বাংলা নিউজ > ময়দান > সচিন আউট হতেই ভেবেছিলাম ম্যাচ শেষ, যুবি-কাইফ সম্বন্ধে জানতাম না: নিক নাইট
যুবি-কাইফ
যুবি-কাইফ

সচিন আউট হতেই ভেবেছিলাম ম্যাচ শেষ, যুবি-কাইফ সম্বন্ধে জানতাম না: নিক নাইট

  • ন্যাটওয়েস্ট ফাইনালে প্রথমে ব্যাট করে ইংল্যান্ড দল মার্কাস ট্রেসকোথিক এবং নাসের হুসেনের শতরানে ভর করে ৫ উইকেটে ৩২৫ রান করতে সমর্থ হয়েছিল। ক্রিকেট ডট কমকে এক সাক্ষাৎকারে নিক নাইট জানিয়েছেন তাদের সাজঘরের পরিবেশ ম্যাচে দারুণ ছিল।

শুভব্রত মুখার্জি: ভারতীয় ক্রিকেটের ইতিহাসে ন্যাটওয়েস্ট ট্রফির ফাইনাল জয় অন্যতম সেরা, স্ময়ণীয় জয়গুলোর অন্যতম। ৩২৬ রান তাড়া করতে গিয়ে ভারত ১৫০ রান স্কোরবোর্ডে তুলতে পারার আগেই তাদের একাধিক উইকেট পরে গিয়েছিল। সচিন, সৌরভ, দ্রাবিড়, সেহওয়াগের মতন ক্রিকেটাররা আউট হয়ে যাওয়ার পরে ওই ম্যাচ যে ভারতীয় দল জিততে পারে তা হয়ত ভারতের অতিবড় সমর্থকও ভাবেননি। তবে সেদিন অসাধ্য সাধন করেছিলেন দুই তরুণ প্রতিভাবান ব্যাটার যুবরাজ সিং এবং মহম্মদ কাইফ। দীর্ঘদিন বাদে সেই ম্যাচের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে ইংল্যান্ড ওপেনার নিক নাইট জানালেন সচিন আউট হওয়ার পরেই তারা ধরে নিয়েছিলেন ম্যাচ শেষ। যুবরাজ সিং এবং মহম্মদ কাইফ সম্বন্ধে তাদের যে সেরকম ধারণা ছিল না তাও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত ন্যাটওয়েস্ট ফাইনালে প্রথমে ব্যাট করে ইংল্যান্ড দল মার্কাস ট্রেসকোথিক এবং নাসের হুসেনের শতরানে ভর করে ৫ উইকেটে ৩২৫ রান করতে সমর্থ হয়েছিল। ক্রিকেট ডট কমকে এক সাক্ষাৎকারে নিক নাইট জানিয়েছেন তাদের সাজঘরের পরিবেশ ম্যাচে দারুণ ছিল। উৎসবের মেজাজ ছিল সাজঘরে। ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপ থাকার পরেও ওই স্কোরের পরে ইংল্যান্ড আত্মবিশ্বাসী ছিল তারা জিতবে।

নাইট জানান 'এখন যেভাবে ক্রিকেটটা খেলা হয় তখন সেভাবে হত না। তো সেখানে দাঁড়িয়ে ৩২৫... আমরা যখন সাজঘরে ফিরে গিয়ে ভালো খাবার দাবার খাচ্ছিলাম তখন আমরা আত্মবিশ্বাসী ছিলাম স্কোরটা বেশ ভালো এবং আমরা ফাইনাল জিতব। আমরা জানতাম আমরা একটা ভালো জলের বিরুদ্ধে খেলছি। তাদের বেশ কিছু ভালো ক্রিকেটার ছিল। তবে সেই সময়কালে ৩২৫ রানের জন্য আমরা ফেভারিট ছিলাম। গাঙ্গুলী এবং সেহওয়াগ নেমেই মারকাটারি মুডে খেলা শুরু করে। প্রথম ১০ ওভারের পরে মনে হয়েছিল বেশ ক্লোজ ম্যাচ হবে। দ্রাবিড়, তেন্ডুলকর তখনও মাঠে নামেনি আর যুবরাজ বা কাইফ সম্বন্ধে আমাদের তেমন ধারনা ছিল না। আমরা জানতাম ওরা ট্যালেন্টেড ক্রিকেটার। ১৪০ রানে যখন ওদের ৫ উইকেট পড়ে যায়। সচিন যখন আউট হয়ে যায় আমরা ধরে নিয়েছিলাম যুবরাজ, কাইফরা ৩২৬ রানে দলকে পৌঁছতে পারবে না। বিষয়টি উন্নাসিক হওয়া বা বোকামো করা নয় তখন এমন ভাবনাই মাথায় এসেছিল।'

বন্ধ করুন