বাংলা নিউজ > ময়দান > লাথি মেরে স্টাম্প ভাঙা, ছুড়ে ফেলা, বিপক্ষ কোচের সঙ্গে হাতাহাতি, বিতর্কে শাকিব
লাথি মরে স্টাম্প ভাঙেন শাকিব।
লাথি মরে স্টাম্প ভাঙেন শাকিব।

লাথি মেরে স্টাম্প ভাঙা, ছুড়ে ফেলা, বিপক্ষ কোচের সঙ্গে হাতাহাতি, বিতর্কে শাকিব

  • দু'বছরের নির্বাসনের শাস্তি কাটানোর পর আবার, বড় শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন বাংলাদেশের তারকা অল রাউন্ডার।

আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত পছন্দ না হওয়ায় প্রথমে লাথি মেরে স্টাম্প ভেঙে দেন। পরে আবার মাথা গরম করে উইকেটই উপড়ে ফেলেন। সব মিলিয়ে ফের বড় বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডার শাকিব আল হাসান।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের ম্যাচে তাঁর উগ্র আচরণের ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই বিতর্ক শুরু হয়ে গিয়েছে। তীব্র সমালোচনায় মুখর নেটদুনিয়া। অনেকেই তাঁর শাস্তির দাবি করেছেন। শাকিবের এ হেন আচরণে নিন্দের ঝড় বয়ে যাচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে মহমেডান স্পোর্টিং এবং আবাহনীর মধ্যে ম্যাচ চলছিল। পঞ্চম ওভারে বল করছিলেন মহমেডানের শাকিব। ব্যাট করছিলেন আবাহনীর মুসফিকুর রহমান। শাকিবের একটি স্ট্রেট বল মুসফিকুর মারতে ব্যর্থ হন। বলটা তাঁর প্যাডে লাগে। শাকিবরা এএলবিডব্লিউ-এর আবেদন জানালে আম্পায়ার সেটা খারিজ করে দেন। আর ঠিক তখনই রেগে গিয়ে নন স্ট্রাইকিং জোনের স্টাম্প লাথি মেরে ভেঙে দেন শাকিব। এখানেই তিনি থামেননি, এর পর আম্পায়ারের সঙ্গে তাঁকে ক্ষিপ্ত হয়ে তর্ক করতে দেখা যায়। রীতিমতো চোখ রাঙাতে দেখা যায় আম্পায়ারকে।

এই ঘটনা নিয়ে জলঘোলা শুরু হতে না হতেই ফের তিনি আরও একটি লজ্জাজনক ঘটনা ঘটিয়ে ফেলেন। বৃষ্টির জন্য আম্পায়ার খেলা বন্ধ করে দিলে ফের ক্ষোভ উগড়ে দেন শাকিব। তখন ষষ্ঠ ওভারের পাঁচ বল হয়েছে। কিন্তু আম্পায়ারের খেলা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত পছন্দ হয়নি মহমেডান অধিনায়কের। ক্ষিপ্ত শাকিব মিড-অন থেকে দৌড়ে এসে তিনটি স্টাম্প তুলে নিয়ে আছাড় মারেন। শাকিবের এ হেন আচরণে হতবাক ক্রিকেট মহল!

এর পরে ড্রেসিংরুমে ফেরার সময়ে আবাহনীর কোচ খালেদ মাহমুদ সুজনের সঙ্গে ঝামেলায় জড়ান তিনি। সেই ঝামেলা প্রায় হাতাহাতি পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছিল। কোনও মতে তাঁদের থামানো হয়। আসলে আবাহনীর সমর্থকেরা শাকিবকে কোনও খারাপ মন্তব্য করায়, শাকিবও হাত নেড়ে ইঙ্গিতে উত্তর দেন। সেটা দেখে সুজন ভেবেছিলেন, তাঁকে কোনও খারাপ ইঙ্গিত করছেন শাকিব। তার জেরেই তিনি তেড়ে গিয়েছিলেন। এ দিকে এমনিতেই ক্ষেপে ছিলেন শাকিব। যার ফলে তুমুল ঝামেলা লেগে যায়।

আবাহনীর কোচের সঙ্গে ঝামেলায় জড়ান।
আবাহনীর কোচের সঙ্গে ঝামেলায় জড়ান।

নিঃসন্দেহে এই ঘটনাগুলো ক্রিকেটের লজ্জা। মাথা গরম করে ক্রিকেট মাঠে বা মাঠের বাইরে বারবার বিতর্কে জড়িয়েছেন শাকিব। অনেকেই তাঁকে পরামর্শ দিয়েছেন, তাঁর আবেগ, তাঁর রাগ এগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করার জন্য। কিন্তু শাকিব যে বদলাননি, সেটা আবার প্রমাণ হয়ে গেল। এই ঘটনা যে ক্রিকেট মহল ভাল ভাবে নেবে না, সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। 

আসলে নির্বাসনের শাস্তি কাটিয়ে ফেরার পর থেকে পারফরম্যান্স নেই শাকিবের। আইপিএলে কলকাতা নাইট রাইডার্স ম্যাচে ব্যর্থ হয়েছেন। জাতীয় দলের জার্সিতে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধেও আহামরি পারফরম্যান্স ছিল না। এখন ঢাকা প্রিমিয়ার লিগেও তাঁর পারফরম্যান্স তলানিতে। নিজের পারফরম্যান্সের কারণেই সম্ভবত হতাশ শাকিব মেজাজ ধরে রাখতে পারছেন না।

কিছু দিন আগেই তিনি নির্বাসনের শাস্তি কাটিয়ে ফিরেছেন জাতীয় দলে। ম্যাচ গড়াপেটার প্রস্তাব পেয়েও, সেই বিষয়ে শাকিব কাউকে কিছু না জানিয়ে চেপে গিয়েছিলেন। আইসিসি-র দুর্নীতি দমন শাখার নিয়ম লঙ্ঘন করার জন্য তাঁকে দু'বছরের নির্বাসনের শাস্তি দেওয়া হয়েছিল। সেই শাস্তি কাটিয়ে ২২ গজে ফেরার পর ফের মাথা গরম করে শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন তিনি। এখন দেখার, এই ঘটনার জন্য তাঁকে ঠিক কী শাস্তি পেতে হয়! শোনা যাচ্ছে, বড় শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন শাকিব আল হাসান।

বন্ধ করুন