বাংলা নিউজ > ময়দান > আর টেনিস খেলতে চান না রজার! অবসর নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য ফেডেরারের

আর টেনিস খেলতে চান না রজার! অবসর নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য ফেডেরারের

ফেডেরার (REUTERS)

উইম্বলডন জিতে ২১টি গ্রান্ড স্ল্যামে পৌঁছে নাদালকে কার্যত তাড়া করছেন নোভাক। সেখানে ২০টি গ্রান্ড স্ল্যামে থাকা রজার ফেডেরার কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়েছেন। একে হাঁটুর চোট তাকে প্রবল ভুগিয়েছে। সেই চোট সারিয়ে ২০২২ উইম্বলডনে তার ফেরার কথা থাকলেও রজারের পক্ষে তা সম্ভব হয়নি।

শুভব্রত মুখার্জি: বর্তমান লন টেনিস বিশ্বের তিন কিংবদন্তি রজার ফেডেরার, রাফায়েল নাদাল এবং নোভাক জকোভিচ। একটা সময় এই তিন তারকার ব্যক্তিগতভাবে গ্রান্ড স্ল্যাম জয়ের সংখ্যা ছিল ২০। স্বাভাবিকভাবেই তাদের সমর্থকদের মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়াতে এই নিয়ে ঝড় উঠত, কে নিজের কেরিয়ারে সবথেকে বেশি গ্রান্ড স্ল্যাম জয়ের পরে অবসর নেবেন। তবে এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে রজার ফেডেরার আদৌ কি আর টেনিসে ফিরতে পারবেন? নাকি হাটুর চোট থেকে পুরোপুরি সেরে ওঠার আগেই টেনিসকে আলবিদা জানাবেন ফেডেক্স? এইসব জল্পনার মধ্যেই অবসর নিয়ে কার্যত বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন রজার।

প্রসঙ্গত রজারের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলা দুই প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যে নাদাল ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছেন ২২টি গ্রান্ড স্ল্যামে। উইম্বলডন জিতে ২১টি গ্রান্ড স্ল্যামে পৌঁছে নাদালকে কার্যত তাড়া করছেন নোভাক। সেখানে ২০টি গ্রান্ড স্ল্যামে থাকা রজার ফেডেরার কিছুটা হলেও পিছিয়ে পড়েছেন। একে হাঁটুর চোট তাকে প্রবল ভুগিয়েছে। সেই চোট সারিয়ে ২০২২ উইম্বলডনে তার ফেরার কথা থাকলেও রজারের পক্ষে তা সম্ভব হয়নি। সেপ্টেম্বর মাসের লেভার কাপের মধ্যে দিয়ে কোর্টে ফেরার লড়াই চালাচ্ছেন রজার ফেডেরার। এমন আবহেই নিজের অবসর বিষয়ে কার্যত স্পষ্ট বক্তব্য রেখে বোমা ফাটালেন তিনি। উল্লেখ্য ২০২১ সালের উইম্বলডনে শেষ বার কোয়ার্টার ফাইনালে হুবার্ট হুরকাজের বিরুদ্ধে খেলেছিলেন তিনি।

নেদারল্যান্ডসের এক পত্রিকাকে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে রজার জানান 'আমি সবসময় জিততে পছন্দ করি। তবে যদি তুমি লড়াইটই না চালাতে পার তাহলে সেক্ষেত্রে তোমার থেমে যাওয়াটাই উচিত। আমি মনে করি না আমার আর টেনিসের প্রয়োজন রয়েছে। আমি ছোট ছোট জিনিস নিয়েই খুশি। যেমন আমার ছেলেরা যদি ভালো কিছু করে বা আমার মেয়েরা যদি ভালো গ্রেড পায় তাহলেই আমি খুশি। আমার পরিচিতির একটা অঙ্গ টেনিস। তবে সবটা নয়। আমি সবসময় সফল হতে চাই। ব্যবসাতেও আমি আমার সমস্ত এনার্জি দিতে চাই। খেলার বাইরেও যেটা দেওয়া সম্ভব। আমি জানি একটা প্রফেশনাল কেরিয়ার চিরস্থায়ী হতে পারে না। তাতে আমার কোনও অসুবিধা নেই। এই বছর উইম্বলডন খেলতে না পারাটা আমার কাছেই আশ্চর্যের বিষয়। ১৯৯৮ থেকে আমি টানা ওখানে খেলেছি। এই বছর টিভিতেই দেখলাম।'

বন্ধ করুন