বাংলা নিউজ > ময়দান > হনুমানজীর বড় ভক্ত প্রোটিয়া তারকা, গভীর যোগ রয়েছে ইউপি-র সুলতানপুরের সঙ্গে

হনুমানজীর বড় ভক্ত প্রোটিয়া তারকা, গভীর যোগ রয়েছে ইউপি-র সুলতানপুরের সঙ্গে

কেশব মহারাজ।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত কেশব দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাস করেন ঠিকই, তবে সংস্কৃতি, রীতিনীতি- সবটাই ভারতের দ্বারা প্রভাবিত। সমস্ত হিন্দু উৎসব পালন করেন তিনি। উত্তর প্রদেশের সুলতানপুরের সঙ্গে কেশব মহারাজের গভীর সম্পর্ক রয়েছে।

টিম ইন্ডিয়ার বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষ ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের অধিনায়কত্ব তুলে দেওয়া হয়েছিল স্পিনার কেশব মহারাজের হাতে। কেশব মহারাজ একজন ভারতীয় বংশোদ্ভূত খেলোয়াড়, যিনি দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে খেলেন। এটাও কাকতালীয় যে, ভারতের বিপক্ষে এই দেশে এসে প্রথম অধিনায়কত্ব করেছেন তিনি। তবে সিরিজের শেষ ম্যাচটি বৃষ্টির কারণে পণ্ড হয়ে যায়। যে কারণে সিরিজ ২-২ ড্র হয়ে যায়।

চলতি বছরের জানুয়ারিতে দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে টিম ইন্ডিয়াকে ওয়ানডে সিরিজে শোচনীয় পরাজয়ের মুখে পড়তে হয়েছিল। এর পর কেশব মহারাজ সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট শেয়ার করে 'জয় শ্রী রাম' বলেছিলেন। সেই থেকে কেশব সোশ্যাল মিডিয়ায় আধিপত্য বিস্তার করেন।

সুলতানপুরের সঙ্গে কেশবের বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে

আসলে কেশব মহারাজ হনুমানজির একজন বড় ভক্ত। ভারতীয় বংশোদ্ভূত কেশব দক্ষিণ আফ্রিকায় বসবাস করেন ঠিকই, তবে সংস্কৃতি, রীতিনীতি- সবটাই ভারতের দ্বারা প্রভাবিত। সমস্ত হিন্দু উৎসব পালন করেন তিনি। উত্তর প্রদেশের সুলতানপুরের সঙ্গে কেশব মহারাজের গভীর সম্পর্ক রয়েছে।

আরও পড়ুন: ‘আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়’, হতাশ কেশব মহারাজ, তবে SA-এর ভাবনায় এখন শুধু T20 WC

আরও পড়ুন: ‘ওকে বল করাই বেশ কঠিন হয়ে উঠছে’, কার্তিককে সেরা ফিনিশার বলছেন প্রোটিয়া তারকা

আসলে, একটি সাক্ষাৎকারে কেশবের বাবা আত্মানন্দ মহারাজ বলেছিলেন যে, তাঁর পূর্বপুরুষরা সুলতানপুরের বাসিন্দা। ১৮৭৪ সালে, তাঁর পূর্বপুরুষরা কাজের সন্ধানেই ভারত থেকে ডারবানে আসেন। সেখানে তখন অনেক সুযোগ ছিল। তখন আফ্রিকাতে ভালো দক্ষ শ্রমিকের প্রয়োজন ছিল এবং ভারতীয়দের কৃষিতে ভালো অভিজ্ঞতা ছিল।

কেশবের বাবাও ছিলেন ক্রিকেটার

কেশব মহারাজের পরিবারে ৪ জন সদস্য রয়েছেন। কেশব ছাড়াও বাবা-মা এবং এক বোন রয়েছেন। বোনের বিয়ে হয়েছে শ্রীলঙ্কায় বসবাসকারী এক ব্যক্তির সঙ্গে। আত্মানন্দ বলেছিলেন যে, ‘আমরা আমাদের পরিবারের পঞ্চম বা ষষ্ঠ প্রজন্ম। 'মহারাজ' উপাধি আমার পূর্বপুরুষদের উপহার। আমরা জানি ভারতে নামের গুরুত্ব কী।’

কেশবের বাবা আত্মানন্দও ক্রিকেটার ছিলেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে উইকেটরক্ষক ছিলেন। যাইহোক, আত্মানন্দ কখনই টেস্ট ক্রিকেট খেলার সুযোগ পাননি, কারণ তখন আফ্রিকায় ক্রিকেটের সেই চল ছিল না।

বন্ধ করুন