বাংলা নিউজ > ময়দান > রাহানের ধৈর্যশীলতাই অ্যাডিলেডের ব্যর্থতা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করেছে, দাবি অশ্বিনের
গ্রুপ ফটোতে ভারতীয় তারকারা। ছবি- টুইটার।
গ্রুপ ফটোতে ভারতীয় তারকারা। ছবি- টুইটার।

রাহানের ধৈর্যশীলতাই অ্যাডিলেডের ব্যর্থতা থেকে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করেছে, দাবি অশ্বিনের

  • মেলবোর্নে বক্সিং ডে টেস্ট জিতে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে চলতি সিরিজে সমতায় ফিরেছে ভারত।

অ্যাডিলেড টেস্টের পরে বিরাট কোহলির দেশের ফেররা কথা বিসিসিআই ঘোষণা করার পর থেকেই আলোচনায় ছিল রাহানের নেতৃত্ব। চর্চা চলছিল ক্যাপ্টেন হিসেবে রাহানের নির্ভরশীলতা নিয়ে। কোহলির নেতৃত্বে অ্যাডিলেডে হার ও রাহানের অধিনায়কত্বে মেলবোর্ন টেস্টে ভারতের অনবদ্য জয়ের পর পুনরায় চর্চায় অজিঙ্কার নেতৃত্ব। এবার অবশ্য সংশয় প্রকাশ করার সুর নেই কোনওমহলেই। বরং আলোচনা চলছে ক্যাপ্টেন হিসেবে কোহলি ও রাহানের পার্থক্য নিয়ে।

ম্যাচের শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে কোচ রবি শাস্ত্রীকেও শুনতে হয় এই প্রশ্ন। জবাবে তিনি বলেন, ‘কোহলি ও রাহানে উভয়েই দারুণ নেতা। কোহলি আবেগপ্রবণ এবং ও মুখোমুখি দাঁড়াতে পছন্দ করে। অজিঙ্কা শান্ত স্বভাবের এবং অনেক ধৈর্যশীল। এটা ওদের স্বভাব বৈশিষ্ট্য। রাহানে ভিতর থেকে গভীর। ও জানে ও কী চায়।’

অজিঙ্কা নিজের শান্ত ও ধৈর্যশীল স্বভাববৈশিষ্ট্য যে ড্রেসিং রুমেও আমদানি করেছেন, সেটা জানিয়ে দেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। সেভেন ক্রিকেটকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে অশ্বিন বলেন, ‘৩৬ রানে অল-আউট হওয়ার ধাক্কা সামলানো সহজ নয়। বিশেষ করে আমাদের দেশের ক্রিকেট ইতিহাস যেখানে গর্ব করার মতো। তার উপর বিরাটকেও খোয়াতে হয়েছে। এটা বড় ধাক্কা ছিল। যদিও আমরা লক্ষ্যে স্থির থাকতে পেরেছি। ড্রেসিংরুমে জিঙ্কসের ধৈর্যশীলতা আমাদের মাঠের লড়াইয়ে নিজেদের যথাযথ মেলে ধরতে সাহায্য করেছে।’

উল্লেখ্য, অ্যাডিলেডে হেরে ভারত ৪ ম্যাচের টেস্ট সিরিজে ০-১ ব্যবধানে পিছিয়ে পড়ে। মেলবোর্নে দ্বিতীয় টেস্টে জয় তুলে নিয়ে সিরিজে ১-১ সমতা ফেরায় টিম ইন্ডিয়া। ৭ জানুয়ারি থেকে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে খেলা হবে সিরিজের তৃতীয় টেস্ট।

বন্ধ করুন