বিয়ের আসরে সৌম্য ও পূজা
বিয়ের আসরে সৌম্য ও পূজা

একের পর এক ৭টি ফোন চুরি, ধুন্ধুমার বাঁধল সৌম্য সরকারের বিয়ের আসরে

  • সৌম্যর মেজ ভাই প্রণব মোবাইল চুরির বিষয়টি টের পেলে খুলনা ক্লাবের কর্মীদের তা জানান। অভিযোগ, তখন প্রণবের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন ক্লাবের কর্মীরা।

বাংলাদেশি অলরাউন্ডার সৌম্য সরকারের বিয়ের আসরে মোবাইল ফোন চুরি নিয়ে হুলুস্থুল। অভিযোগ, পাত্রের বাবা-সহ অন্যান্যদের মোট ৭টি দামি মোবাইল ফোন চুরি হয়েছে। সূত্রের খবর, বিয়ের আসরে চুরি করার জন্য ঢাকা থেকে গিয়েছিল চোরের দল। বুধবার রাতে খুলনা ক্লাবে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন সৌম্য।

বুধবার রাত ৯টা ছিল সৌম্যর বিয়ের লগ্ন। কিন্তু তার আগে থেকেই শুরু হয়ে যায় গন্ডগোল। অভিযোগ, সৌম্যর বাবা কিশোরীমোহন সরকারের মোবাইল ফোন চুরি হয়ে যায়। চুরি হয় শিল্পপতি তথা বরযাত্রী দীবনন্ধু মিত্রের মোবাইল ফোন। মোট ৭টি মোবাইল ফোন চুরি হয় বলে অভিযোগ।

সৌম্যর মেজ ভাই প্রণব মোবাইল চুরির বিষয়টি টের পেলে খুলনা ক্লাবের কর্মীদের তা জানান। অভিযোগ, তখন প্রণবের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন ক্লাবের কর্মীরা। তাঁকে মারধর করা হয় বলেও অভিযোগ। এর জেরে বিয়ের অনুষ্ঠান কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ থাকে।

জানা গিয়েছে, চুরি যাওয়া একটি ফোনে কল করেন সৌম্যর পরিজনরা। তখনই একজনের পকেটে বেজে ওঠে ফোনটি। তার পকেট থেকে আরও ৭টি ফোন উদ্ধার হয়। এর পরই শুরু হয় গোলমাল।

ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। তারা সৌম্যর পরিবারের সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা করেন। পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, ২ চোরকে গণধোলাই দেওয়া হচ্ছিল। খবর পেয়ে আমরা পৌঁছই। রাসেল ও সেলিম নামে ২ চোরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তারা ঢাকার বাসিন্দা।

খুলনা শহরের টুটপাড়ার মেয়ে প্রিয়ন্তি দেবনাথ পূজার সঙ্গে বুধবার রাতে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন সৌম্য সরকার। তিন বোনের সব থেকে ছোট পূজা। ঢাকার একটি কলেজে পড়েন তিনি।


বন্ধ করুন