বাংলা নিউজ > ময়দান > Shahbaz Ahmed: ইঞ্জিনিয়ারিং ছেড়ে লড়াই করে স্বপ্নপূরণ শাহবাজের,কলকাতার ট্র্যাফিকে চলে না গাড়ি

Shahbaz Ahmed: ইঞ্জিনিয়ারিং ছেড়ে লড়াই করে স্বপ্নপূরণ শাহবাজের,কলকাতার ট্র্যাফিকে চলে না গাড়ি

রাঁচিতে শাহবাজ আহমেদ। (ছবি সৌজন্যে এএফপি)

Shahbaz Ahmed: শাহবাজ আহমেদের বাবা জানিয়েছেন যে কলেজের অধ্যাপকরাও বলেছিলেন বড়সড় ভুল করছেন। তখন শাহবাজ বলেছিল যে একদিন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রিও তুলে দেবেন কলেজের ওই অধ্যাপকরা এবং তাঁকে সংবর্ধনাও দেবেন। যে লক্ষ্যটা গত বছর পূরণ হয়েছে শাহবাজের। লকডাউনের মধ্যে বি.টেক করে ফেলেন।

স্বচ্ছল পরিবারের ছেলে। পড়াশোনায় ভালো ছিলেন। কিন্তু ক্রিকেটের স্বপ্নপূরণের জন্য মাঝপথেই ইঞ্জিনিয়ারিং ছেড়ে কলকাতায় চলে এসেছিলেন। দীর্ঘদিনের লড়াইয়ের পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয়েছে ছেলে শাহবাজ আহমেদের। তবে এখনও একটা আক্ষেপ যাচ্ছে না শাহবাজের বাবা জানের।

রবিবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দ্বিতীয় একদিনের ম্যাচে অভিষেক হয়েছে শাহবাজের। অভিষেক ম্যাচেই উইকেট পেয়েছেন বাংলার তারকা অল-রাউন্ডার। যিনি ক্রিকেটের স্বপ্নপূরণের জন্য হরিয়ানা থেকে কলকাতায় চলে এসেছিলেন। সেখানে ছোট্ট কামরায় আরও তিন ক্রিকেটারের সঙ্গে থাকতেন। তারইমধ্যে তাঁর উপর নিষেধাজ্ঞার খাঁড়া নেমে এসেছিল। তবে হাল ছাড়েননি শাহবাজ। তদন্তের পর তাঁকে ক্লিনচিট দেয় ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অফ বেঙ্গল (সিএবি)।

শাহবাজের ইঞ্জিনিয়ারিং ইতিবৃত্ত

ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, যখন কলকাতায় এসে থাকতেন শাহবাজ, তখন তাঁর মনের জোর বাড়িয়েছিল বাবার একটা কথা। সেই কথা নিয়ে ওই সংবাদমাধ্যমে শাহবাজের বাবা বলেন, 'আমি ওইদিন বলেছিলাম (যে কিছু করে আসবে। নাহলে ফেরত আসবে না।' সেইসঙ্গে তাঁর বাবার এখনও আক্ষেপ যায়নি এটা ভেবে যে মাঝপথেই ইঞ্জিনিয়ারিং ছেড়ে দিয়েছিল ছেলে।

আরও পড়ুন: IND vs SA 2nd ODI: লক্ষ্মীপুজোয় খুলে গেল ভাগ্য, ভারতের হয়ে প্রথমবার মাঠে নামার সুযোগ পেলেন বাংলার শাহবাজ আহমেদ

ওই সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, শাহবাজের বাবা জানিয়েছেন যে দশম শ্রেণিতে ৮০ নম্বর শতাংশ পেয়েছিলেন ভারতীয় তারকা। দ্বাদশ শ্রেণিতে ৮৮ শতাংশ নম্বর পেয়েছিলেন। ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের জন্য কলেজে ভরতিও হয়েছিলেন। কিন্তু ক্রিকেট খেলার জন্য ছেড়ে দিয়েছিলেন ইঞ্জিনিয়ারিং। তবে ছেলে যে ক্রিকেট খেলতে ভালোবাসেন, তা অনেক দিন পর জানতে পেরেছিলেন শাহবাজের বাবা।

জানে আরও জানান, কলেজ থেকে চিঠি পেয়েছিলেন যে মাসের পর মাস শাহবাজ ক্লাসে যাচ্ছেন না। ওই সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, সেই চিঠি পেয়ে গুরুগ্রামে ছেলের কাছে গিয়েছিলেন (শাহবাজদের আদি বাড়ি হরিয়ানার পালওয়ালে)। তখন জানতে পেরেছিলেন যে ক্রিকেট অন্ত প্রাণ ছেলের। শুধু তাই নয়, দু'বছর ধরে হরিয়ানার অনূর্ধ্ব-১৯ দলের শিবিরে যোগ দিচ্ছিলেন। বাবা-মা বিষয়টি জানতে পেরে যাওয়ার শাহবাজ নিজের ফাঁস করেছিলেন। জানিয়েছিলেন যে ক্রিকেটে কেরিয়ার গড়ে তোলার জন্য কলকাতায় চলে আসবেন।

যদিও শাহবাজের সেই প্রস্তাবে সায় ছিল বাবা-মা'র। ওই সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, শাহবাজের বাবা জানিয়েছেন যে কলেজের অধ্যাপকরাও বলেছিলেন বড়সড় ভুল করছেন। তখন শাহবাজ বলেছিল যে একদিন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রিও তুলে দেবেন কলেজের ওই অধ্যাপকরা এবং তাঁকে সংবর্ধনাও দেবেন। যে লক্ষ্যটা গত বছর পূরণ হয়েছে শাহবাজের। লকডাউনের মধ্যে বি.টেক করে ফেলেন।

আরও পড়ুন: Duleep Trophy 2022: শাহবাজ আহমেদ কখনও ব্যর্থ হন না! দল ছিটকে গেলেও ম্যাচ থেকে বাংলার প্রাপ্তি কম নয়

ততদিনে বাংলার হয়েও নাম করে ফেলেছেন শাহবাজ। তারপর গত বছর আইপিএলে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়ে নজর কাড়েন। চলতি মরশুমে রঞ্জি ট্রফিতে তো ব্যাট ও বল হাতে বাংলার ক্রাইসিস ম্যান হয়ে ওঠেন। আইপিএলেও দারুণ খেলেন। চলতি বছরের আইপিএলের মেগা নিলামে তাঁকে ২.৪ কোটি টাকা দিয়ে দল নিয়েছিল ব্যাঙ্গালোর। ওই সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, শাহবাজের বাবা বলেছেন যে 'ও নিজের টাকায় কলকাতায় গাড়ি কিনেছে। কিন্তু সেই গাড়ি বেরোতে পারে না। কিন্তু এত যানজট হয় যে গাড়ি নিয়ে বেরোতেই পারে না।'

বন্ধ করুন