বাংলা নিউজ > ময়দান > রোজ রোজ ইতিহাস গড়া যায় না, টের পেলেন বাবররা, জয়সূর্যর ঘূর্ণিতে ল্যাজেগোবরে পাকিস্তান
দ্বিতীয় টেস্টে পাকিস্তানকে হারাল শ্রীলঙ্কা। ছবি- এএফপি (AFP)

রোজ রোজ ইতিহাস গড়া যায় না, টের পেলেন বাবররা, জয়সূর্যর ঘূর্ণিতে ল্যাজেগোবরে পাকিস্তান

  • ক্যাপ্টেন বাবর আজমের লড়াই সত্ত্বেও শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে দ্বিতীয় টেস্টে মুখ থুবড়ে পড়ল পাকিস্তান।

ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি করা সম্ভব হল না পাকিস্তানের পক্ষে। শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টে রেকর্ড রান তাড়া করে জয় ছিনিয়ে নিয়েছিলেন বাবর আজমরা। তবে দ্বিতীয় টেস্টে পাকিস্তানের সামনে জয়ের লক্ষ্যটা এতবড় ছিল যে, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে সেটাকে টপকে যাওয়া সম্ভব ছিল না তাদের পক্ষে। তবে শেষ দিনে চোয়ালচাপা লড়াই চালিয়ে ম্যাচ বাঁচানোর রাস্তা খোলা ছিল বাবরদের সামনে। ক্যাপ্টেন বাবর যথাসাধ্য লড়েন। তবে তাঁর একক লড়াই দলের হার বাঁচানোর জন্য যথেষ্ট ছিল না।

ফলে গলে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে সিরিজের দ্বিতীয় টেস্টে ২৪৬ রানের বিশাল ব্যবধানে হার মানতে হয় পাকিস্তানকে। টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অন্তর্গত ২ ম্যাচের সিরিজ ১-১ ড্রয়ে নিষ্পত্তি হয়।

দ্বিতীয় টেস্টে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কা ৩৭৮ রানে প্রথম ইনিংস শেষ করে। জবাবে পাকিস্তান তাদের প্রথম ইনিংসে ২৩১ রানে অল-আউট হয়ে যায়। ১৪৭ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় দফায় ব্যাট করতে নামে শ্রীলঙ্কা। তারা চতুর্থ দিনে দ্বিতীয় ইনিংস ডিক্লেয়ার করে ৮ উইকেটে ৩৬০ রান তুলে। সুতরাং, প্রথম ইনিংসের লিড মিলিয়ে পাকিস্তানের সামনে জয়ের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ৫০৮ রানের।

আরও পড়ুন:- ভিডিয়ো: হাসান আলির ক্যাচ মিস নিয়ে বিস্তর সমালোচনা হয়, বাবর আজম কেমন জল-ভাত ক্যাচ ছাড়লেন দেখুন

পাকিস্তান চতুর্থ দিনের খেলা শেষ করে ১ উইকেটের বিনিময়ে ৮৯ রান তুলে। তার পর থেকে খেলা শুরু করে শেষ দিনে পাকিস্তান অল-আউট হয়ে যায় ২৬১ রানে। ক্যাপ্টেন বাবর আজম দলের হয়ে সব থেকে বেশি ৮১ রান করেন। এছাড়া শেষ ইনিংসে আব্দুল্লা শফিক ১৬, ইমাম উল হক ৪৯, মহম্মদ রিজওয়ান ৩৭, ফাওয়াদ আলম ১, আঘা সলমন ৪, মহম্মদ নওয়াজ ১২, ইয়াসির শাহ ২৭, হাসান আলি ১১ ও নাসিম শাহ ১৮ রান করেন।

শ্রীলঙ্কার হয়ে প্রবথ জয়সূর্য ১১৭ রানের বিনিময়ে ৫টি উইকেট দখল করেন। কেরিয়ারের প্রথম ৩টি টেস্টের ৬টি ইনিংসে বল করে জয়সূর্য এই নিয়ে ৪ বার ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন। ৩টি টেস্টে সাকুল্যে তাঁর ঝুলিতে ঢোকে ২৯টি উইকেট।

আরও পড়ুন:- কবাডি খেলতে গিয়েই মৃত্যূুর কোলে ঢোলে পড়লেন ২২ বছরের তরুণ প্লেয়ার- ভিডিয়ো

জয়সূর্র পাশাপাশি বল হাতে নজর কাড়েন রমেশ মেন্ডিস। প্রথম ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার পরে দ্বিতীয় ইনিংসে রমেশ নেন ৪টি উইকেট। যদিও দুই ইনিংসে মিলিয়ে ৯টি উইকেট নিয়েও ম্যাচের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হননি তিনি। বরং প্রথম ইনিংসে ৩৩ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ১০৯ রান করার পাশাপাশি ১টি উইকেট নিয়ে ম্যাচের সেরা হয়েছেন ধনঞ্জয়া ডি'সিলভা। ২ ম্যাচে ১৭টি উইকেট নিয়ে সিরিজের সেরা ক্রিকেটারের পুরস্কার জিতেছেন জয়সূর্য।

বন্ধ করুন