বাংলা নিউজ > ময়দান > ব্যথা তুচ্ছ করে সিডনিতে স্মরণীয় ড্রয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে মুখ খুললেন অশ্বিন
সিডনি ম্যাচের মাঝেই অশ্বিনের কোমরে বাঁধা বেল্ট ঠিক করছেন ব্যাটিং পার্টনার বিহারী। ছবি- গেটি ইমেজেস।

ব্যথা তুচ্ছ করে সিডনিতে স্মরণীয় ড্রয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে মুখ খুললেন অশ্বিন

  • সিডনিতে অশ্বিন এবং হনুমা বিহারীর অপরাজিত পার্টনারশিপই ভারতীয় দলকে পরাজয়ের হাত থেকে রক্ষা করে।

অস্ট্রেলিয়ায় প্রায় দ্বিতীয় সারির দল নিয়ে ২-১ ভারতের ঐতিহাসিক সিরিজ জয়ের রূপকথার গল্প ইতিহাসের পাতায় উঠে গিয়েছে। অ্যাডিলেডে লজ্জার পরাজয়ের পর মেলবোর্ন এবং গাব্বায় জয় তো বটেই, সিডনিতে প্রবল ব্য়থা সহ্য করে রবিচন্দ্রন অশ্বিন ও হনুমা বিহারীর মরিয়া লড়াইও সকলের মনে তাজা। সেই অবিস্মরণীয় সিরিজের প্রায় এক বছর বাদে সিডনি টেস্ট নিয়ে মুখ খুললেন অশ্বিন।

সিডনি টেস্টের পঞ্চম দিনে কোমরের অমানবিক ব্যথা সহ্য করে অশ্বিনের লড়াই করার কথা সকলেই জানে। Backstage With Boria- নামক শোতে অশ্বিন জানান চতুর্থ দিনে ম্যাচের আগে ওয়ার্ম আপ করার সময়ই তাঁর পা আটকে যাওয়ার ফলে কোমরে গুরুতর চোট লাগে। তিনি ওষুধ খেয়ে কোনোরকমে সেইদিন খেলা চালিয়ে গিয়ে সেই ব্য়থা কমে যাবে ভেবে রাতে শুতে চলে যান। তবে ব্যথা তো কমেইনি, বরং পরের দিন কার্যত তাঁর স্ত্রী ও সন্তানরা তাঁকে খাট থেকে তুলে ম্যাচের জন্য তৈরি করান।

অশ্বিন বলেন, ‘ওই রাতটা আমার জীবনের ভয়ঙ্করতম রাত ছিল। আমি শোয়ার সময় কোনও ভাবেই বিছানায় কোমর ঠেকাতে পারছিলাম না। কোমরের নীচে তোয়ালে দিয়ে আমাকে ঘুমাতে হয়। আমি ভেবেছিলাম কোমরের ব্যথার ক্ষেত্রে পেন কিলার খেলে পরের দিন ব্যথা হয়তো কমে যায়। তবে পরের দিন সকালে আমি উঠার চেষ্টা করলেও খাট থেকে কিছুতেই একা উঠতে পারছিলাম না। আমার চিৎকার শুনে পাশের ঘর থেকে আমার স্ত্রী আসেন। আমার সন্তানরা আমার হাত ধরে এবং স্ত্রী আমায় খাট থেকে টেনে তোলে।’

ভারতীয় দলের এক ফিজিওয়ের থেকে ফের একবার পেন কিলার খেয়ে কোনওরকমে স্নান করেই তাঁকে মাঠে নামতে হয় বলে জানান অশ্বিন। এমনকি তাঁর পোশাক পরতেও তাঁকে তাঁর সন্তানরা সাহায্য করে। ‘আমি হামাগুড়ি দিয়ে কোনওরকমে যোগেশের (ফিজিও) পেন কিলার নিই এবং ও আমায় গরম জলে শাওয়ারের তলায় দাঁড় করিয়ে দেয়। আমি তো নিজের পোশাকটুকুও পরতে পারছিলাম না। আমার মেয়ে আমায় সাহায্য করে। ওই অবস্থায় আমার খেলা নিয়ে স্ত্রী একটু চিন্তিত থাকলেও আমি ম্যাচ খেলতে বদ্ধপরিকর ছিলাম। সবাইকে ভুল প্রমাণ করে ওই ইনিংসটা খেলার পর আমি সত্যি খুব খুশি হয়েছিলাম।’ বলেন ভারতীয় তারকা স্পিনার।

বন্ধ করুন