বাংলা নিউজ > ময়দান > The Ashes: অন্তত সমর্থকদের জন্য লড়াই কর, সতীর্থদের কাছে বিধ্বস্ত ইংল্যান্ড অধিনায়ক রুটের কাতর আর্জি

The Ashes: অন্তত সমর্থকদের জন্য লড়াই কর, সতীর্থদের কাছে বিধ্বস্ত ইংল্যান্ড অধিনায়ক রুটের কাতর আর্জি

মেলবোর্ন টেস্ট হেরে হতাশ ইংল্যান্ড অধিনায়ক জো রুট। ছবি- গেটি ইমেজেস।

মেলবোর্নে দ্বিতীয় ইনিংসে ৬৮ রানে অল আউট হয়ে ইনিংস এবং ১৪ রানে ম্যাচের পাশাপাশি অ্যাসেজ সিরিজও হেরেছে ইংল্যান্ড।

মেলবোর্নে প্রথম দিনে মাত্র ১৮৫ রানে অল আউট হয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয় দিনে বোলারদের দৌলতে ম্যাচে ফেরে ইংল্যান্ড। জেমস অ্যান্ডারসনরা অস্ট্রেলিয়াকে ২৬৭ রানে গুটিয়ে দিয়ে অ্যাসেজে ফেরার আশা জীবন্ত রাখলেও সবটাই জলে গেল। দ্বিতীয় ইনিংসে মাত্র ৬৮ রানেই গুটিয়ে গিয়ে ইনিংস এবং ১৪ রানে ম্যাচ ও সিরিজ খোয়ায় ইংল্যান্ড।

গোটা সফরে ছয় ইনিংসেই ব্যর্থ হয়েছে ইংল্যান্ড ব্যাটিং লাইন আপ। প্যাট কামিন্স হন বা ঝাই রিচার্ডসন বা মিচেল স্টার্ক বা মেলবোর্নে স্কট বোল্যান্ড, কারুর বিরুদ্ধেই অধিনায়ক জো রুট ছাড়া ব্যাট হাতে কেউই নিজের প্রভাব বিস্তার করতে পারেননি। মাত্র দুই দিন এবং এক সেশনেরও কম সময়ে বক্সিং ডে টেস্ট হেরে চারদিক থেকে ধেয়ে আসছে সমালোচনা। এমন অবস্থায় সতীর্থদের দলের সমর্থকদের জন্য নিজেদের সেরাটা দেওয়ার আর্জি জানালেন ইংল্যান্ড অধিনায়ক রুট।

ম্যাচের বিষয়ে কথা বলতে গিয়ে মেলবোর্নে রুট সাংবাদিকদের জানান, ‘আমি ভীষণ হতাশ। আমাদের নিজেদের এই অবস্থায় দেখতে হচ্ছে. তার জন্য আমি হতাশ। আমাদের ব্যাজের সম্মান রক্ষার জন্য এবং অন্তত সমর্থকদের জন্য আমাদের লড়াই করতে হবে। ওরা এই সফরের দিকে ঘুরে তাকালে যাতে গর্ব করার জন্য একটু কিছু পায়, সেইদিকটা দেখতে হবে। ৩-০ পিছিয়ে পড়া নিঃসন্দেহে হতাশাজনক, তবে এখনও দু'টি টেস্ট বাকি রয়েছে।’

ব্যাটার রুটের পারফরম্যান্স নিয়ে কোনো প্রশ্নই থাকতে পারে না। তবে অধিনায়ক রুটের পারফরম্যান্স এবং দক্ষতা নিয়ে আগেও প্রশ্ন উঠেছে। এই নিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে আট টেস্টে অধিনায়কত্ব করে সাতটিতেই হারতে হয়েছে রুটকে। এমনভাবে সিরিজের প্রথম তিন টেস্টে দুরমুশ হওয়ার পর ফের একবার ক্যাপ্টেন রুটের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে। সিরিজ শেষে বেন স্টোকসকে অধিনায়ক করা হতে পারেও বলে কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে। তবে নিজের ভবিষ্যৎ নিয়ে এই সময় বিন্দুমাত্র ভাবতে নারাজ রুট।

‘আমার সবটুকু ফোকাস পরের ম্যাচ জয়ের দিকে। এটা স্বার্থপর হয়ে নিজের জন্য ভাবার সময় নয়। আমাদের দরকার নিজেদের তরফ থেকে আমরা যেন সবটুকু দিয়ে খেলোয়াড়দের মানসিকভাবে প্রস্তুত করা, যাতে তারা মাঠে নেমে আমাদের ম্যাচ জেতাতে পারে। দলের প্রতিটা খেলোয়াড়ের মধ্যে আত্মবিশ্বাস জোগানোটাই অধিনায়কের প্রধান দায়িত্ব। বর্তমান সময়ে বেশি করে এই আত্মবিশ্বাসেরই তো প্রয়োজন।’ দাবি ইংল্যান্ড অধিনায়কের।

বন্ধ করুন