট, জৈব সুরক্ষিত বলয় ভাঙলে সাত দিনের কোয়ারেন্টাইন
আইপিএল ট্রফি। ছবি- টুইটার।
আইপিএল ট্রফি। ছবি- টুইটার।

IPL 2020- ঘন ঘন কোভিড টেস্ট, জৈব সুরক্ষিত বলয় ভাঙলে সাত দিনের কোয়ারেন্টাইন

বিসিসিআই সূত্র পিটিআইকে জানিয়েছে যে সব খেলোয়াড় ও সাপোর্ট স্টাফকে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার আগে দুইবার কোভিড টেস্ট করতে হবে ২৪ ঘণ্টার অন্তরে। এরপর দলের সঙ্গে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

আইপিএলের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত এসওপি তৈরী করে ফেলেছে বিসিসিআই। এবার করোনার জেরে ভারতে নয় আরব আমিরশাহিতে খেলা হবে ভারতীয় প্রিমিয়র লিগ। সবাই যাতে সুস্থ থাকেন ও কোনও ভাবে সংক্রমণ যাতে না ছড়ায়, তার জন্য বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করা হচ্ছে। 

বিসিসিআই সূত্র পিটিআইকে জানিয়েছে যে সব খেলোয়াড় ও সাপোর্ট স্টাফকে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়ার আগে দুইবার কোভিড টেস্ট করতে হবে ২৪ ঘণ্টার অন্তরে। এরপর দলের সঙ্গে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। 

কোনও ব্যক্তি যদি কোভিড পজিটিভ আসেন, তাঁকে তখনই আলাদা করে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে যেতে হবে। এরপর তাঁকে দুইবার আরও পরীক্ষা দিতে হবে RT-PCR পদ্ধতিতে। সেগুলিতে নেগেটিভ এলেই তিনি যেতে পারবেন আমিরশাহিতে। 

সেখানে গিয়ে এক সপ্তাহের মধ্যে খেলোয়াড় ও স্টাফদের তিনবার পরীক্ষা করা হবে কম করে। সেগুলি নেগেটিভ এলে তবেই জৈব সুরক্ষিত বাবলে প্রবেশ করতে পারবেন ক্রিকেটাররা। এই খসড়া এসওপিতে খুব বেশি পরিবর্তন হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন বোর্ড কর্তারা। অর্থাৎ জৈব সুরক্ষিত বাবলে প্রবেশ করার আগেই কমপক্ষে পাঁচবার টেস্ট হবে। 

আমিরশাহিতে যে প্রথম সপ্তাহ কাটাবেন ক্রিকেটাররা সেখানে হোটেলে অন্যদের সঙ্গে দেখা করা যাবে না যতক্ষণ টেস্টের রেজাল্ট না এসে। তিনবার নেগেটিভ টেস্ট পাওয়ার পরেই তারা জৈব সুরক্ষিত বাবলে প্রবেশ করে ট্রেনিং শুরু করতে পারে। 

যে বিদেশি ক্রিকেটাররা সোজা আমিরশাহিতে আসবেন, তাদেরও আসারা আগে দুটি কোভিড নেগেটিভ টেস্ট করা আসতে হবে। আমিরশাহিতে প্রথম, তৃতীয় ও ষষ্ঠ দিনে পরীক্ষা করা হবে কোভিডের জন্য। এরপর টুর্নামেন্ট চলাকালীন প্রতি চার দিন অন্তর টেস্ট করা হবে। অর্থাৎ পশ্চম দিনে পরীক্ষা করা হবে করোনাভাইরাসের জন্য। 

এছাড়াও টিমগুলি আলাদা টেস্ট করতে পারে। আমিরশাহির এই সংক্রান্ত কোনও নিয়ম থাকলেও মানতে হবে। কুড়ি অগস্টের আগে আমিরশাহিতে যেতে মানা করা হয়েছে দলদের যাতে সঠিক ভাবে টেস্টিং প্রোটোকল ও কোয়ারেন্টাইন ড্রিল করা যায়। 

পরিবার ও পার্টনার নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি দলগুলির ওপর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে তবে কেউ এলে তাদেরও জৈব সুরক্ষিত বাবলে থাকতে হবে যদি তারা টিমের সঙ্গে থাকতে চান। কেউ জৈব সুরক্ষা বলয়ের বাইরে যেতে পারবেন না। 

কেউ যদি বলয় ভাঙেন, তাহলে তাকে সাত দিন সেল্ফ আইসোলেশনে থাকতে হবে। এরপর ষষ্ঠ ও সপ্তম দিনে পরীক্ষা করে তাদের বলয়ে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হবে। পরিবারের লোকেরা জৈব সুরক্ষিত বলয়ের ভিতরে থাকলেও তারা প্লেয়ার্স অ্যান্ড ম্যাচ অফিশিয়ালসদের এলাকায় প্রবেশ করতে পারবেন না কোনও সময়। 

 কোভিডের জেরে খেলোয়াড়রা অসুস্থ হয়ে গেলে তার বদলি আনানোর ক্ষেত্রে কোনও ঊর্ধ্বসীমা রাখছে না বিসিসিআই। 

বন্ধ করুন