বাড়ি > ময়দান > IPL 2020: টাইটেল স্পনসর চিনা সংস্থা, তাই দেশজুড়ে আইপিএল বয়কটের ডাক
বিসিসিআই ও আইপিএলের লোগো।
বিসিসিআই ও আইপিএলের লোগো।

IPL 2020: টাইটেল স্পনসর চিনা সংস্থা, তাই দেশজুড়ে আইপিএল বয়কটের ডাক

  • RSS-এর সহযোগী সংস্থার বিরোধিতা ছাড়াও সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন ওমর আবদুল্লা, রণদীপরা।

সারা দেশ জুড়ে যখন প্রবল চিন বিরোধী হাওয়া বইছে, বিসিসিআই তখন আইপিএলের স্পনসর হিসেবে চিনা সংস্থাগুলির সঙ্গে চুক্তি বজায় রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ভারতীয় বোর্ডের বিরুদ্ধে আওয়াজ উঠতে পারে, এমন আশঙ্কা করা হচ্ছিল। শেষমেশ সেটাই সত্যি প্রমাণিত হল। ইতিমধ্যেই চিনা সংস্থার সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক বজায় রাখায় চাপ বাড়তে শুরু করল বিসিসিআইয়ের উপর।

গভর্নিং কাউন্সিলের বৈঠকের ঠিক পরের দিনই আরএসএসের সহযোগী সংস্থা স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ চিনা সংস্থাগুলির সঙ্গে চুক্তি নিয়ে সিদ্ধান্ত পুর্বিবেচনার দাবি জানাল বিসিসিআইকে। যদি ভারতী বোর্ড চিনা সংস্থার সঙ্গে চুক্তি ছিন্ন না করে, তবে চিনা পণ্যের মতো ইন্ডিয়ান প্রিমিয়র লিগও ভারতীয়দের বয়কট করার ডাক দিয়েছে সংস্থাটি। উল্লেখ্য, গালওয়ান সংঘর্ষে শহিদ ভারতীয় জওয়ানদের সম্মান জানাতে স্বদেশী জাগরণ মঞ্চ দেশজুড়ে চিনা দ্রব্য বয়কট করার জন্য আন্দোলন চালিয়া যাচ্ছে।

সংস্থার তরফে আওয়াজ তোলা হচ্ছে এই বলে যে, বিসিসিআইয়ের সিদ্ধান্ত দেশের ভাবাবেগে আঘাত করেছে। এটা ভারতীয়দের অপমান করার মতো। তাই ভারতীয় বোর্ড সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা না করলে টুর্নামেন্ট বয়কট করা উচিত। 

আরএসএসের সহযোগী সংস্থার তরফে জানানো হয়, সারা বিশ্ব যেখানে চিনকে বয়কট করছে, তখন ক্রিকেট বোর্ডের বোঝা উচিত ছিল, দেশের থেকে বড় কোনও কিছুই নয়।

শুধু স্বদেশী জাগরণ মঞ্চই নয়, ব্যক্তিগতভাবে আইপিএলের চিনা স্পনসর প্রসঙ্গে মুখ খুলেছেন অনেকেই। কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা টুইট করেন, ‘কেটে গেল আত্মনির্ভর ভারত অভিযান। ফিরে এল ক্রিকেট-চিন মুনাফাবাদী দ্বিচারিতা।’

ওমর আবদুল্লা টুইট করেন, ‘যখন লোকে চিনের জিনিস বয়কট করার ডাক দিচ্চছ, তথন চিনা মোবাইল প্রস্তুতকারক সংস্থা আইপিএলের টাইটেল স্পনসর থাকছে। এতে সন্দেহ নেই যে, আমরা যখন চিনের অর্থ/বিনিয়োগ/স্পনসর/বিজ্ঞাপনের হাতছানি কীভাবে সামলে উঠব বুঝে উঠতে পারছি না, তখন চিন আমাদের ঘুরিয়ে নাক দেখাচ্ছে।’

তিনি আরও একটি টুইটে লেখেন, ‘বিসিসিআই/আইপিএলের গভর্নিং কাউন্সিল সিদ্ধান্ত নিয়েছে চিনের বড় সংস্থা-সহ সমস্ত স্পনসরদের সঙ্গে চুক্তি বজায় রাখার। আমার খারাপ লাগছে সেই সব বোকাদের জন্য, যারা চিনের তৈরি টেলিভিশন বারান্দায় ছুঁড়ে ফেলার পর এমনটা হতে দেখছে।’

বন্ধ করুন