বাংলা নিউজ > ময়দান > Ranji Trophy- উত্তরাখণ্ডকে ৭২৫ রানে হারিয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বিশ্ব রেকর্ড, সেমিতে মুম্বই
বিশ্ব রেকর্ড করে সেমিতে পৌঁছাল মুম্বই।

Ranji Trophy- উত্তরাখণ্ডকে ৭২৫ রানে হারিয়ে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বিশ্ব রেকর্ড, সেমিতে মুম্বই

  • দ্বিতীয় ইনিংসে উত্তরাখণ্ডকে মাত্র ৬৯ রানে অল আউট করে সেমিফাইনালের টিকিট পাকা করে মুম্বই। ৭২৫ রানের বিশাল ব্যবধানে তারা জয় পায়। এটি এখন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ব্যবধানে জয়। মুম্বই এ দিন নিউ সাউথ ওয়েলসের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে।

বুধবারই বোঝা হয়ে গিয়েছিল, রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনালে যাচ্ছে মুম্বই। আজ বৃহস্পতিবার বেলা গড়াতে সেই ছবি আরও স্পষ্ট হয়ে গেল। উত্তরাখণ্ডকে হারিয়ে মুম্বই শুধু সেমিফাইনালেই গেল না। তারা প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে গড়ে ফেলল বিশ্ব রেকর্ড।

দ্বিতীয় ইনিংসে উত্তরাখণ্ডকে মাত্র ৬৯ রানে অল আউট করে সেমিফাইনালের টিকিট পাকা করে মুম্বই। ৭২৫ রানের বিশাল ব্যবধানে তারা জয় পায়। এটি এখন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ব্যবধানে জয়। মুম্বই এ দিন নিউ সাউথ ওয়েলসের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে। যেটি ১৯২৯-৩০ সালে তৈরি হয়েছিল। নিউ সাউথ ওয়েলস ৬৮৫ রানে কুইন্সল্যান্ডকে পরাজিত করে সেই রেকর্ড করেছিল। প্রায় ৯২ বছর আগের রেকর্ড ভেঙে নতুন ইতিহাস লিখল পৃথ্বী শ'র মুম্বই।

প্রথমে মুম্বই রানের পাহাড় গড়ে। তার পরে বল হাতে তারা বাজিমাত করে। উত্তরাখণ্ড একেবারে ল্যাজেগোবরে হয়ে হেরে কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে ছিটকে গেল।

টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে অবশ্য নড়বড় করছিল মুম্বই। প্রথম ইনিংসে মুম্বইয়ের পৃথ্বী শ' (২১), যশস্বী জয়সওয়ালরা (৩৫) ব্যর্থ হয়েছেন। তাতেও মুম্বইকে আটকাতে পারেনি উত্তরাখণ্ড। সুভেদ পার্কার, সরফরাজ খানরা দুরন্ত ছন্দে মুম্বইকে রানের পাহাড়ের উপর বসিয়ে দেন। সরফরাজ খান ১৫৩ এবং সুভেদ পার্কার ২৫২ করে মুম্বইয়ের সেমিতে যাওয়ার পথ পরিষ্কার করে দেন। এ ছাড়াও আরমান জাফের ৬০ এবং শামস মুলানি ৫৯ রান করেন।

আরও পড়ুন: প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে অনন্য নজির বাংলার, ৯ জন ব্যাট করে সবাই অন্তত ৫০ পার করলেন

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শামস মুলানির ধামাকায় একেবারে ছত্রখান হয়ে যায় উত্তরাখণ্ডের ব্যাটিং অর্ডার। প্রথম ইনিংসে ৪১.১ ওভারে ১১৪ রানে অল আউট হয়ে যায় উত্তরাখণ্ড। ওপেন করতে নেমে একমাত্র কমল সিং ৪০ রান করেছেন। বাকিদের অবস্থা তথৈবচ। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান রবিন বিস্তের ২৫। তৃতীয় সর্বোচ্চ মাত্র ১২ রান। দীক্ষাংশু নেগি এই ১২ রান করেছেন। বাকিরা কেউ ২ অঙ্কের ঘরেই পৌঁছতে পারেননি।

মুম্বইয়ের দ্বিতীয় ইনিংসে অবশ্য পৃথ্বী ৮০ বলে ৭২ করেন। যশস্বী সেঞ্চুরি করেন। ১৫০ বলে ১০৩ রান করেন তিনি। ৫৭ করেছেন আদিত্য তারে। তৃতীয় দিনের শেষে মুম্বইয়ের স্কোর ৩ উইকেটে ২৬১ রান ছিল। ৭৯৪ রানে এগিয়ে ছিল তারা। চতুর্থ দিন আর ব্যাট করতে নামেনি মুম্বই। ইনিংসের সমাপ্তি ঘোষণা করে দিয়েছিল। প্রায় ৮০০ রানের বোঝা কাঁধে নিয়ে ব্যাট করতে নেমে দ্বিতীয় ইনিংসে আরও শোচনীয় দশা হয় উত্তরাখণ্ডের।

উত্তরাখণ্ডের শিবম খুরানার অপরাজিত ২৫ এবং কুনাল চাণ্ডেলার ২১ বাদ দিলে বাকিরা কেউ পাঁচ রানের গণ্ডিও টপকাতে পারেননি। উত্তরাখণ্ডের পাঁচ জন ব্যাটার শূন্যতে আউট হয়ে যান। শামস মুলানি দুই ইনিংস মিলিয়ে ৮ উইকেট নেন। দ্বিতীয় ইনিংসে মুলানির ৩ উইকেট ছাড়াও ধবল কুলকার্নি এবং তনুশ কোটিয়ান ৩টি করে উইকেট নেন।

বন্ধ করুন