বাংলা নিউজ > ময়দান > ইয়র্কশায়ারে পূজারাকে ডাকা হত ‘স্টিভ’, যা বর্ণবিদ্বেষমূলক ইঙ্গিত, ফাঁস প্রাক্তন কর্মীর
চেতেশ্বর পূজারা (ফাইল ছবি, সৌজন্য রয়টার্স)
চেতেশ্বর পূজারা (ফাইল ছবি, সৌজন্য রয়টার্স)

ইয়র্কশায়ারে পূজারাকে ডাকা হত ‘স্টিভ’, যা বর্ণবিদ্বেষমূলক ইঙ্গিত, ফাঁস প্রাক্তন কর্মীর

  • ক্রিকেটে বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ আগেই উঠেছিল।

শুভব্রত মুখার্জি

ক্রিকেটে বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ আগেই উঠেছিল। ড্যারেন সামি সাম্প্রতিক অভিযোগ করেছিলেন আইপিএলে নাকি তাঁকে 'কালু' বলে ডাকা হয়। সেই ঘটনার পরে ক্রিকেটে ফের বর্ণবিদ্বেষের অভিযোগ উঠল

বর্ণবৈষম্যের অভিযোগে এবার বিদ্ধ ইংল্যান্ডের কাউন্টি দল ইয়র্কশায়ার। বর্ণবিদ্বেষের নাকি শিকার হয়েছিলেন ভারতের টেস্ট দলের ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পূজারা। কাউন্টি ক্রিকেট খেলতে গিয়ে বর্ণবিদ্বেষের শিকার হয়েছিলেন আজিম রফিকও।

এবার সেই বিতর্ক নিয়েই সম্প্রতি মুখ খুলেছেন তিনি। আর সেখানেই উঠে এসেছে ভারতীয় ব্যাটসম্যান পূজারার প্রসঙ্গ। রফিকের অভিযোগের পর তদন্তে নেমেছে ইয়র্কশায়ার। তদন্তে রফিকের পক্ষে প্রমাণ জমা দিয়েছেন পাকিস্তান তারকা নাভেদ-উল-হাসান এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেটার টিনো বেস্ট। ইএসপিএন ক্রিকইনফোর প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইয়র্কশায়ারের দুই প্রাক্তন কর্মী তাজ বাট এবং টনি বাউরিও এই অভিযোগের সমর্থনে বয়ান দিয়েছেন। এছাড়া প্রমাণও দিয়েছেন তাঁরা।

তাজ বাট বলেছেন, 'এশিয়ানদের ক্ষেত্রে ট্যাক্সি ড্রাইভার এবং রেস্তোরাঁ কর্মী বলে অপমান করা হত। তাঁরা অন্য রঙের লোকেদের স্টিভ বলত। বিদেশি হিসেবে যোগ দেওয়া চেতেশ্বর পূজারাকে স্টিভ বলে ডাকা হত। কারণ ওরা তাঁর নামের উচ্চারণ করতে পারত।' গত বছর 'ব্রেকফাস্ট উইথ চ্যাম্পিয়নস'-এও পূজারা জানিয়েছিলেন, ইয়র্কশায়ারে তাঁকে ‘স্টিভ’ হিসেবে ডাকা হত। তাতে কোন যুক্তি ছিল না। যেহেতু চেতেশ্বর উচ্চারণ করতে পারতেন না ইয়র্কশায়ারের খেলোয়াড়রা, তাই তাঁকে ‘স্টিভ’ বলা হত। 

এদিকে ইয়র্কশায়ারের সেই পরিবেশ সহ্য করতে না পেরে ছ'সপ্তাহের মধ্যেই পদত্যাগ করেন তাজ বাট। টনি  বাউরি বলেন, 'সাদা বাদে অন্য চামড়ার ক্রিকেটারদের সঙ্গে বাজে ব্যবহার করা হত। ড্রেসিংরুমেও সমস্যা ছিল। এতে পারফরম্যান্সে প্রভাব পড়ত।'

বন্ধ করুন