সচিন তেন্ডুলকর ও পৃথ্বী শ। ছবি- ইনস্টাগ্রাম।
সচিন তেন্ডুলকর ও পৃথ্বী শ। ছবি- ইনস্টাগ্রাম।

নির্বাসিত হয়ে লক্ষ্য না হারিয়ে ফেলেন পৃথ্বী, নজর রেখেছিলেন সচিন

  • সারা বছরে বেশ কয়েকবার কথা হয়েছে তরুণ ওপেনারের সঙ্গে, জানালেন মাস্টার ব্লাস্টার।

শুধু উঠতি ক্রিকেটারদের কাছেই নয়, ভারতের সর্বস্তরের মানুষের কাছেই সচিন তেন্ডুলকর একজন রোল মডেল। কদিন আগে সুরেশ রায়নার সঙ্গে ইনস্টাগ্রাম লাইভে কথা বলার সময় তারকা স্প্রিন্টার হিমা দাস স্পষ্ট জানান, তিনি তেন্ডুলকরকে রোল মডেল করেই সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।

এহেন অন্য খেলার একজন তারকার কাছে যদি সচিন আদর্শ হতে পারেন, তবে পৃথ্বী শ'র মতো তরুণ ক্রিকেটারের কাছে তেন্ডুলকর যে রোল মডেল হবেন, তাতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই। পৃথ্বী শুরু থেকেই জানিয়ে আসছেন, তিনি আগাগোড়া সচিনকে অনুসরণ করেন। তাঁর মতো খেলার চেষ্টা করেন।

পৃথ্বীকে পরিণত হয়ে উঠতে যথাযোগ্য সাহায্য করেন তেন্ডুলকরও। বিষয়টা নিজেই জানালেন সচিন। সংবাদ সংস্থা পিটিআইয়ের সঙ্গে আলোচনা প্রসঙ্গে মাস্টার ব্লাস্টার স্বীকার করে নেন, সারা বছর ধরে বেশ কয়েকবার পৃথ্বীর সঙ্গে কথা হয়েছে তাঁর। যদিও সচিন খোলসা করে বলতে রাজি হলেন না, ঠিক কী বিষয়ে তরুণ ভারতীয় ওপেনারের সঙ্গে তাঁর আলোচনা হয়েছে।

তেন্ডুলকর বলেন, 'হ্যাঁ এটা সত্যি। সারা বছর ধরে বেশ কয়েকবার পৃথ্বীর সঙ্গে আমার আলোচনা হয়েছে। ও অত্যন্ত প্রতিভাবান ক্রিকেটার। ওকে সাহায্য করতে পেরে আমি খুশি। ওর সঙ্গে ক্রিকেট নিয়ে কথা হয়েছে এবং ক্রিকেটের বাইরে ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও।'

ঠিক কী কথা হয়েছে জানতে চাইলে তেন্ডুলকরের জবাব, 'ব্যক্তিগতভাবে আমি বিশ্বাস করি যে, একজন তরুণ ক্রিকেটার যখন বিশেষ কোনও বিষয়ে সাহায্য চায়, তখন তার মধ্যে গোপনীয়তা বজায় রাখা জরুরি। অন্তত আমার দিক থেকে। পৃথ্বী নিজে যদি এই নিয়ে কখনও আলোচনা করে সেটা ওর ব্যাক্তিগত বিষয়। তবে আমি বলতে চাই না ওর সঙ্গে আমার ঠিক কী কথা হয়েছে।'

পৃথ্বী শ'র আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় দুর্দান্তভাবে। কেরিয়ারের শুরুতেই দ্বিতীয় কণিষ্ঠ ভারতীয় হিসেবে টেস্ট সেঞ্চুরি করেন পৃথ্বী। তবে গোড়ালির চোট ও ডোপ টেস্টে পজিটিভ হয়ে নির্বাসিত হওয়ায় দীর্ঘ ১৬ মাস জাতীয় দলের বাইরে থাকতে হয় তাঁকে। তেন্ডুলকর ঠিক এই সময়টাতেই গাইড করেছেন পৃথ্বীকে।

বন্ধ করুন