বাংলা নিউজ > ময়দান > ২৬/১১ মুম্বই হামলার ঘটনা ইংল্যান্ডকে মনে করিয়ে BCCI-এর পাশে দাঁড়ালেন গাভাস্কর
সুনীল গাভাস্কর।
সুনীল গাভাস্কর।

২৬/১১ মুম্বই হামলার ঘটনা ইংল্যান্ডকে মনে করিয়ে BCCI-এর পাশে দাঁড়ালেন গাভাস্কর

  • ২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর মুম্বই হামলার সময়ে ভারতে সফরে এসেছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু ওই হামলার পর নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে সফরের মাঝপথেই কেভিন পিটারসেনের টিম ইংল্যান্ডে ফিরে গিয়েছিল।

ভারতীয় শিবিরে করোনা হানা দেওয়ায় জন্য ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে পঞ্চম টেস্ট আপাতত বাতিল হয়ে গিয়েছে। যে ঘটনায় রীতিমতো হতাশ বিশ্ব ক্রিকেট। বিশেষত ইংল্যান্ড। কারণ তাদের অনেক টাকার ক্ষতি হয়ে গিয়েছে। যদিও বিসিসিআই চাইছে, পরের বছর ভারত যখন ইংল্যান্ড সফরে যাবে, তখন এই টেস্টটি খেলতে। আর বিসিসিআই-এর এই সিদ্ধান্তের পাশে দাঁড়িয়েছেন সুনীল গাভাস্কর। পাশাপাশি তিনি ১৩ বছর আগের ২৬/১১ মুম্বই হামলার ঘটনার কথাও ইংল্যান্ডকে মনে করিয়ে দিয়েছেন।

২০০৮ সালের ২৬ নভেম্বর মুম্বই হামলার সময়ে ভারতে সফরে এসেছিল ইংল্যান্ড। কিন্তু ওই হামলার পর নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে সফরের মাঝপথেই কেভিন পিটারসেনের টিম ইংল্যান্ডে ফিরে গিয়েছিল। সেই কথা মনে করিয়ে দিয়ে ভারতের কিংবদন্তি ক্রিকেটার দাবি করেছেন, ‘হ্যাঁ আমি মনে করি, বাতিল হয়ে যাওয়া ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট পুনরায় করার যে কথা ভাবা হচ্ছে, সেটাই সঠিক সিদ্ধান্ত। আমরা কিন্তু কখনও ভুলিনি, ২০০৮ সালে ইংল্যান্ড টিম কী করেছিল। মুম্বইয়ে ২৬/১১-র ভয়ানক সেই হামলা হয়েছিল। সেই সময়ে ব্রিটিশ টিম ইংল্যান্ডে ফিরে গিয়েছিল। তারা তখন বলেছিল, তারা নিরাপদ বোধ করছে না, তাই তারা ফিরে যাচ্ছে।  সেই দলে নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন কেভিন পিটারসেন, এবং তিনিই ছিলেন প্রধান মানুষ। যদি তখন কেপি না বলতেন এবং প্রত্যাখ্যান করতেন, তাহলেই বিষয়টি মিটে যেত।’

এর সঙ্গেই গাভাসকর যোগ করেছেন, ‘এটা খুবই ভাল বিষয় যে বিসিসিআই পুরো বিষয়টি মেকআপ করে দিতে চাইছে। দু'টি বোর্ডের মধ্যে এ রকমই সম্পর্ক হওয়া উচিত। বিসিসিআই যে পরের ইংল্যান্ড সফরে এই বাতিল হয়ে যাওয়া টেস্টটি করার প্রস্তাব দিয়েছে, সেটা একেবারে সঠিক সিদ্ধান্ত। আমার মনে হয় জুনের শুরুর দিকেই আইপিএল শেষ হয়ে যাবে। যে কারণে ভারতের পক্ষেও কিছু দিন আগে ইংল্যান্ডে যাওয়ার যথেষ্ট সময় থাকবে। তবে কোভিডের কী পরিস্থিতি থাকে, বা বিধিনিষেধ থাকে, তার উপর নির্ভর করবে। হয়তো সেই সফরের শুরুতেই বা শেষে একটি টেস্ট হবে।’

আসলে বৃহস্পতিবার টিম ইন্ডিয়ার জুনিয়র ফিজিও যোগেশ পারমারের কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। তার পরেই ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হয়। তবে ক্রিকেটারদের আরটি পিসিআর টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভই আসে। যে কারণে বিসিসিআই চেয়েছিল, নির্ধারিত দিনেই যেন টেস্টটি হয়ে যায়।

বিসিসিআই কর্তারা বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট এবং ইসিবির সঙ্গে ম্যাঞ্চেস্টার টেস্টের ভবিষ্যৎ নিয়ে কয়েক দফায় আলোচনাতেও বসেন। শেষ টেস্ট বাতিল করার বিষয়ে কথাবার্তা চলছিল। ভারতীয় বোর্ড চায়নি, আইপিএলে নতুন করে করোনার প্রভাব পড়ুক। কেননা ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগের ঠিক পরেই সংযুক্ত আমিরশাহিতে টি-২০ বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে। তাই আইপিএল কয়েক দিনের জন্য পিছিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। এমন কী ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট বাতিল হলে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডকে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়তে হবে। তবে শেষ রক্ষা হল না। বাতিলই করে দিতে হল ম্যাঞ্চেস্টার টেস্ট।

বন্ধ করুন