বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘নাম বলো, সেই সাংবাদিককে বয়কট করা হবে’, ঋদ্ধির পাশে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ আর এক প্রাক্তনীর
প্রজ্ঞান ওঝা এবং ঋদ্ধিমান সাহা।

‘নাম বলো, সেই সাংবাদিককে বয়কট করা হবে’, ঋদ্ধির পাশে দাঁড়িয়ে প্রতিবাদ আর এক প্রাক্তনীর

  • শনিবার রাতের দিকে টুইটারে একটি হোয়্যাটসঅ্যাপ চ্যাটের স্ক্রিনশট পোস্ট করেছেন ঋদ্ধি। সেই স্ক্রিনশটে সাংবাদিকের হুমকি রয়েছে। ঋদ্ধি পোস্টের সঙ্গে লিখেছেন, ‘ভারতীয় ক্রিকেটের প্রতি আমার যাবতীয় অবদানের পর তথাকথিত শ্রদ্ধেয় সাংবাদিকের থেকে এ রকম বিষয়ের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এই পর্যায় নেমে গিয়েছে সাংবাদিকতা।’

সরকারি ভাবে কোনও কারণ না দেখিয়েই ঋদ্ধিমান সাহাকে টেস্ট দল থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। সেই রেশ কাটতে না কাটতেই এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে 'হুমকি' দেওয়ার অভিযোগ তুললেন ঋদ্ধি। সেই সাংবাদিকের নাম অবশ্য প্রকাশ করেননি বিশ্বের অন্যতম সেরা কিপার।

শনিবার রাতের দিকে টুইটারে একটি হোয়্যাটসঅ্যাপ চ্যাটের স্ক্রিনশট পোস্ট করেছেন ঋদ্ধি। সেই স্ক্রিনশটে সাংবাদিকের হুমকি রয়েছে। ঋদ্ধি এই পোস্টের সঙ্গেই লিখেছেন, ‘ভারতীয় ক্রিকেটের প্রতি আমার যাবতীয় অবদানের পর তথাকথিত শ্রদ্ধেয় সাংবাদিকের থেকে এ রকম বিষয়ের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এই পর্যায় নেমে গিয়েছে সাংবাদিকতা।’

এই ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ করেছেন ভারতের প্রাক্তন তারকা প্রজ্ঞান ওঝা। ঋদ্ধির পাশে দাঁড়িয়ে সাংবাদিককে একহাত নিয়েছেন ওঝা। টুইটে প্রজ্ঞান ওঝা লিখেছেন, ‘প্লিজ ঋদ্ধি তাঁর নাম বলো! খেলোয়াড়দের প্রতিনিধি হিসেবে আমি তোমাকে কথা দিচ্ছি, বয়কট করা হবে সেই সাংবাদিককে!’

শনিবার রাতে এক সাংবাদিক ঋদ্ধিকে রীতিমতো অসম্মানিত করে কিছু মেসেজ পাঠান। সেই মেসেজে সাংবাদিক লিখেছিলেন, ‘আমার সঙ্গে একটা ইন্টারভিউ করো। (তোমার জন্য) ভালো হবে।’ এক মিনিট পরেই আরও একটি মেসেজ এসেছে। তাতে বলা হয়েছে, ‘ওরা (বোর্ড) একজন উইকেটকিপার বেছে নিয়েছে, যে সেরা উইকেটকিপার। তুমি ১১ জন সাংবাদিককে বেছে নেওয়ার চেষ্টা করছ, যাঁরা আমার কাছে সেরা নয়। এমন কাউকে বেছে নাও, যে তোমায় সব থেকে বেশি সাহায্য করতে পারবে।’

তবে সেখানেই শেষ হয়নি ‘হুমকি’। এর পর ওই সাংবাদিক ফোনও করেন ঋদ্ধিমানকে। কিন্তু তা ধরেননি তিনি। এর পরই রীতিমতো ক্ষুব্ধ হয়ে ওই সাংবাদিক ঋদ্ধিমানকে লেখেন, ‘তুমি ফোন করলে না। আমি কখনও তোমার ইন্টারভিউ নেব না। আমি একেবারেই অপমান মেনে নিই না এবং এটা আমি মনে রাখব। এটা তোমার করা উচিত হয়নি।’

সেই ‘হুমকির’ স্ক্রিনশট পোস্ট করলেও কোনও সাংবাদিকের নাম প্রকাশ করেননি ঋদ্ধি। যিনি বরাবর অত্যন্ত শান্ত স্বভাবের বলে পরিচিত। ময়দানের পুরনো লোকজনও সহজে মনে করতে পারেন না, কবে তাঁরা ঋদ্ধিকে রাগতে দেখেছেন। সেই পরিস্থিতিতে ঋদ্ধিকে ‘হুমকি’ দেওয়ায় নেটিজেনরা ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন। তাঁরা অবিলম্বে ওই সাংবাদিকের নাম প্রকাশ করার আর্জি জানিয়েছেন। যদিও এখনও কারও নাম প্রকাশ করেননি ঋদ্ধি। যাঁরা ঋদ্ধিকে চেনেন, তাঁদের মতে, ঋদ্ধি সেই কাজটা করবেন না।

বন্ধ করুন