বাংলা নিউজ > ময়দান > ২০১১ বিশ্বকাপে সব ক্রিকেটারকেই যৌন মিলনের বিষয়ে উৎসাহিত করেছিলেন এই কোচ
২০১১ বিশ্বকাপ জয়ের মুহূর্ত।
২০১১ বিশ্বকাপ জয়ের মুহূর্ত।

২০১১ বিশ্বকাপে সব ক্রিকেটারকেই যৌন মিলনের বিষয়ে উৎসাহিত করেছিলেন এই কোচ

  • ২০০৮ সাল থেকে গ্যারি কার্স্টেনের সঙ্গে ভারতীয় দলের মেন্টাল কন্ডিশনিং কোচের দায়িত্ব পালন করেছিলেন প্যাডি আপটন। সেই সময়ে কিন্তু ভারতীয় দলের সাফল্য ছিল নজর কাড়া। ২৮ বছর বাদে ২০১১ বিশ্বকাপ জয় তো সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি।

যৌন মিলনের ফলে নাকি পারফরম্যান্সে উন্নতি হয়। এমনই তথ্য সচিন তেন্ডুলকর, মহেন্দ্র সিং ধোনিদের দিয়েছিলেন ভারতের প্রাক্তন মেন্টাল কন্ডিশনিং কোচ প্যাডি আপটন। তিনি তাই ২০১১ বিশ্বকাপের সময়ে প্রতিটা ম্যাচের আগে প্লেয়ারদের যৌন মিলনের পরামর্শও দিয়েছিলেন।

২০১১ বিশ্বকাপে ভারতের কোচ ছিলেন গ্যারি কার্স্টেন। তাঁর সহকারী হিসেবে ছিলেন আপটন। সম্প্রতি তিনি নিজের আত্মজীবনী ‘দ্য বিয়ারফুট কোচ’ বইতে এই কথা উন্মোচন করেছেন। তবে সে সময়ে আপটনের এই পরামর্শের কথা জানতে পেরে গ্যারি কার্স্টেন নাকি ভয়ঙ্কর রেগে গিয়েছিলেন। এই পরমার্শ দেওয়ার জন্য পরে সকলের কাছে ক্ষমা চাইতে হয় আপটনকে।

২০০৮ সাল থেকে গ্যারি কার্স্টেনের সঙ্গে ভারতীয় দলের মেন্টাল কন্ডিশনিং কোচের দায়িত্ব পালন করেছিলেন প্যাডি আপটন। সেই সময়ে কিন্তু ভারতীয় দলের সাফল্য ছিল নজর কাড়া। ২৮ বছর বাদে ২০১১ বিশ্বকাপ জয় তো সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি।

তবে প্যাডি আপটনের এই যৌন মিলনের পরামর্শ নতুন কিছু ছিল না,  ২০০৯ সালের চ্যাম্পিয়নস ট্রফির সময়েও তিনি যৌন মিলনের সুবিধের কথা তুলে ধরেছিলেন তিনি। এবং বলেওছিলেন, যৌন মিলনের পর পারফরম্যান্সে উন্নতি হয়।

এ দিকে মহেন্দ্র সিং ধোনির টিমের সাফল্যের আসল রহস্যও নিজের বইতে উন্মোচন করেছেন প্যাডি আপটন। তিনি লিখেছেন, ‘আমি যখন ভারতীয় দলে যোগ দিলাম তখন টেস্ট দলের অধিনায়ক ছিলেন অনিল কুম্বলে। এবং একদিনের দলের অধিনায়ক ছিলেন এমএস ধোনি। আমাদের (কোচেদের) স্ব-শাসিত একটি প্রক্রিয়া ছিল। আমরা টিমের কাছে জানতে চেয়েছিলাম, প্র্যাক্টিস এবং দলের কোনও মিটিংয়ে সময়ে যোগ দেওয়া কি গুরুত্বপূর্ণ? প্রত্যেকেই বলেছিল, হ্যাঁ এটা গুরুত্বপূর্ণ।’

এর সঙ্গেই কুম্বলে এবং ধোনির তুলনা দিতে গিয়ে আপটন লিখেছেন, ‘টেস্ট টিমের ক্ষেত্রে অনিল কুম্বলে বলেছিলেন, কেউ যদি দেরী করে তাঁকে দশ হাজার টাকা ফাইন করা হবে। একই কথা ধোনির একদিনের টিমকে জিজ্ঞেস করা হলে, ধোনি বলেন, হ্যাঁ কেউ দেরী করলে দশ হাজার টাকা ফাইন অবশ্যই করা হবে। তবে একজন দেরী করলে সবাইকে সেক্ষেত্রে ১০ হাজার টাকা করে ফাইন দিতে হবে। একদিনের দলে কখনও কেউ দেরী করেনি।’ আর এটাই ছিল অধিনায়ক ধোনির সাফল্যের আসল চাবিকাঠি। টিমগেমে বিশ্বাসী ছিলেন ধোনি।

। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, “যৌন মিলনে কি পারফর্মেন্স ভালো হয়? হ্যাঁ অবশ্যই।"

 

বন্ধ করুন