বাংলা নিউজ > ময়দান > অলিম্পিক্স বন্ধ করার দাবিতে এ বার বিদ্রোহী জাপানের সাধারণ মানুষ
অলিম্পিক্স বন্ধের দাবিতে রাস্তায় নামেন সাধারণ মানুষ।
অলিম্পিক্স বন্ধের দাবিতে রাস্তায় নামেন সাধারণ মানুষ।

অলিম্পিক্স বন্ধ করার দাবিতে এ বার বিদ্রোহী জাপানের সাধারণ মানুষ

  • প্রায় তিন লক্ষ ৫১ হাজার মানুষের সই করা একটি পিটিশন টোকিয়ো অলিম্পিক্স আয়োজকদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে।

টোকিয়ো অলিম্পিক্স শুরুর আগে হাতে মাত্র ১০ সপ্তাহ মতো রয়েছে। তার আগে করোনায় চতুর্থ ঢেউয়ের জেরে জাপানের পরিস্থিতি শোচনীয়। এ বার জাপানের সাধারণ মানুষ অলিম্পিক্স বন্ধের দাবিতে সরব হয়েছেন।  অলিম্পিক্স বন্ধ করার দাবিতে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ মানুষের সই করা একটি পিটিশন জমা দেওয়া হয়েছে।

প্রাক্তন টোকিয়ো গর্ভনর প্রার্থী এবং আইনজীবী কেনজি আটসোনোমিয়া একটি ক্যাম্পেন শুরু করেছেন। যার মূল বক্তব্য, ‘স্টপ টোকিয়ো অলিম্পিক্স’, অর্থাৎ ‘বন্ধ করা হোক টোকিয়ো অলিম্পিক্স’। প্রায় তিন লক্ষ ৫১ হাজার মানুষের সই করা একটি পিটিশন তিনি টোকিয়ো অলিম্পিক্স আয়োজকদের হাতে তুলে দিয়েছেন। গেমসের আয়োজকদের কাছে জাপানের সাধারণ মানুষের একটাই আবেদন, জীবনকে যেন আগে গুরুত্ব দেওয়া হয়। এ ছাড়াও এই পিটিশন জমা দেওয়া হয়েছে, অলিম্পিক্স এবং প্যারা অলিম্পিক্স কমিটির প্রধানকে। পাশাপাশি টোকিয়ে গভর্নর ইউরোকি কোইকে-কেও অনুরোধ জানানো হয়েছে, যেন তিনি এই বিষয়ে আন্তর্জাতিক টোকিয়ো অলিম্পিক্স কমিটির কাছে আবেদন জানান। ২৩ জুলাই থেকে অলিম্পিক্স শুরু হওয়ার কথা। 

করোনার জন্য ইতিমধ্যেই টোকিয়ো সহ বিভিন্ন শহরেই জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে। মে মাস পর্যন্ত এই জরুরি অবস্থা জারি থাকার কথা। এমন কী জাপানে করোনার চতুর্থ ঢেউ আছড়ে পড়ার পর চিকিৎসা পরিকাঠামো একেবারে ভেঙে পড়েছে। এই পরিস্থিতে কোনও ভাবেই অলিম্পিক্স করতে দিতে রাজি নয় জাপানের সাধারণ মানুষ। তাদের প্রত্যেকেরই দাবি, করোনার জন্য ২০২০ সাল থেকে অলিম্পিক্স পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। সে ক্ষেত্রে তখনই তা হলে অলিম্পিক্সের আয়োজন করা হোক, যখন জাপান অলিম্পিক্সে অংশগ্রহণকারী এবং বাকি অতিথিদের মন থেকে আনন্দের সঙ্গে স্বাগত জানাতে পারবে।

কেনজি আটসোনোমিয়ার দাবি, ‘আমাদের এখন গেমসের আয়োজনের মতো সেই পরিস্থিতিই নেই। তাই অলিম্পিক্স আপাতত বাতিল করা হোক। যদি অলিম্পিক্স হয়, সে ক্ষেত্রে চিকিৎসা ব্যবস্থাতেও প্রভাব পড়বে। কারণ অলিম্পিক্সের জন্যও আলাদা করে চিকিৎসা ব্যবস্থা রাখতেই হবে।’

রবিবার হাজারের বেশি মানুষ অলিম্পিক্স বন্ধ করার দাবিতে রাস্তায় নেমেছিলেন। এ বার পিটিশনও জমা দেওয়া হল। অলিম্পিক্সের ভবিষ্যৎ নিয়ে সত্যিই প্রশ্ন উঠে গেল।

বন্ধ করুন