বাংলা নিউজ > ময়দান > ঋদ্ধিকে কোন সাংবাদিক 'হুমকি' দিয়েছেন? খুঁজে বের করতে হবে সৌরভকে, কড়া শাস্ত্রী
ঋদ্ধিমান সাহা, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং রবি শাস্ত্রী। (ফাইল ছবি, সৌজন্যে এএফপি, আইপিএল এবং রয়টার্স)

ঋদ্ধিকে কোন সাংবাদিক 'হুমকি' দিয়েছেন? খুঁজে বের করতে হবে সৌরভকে, কড়া শাস্ত্রী

  • ঋদ্ধিমান সাহাকে সত্যিকারের টিমম্যান বলেছেন শাস্ত্রী।

কোন সাংবাদিক ঋদ্ধিমান সাহাকে ‘হুমকি’ দিয়েছেন? তা খুঁজে বের করার দায়িত্ব ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিসিআই) সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়কে নিতে হবে। এমনটাই বললেন ভারতীয় পুরুষ ক্রিকেট দলের প্রাক্তন হেড কোচ রবি শাস্ত্রী।

রবিবার টুইটারে শাস্ত্রী বলেন, ‘একজন খেলোয়াড়কে হুমকি দিচ্ছেন সাংবাদিক - এটা ভয়ঙ্কর বিষয়। নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করছেন (সাংবাদিক)। যা ভারতীয় দলের সঙ্গে প্রায়শই হচ্ছে। বিসিসিআই সভাপতির হস্তক্ষেপের সময় এসে গিয়েছে। প্রত্যেক ক্রিকেটারের স্বার্থে খুঁজে বের করতে ওই ব্যক্তিটিকে। ঋদ্ধিমান সাহার মতো সত্যিকারের টিমম্যান এরকম গুরুতর বিষয় তুলে ধরেছেন।’

শনিবার শ্রীলঙ্কা সিরিজের টেস্ট দল থেকে ঋদ্ধিকে বাদ দেওয়া হয়েছে। তা নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই এক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে 'হুমকি' দেওয়ার অভিযোগ তোলেন ঋদ্ধি। শনিবার রাতের দিকে টুইটারে একটি হোয়্যাটসঅ্যাপ চ্যাটের স্ক্রিনশট পোস্ট করেন তিনি। সঙ্গে লিখেছেন, 'ভারতীয় ক্রিকেটের প্রতি আমার যাবতীয় অবদানের পর তথাকথিত শ্রদ্ধেয় সাংবাদিকের থেকে এরকম বিষয়ের সম্মুখীন হতে হচ্ছে। এই পর্যায় নেমে গিয়েছে সাংবাদিকতা।'

কী ছিল সেই স্ক্রিনশটে?

রাত ১০ টা ১৮ মিনিটে পাঠানো হোয়্যাটসঅ্যাপ মেসেজে ঋদ্ধিকে ওই ব্যক্তি বলেছেন, 'আমার সঙ্গে একটা ইন্টারভিউ কর। (তোমার জন্য) ভালো হবে।' এক মিনিট পরেই আরও একটি মেসেজ এসেছে। তাতে বলা হয়েছে, 'ওরা (বোর্ড) একজন উইকেটকিপার বেছে নিয়েছে, যে সেরা উইকেটকিপার। তুমি ১১ জন সাংবাদিককে বেছে নেওয়ার চেষ্টা করছ, যাঁরা আমার কাছে সেরা নয়। এমন কাউকে বেছে নাও, যে তোমায় সবথেকে বেশি সাহায্য করতে পারবে।'

তবে সেখানেই শেষ হয়নি ‘হুমকি'। রাত ১০ টা ৪৩ মিনিটের একটি মেসেজে বলা হয়েছে, 'তুমি ফোন করলে না। আমি কখনও তোমার ইন্টারভিউ নেব না। আমি একেবারে সহজে অপমান মেনে নিই না এবং এটা আমি মনে রাখব। এটা তোমার করা উচিত হয়নি।' তারইমধ্যে ঋদ্ধির পোস্ট করা স্ক্রিনশটে সন্ধ্যা ৭ টা ৩০ মিনিটে হোয়্যাটসঅ্যাপ কলের বিষয়টি ধরা পড়েছে। যা মিসড কল হয়ে গিয়েছিল।

সেই ‘হুমকির’ স্ক্রিনশট পোস্ট করলেও কোনও সাংবাদিকের নাম প্রকাশ করেননি ঋদ্ধি। যিনি বরাবর অত্যন্ত শান্ত স্বভাবের বলে পরিচিত। ময়দানের পুরনো লোকজনও সহজে মনে করতে পারেন না, কবে তাঁরা ঋদ্ধিকে রাগতে দেখেছেন। সেই পরিস্থিতিতে ঋদ্ধিকে ‘হুমকি’ দেওয়ায় নেটিজেনরা ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন। তাঁরা অবিলম্বে ওই সাংবাদিকের নাম প্রকাশ করার আর্জি জানিয়েছেন। যদিও এখনও কারও নাম প্রকাশ করেননি ঋদ্ধি। যাঁরা ঋদ্ধিকে চেনেন, তাঁদের মতে, ঋদ্ধি সেই কাজটা করবেন না।

বন্ধ করুন