বাংলা নিউজ > ময়দান > 'আইপিএলের সঙ্গে সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির পার্থক্য থাকবে না', কেন এমন বললেন ঋদ্ধি?
ঋদ্বিমান সাহা।
ঋদ্বিমান সাহা।

'আইপিএলের সঙ্গে সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির পার্থক্য থাকবে না', কেন এমন বললেন ঋদ্ধি?

  • আইপিএল চলাকানীলই ঋদ্ধিমান সাহাও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। এখন অবশ্য পুরো সুস্থ। ইংল্যান্ড সফরের ২০ জনের দলেও রয়েছেন তিনি।

বিদেশি প্লেয়ার যদি আইপিএল না খেলতেন, তবে ঠিক কী রকম দশা হত এই টুর্নামেন্টের? সানরাইজার্স হায়দরাবাদের উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান ঋদ্ধিমান সাহার দাবি, বিদেশি ছাড়া আইপিএল কার্যত সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফিরই বড় সংস্করণ হয়ে যেত।

একটি সাক্ষাৎকারে ঋদ্ধি বলেছেন, ‘বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে বেশীর ভাগই আসেন অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, ওয়েস্ট ইন্ডিজ থেকে। আমার ব্যক্তিগত ভাবে মনে হয়, এই বছর স্থগিত হয়ে যাওয়া আইপিএল হওয়া খুবই কঠিন। বিদেশি ছাড়া আইপিএল কার্যত সৈয়দ মুস্তাক আলি ট্রফির বড় সংস্করণ হয়ে যাবে।’

সত্যি কথা বলতে, বিদেশি ছাড়া আইপিএলের উত্তেজনাটা নিঃসন্দেহে অনেকটাই কমে যাবে। এই বছর বিদেশি প্লেয়ারদের নতুন করে আইপিএলের জন্য পাওয়াটাও বেশ সমস্যার। সে কারণেই সম্ভবত ঋদ্ধির এ কথা মনে হয়েছে।

বাংলার কিপার ব্যাটসম্যান আরও বলেছেন, ‘দু'-একটা ম্যাচে যে কোনও প্লেয়ারই ফ্লপ হতে পারে। কিন্তু কোনও টিম যদি ক্রমাগত পরিবর্তন করতে থাকে, তবে টিমের মধ্যে কখনও-ই ভারসাম্য গড়ে উঠবে না। আমি একটা ছোট্ট পরামর্শ দিতে পারি, শুধু মাত্র এসআরএইচ-এর জন্য নয়। যে কোনও টিমেরই সেরা প্রথম একাদশ বেছে নিয়ে অন্তত পাঁচ-ছ'টা ম্যাচ খেলা উচিত। যদি না ক্লিক করে, তখন পরিবর্তন করাই যায়। এই ক্ষেত্রে প্লেয়াররাও সুযোগ পাবে, এবং দলটির মধ্যেও ভারসাম্য গড়ে উঠবে।’

এর সঙ্গেই আইপিএলে নিজের দল থেকে বাদ পড়ার প্রসঙ্গও টেনেছেন ঋদ্ধি। বলেছেন, ‘তবে এটা পুরোটাই ম্যানেজমেন্টের সিদ্ধান্ত। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স ম্যাচের আগে আমাকে বলা হয়েছিল, আমি ম্যাচটি খেলব না। কিন্তু আমাকে অন্য পজিশনে খেলানো যায় কিনা, এ সব নিয়ে আমাদের মধ্যে কোনও রকম আলোচনাও হয়নি। অন্য প্লেয়ারদের পারফরম্যান্সের উপর ভিত্তি করেই হয়তো এই টুর্নামেন্টে আবার আমার সুযোগ আসতে পারে।’

বন্ধ করুন