বাড়ি > ময়দান > অধিনায়ক সৌরভের এই ৩ সিদ্ধান্ত বদলে দিয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটকে
ভারতীয় ক্রিকেটকে বদলে দেওয়ার কারিগর সৌরভ। ছবি- টুইটার।
ভারতীয় ক্রিকেটকে বদলে দেওয়ার কারিগর সৌরভ। ছবি- টুইটার।

অধিনায়ক সৌরভের এই ৩ সিদ্ধান্ত বদলে দিয়েছিল ভারতীয় ক্রিকেটকে

  • আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মানচিত্রে ভারতকে নতুন করে চিহ্নত করেছিল সৌরভের ছোঁয়ায় বদলে যাওয়া টিম ইন্ডিয়া।

ম্যাচ গড়াপেটার কলঙ্কিত অধ্যায় থেকে ভারতীয় ক্রিকেটকে টেনে তুলেছিলেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। লক্ষ্যভ্রষ্ট ভারতীয় ক্রিকেট দল প্রকৃত টিম ইন্ডিয়ায় পরিণত হয়েছিল তাঁর হাত ধরেই। তবে ক্যাপ্টেন সৌরভের সব থেকে বড় কৃতিত্ব হল পালটা লড়াইয়ের জন্য টিম ইন্ডিয়ার ফুসফুসে বাড়তি অক্সিজেনের জোগান দেওয়া।

ঘরের মাঠে তো বটেই, বিদেশেও টিম ইন্ডিয়াকে জিততে শিখিয়েছিলেন সৌরভ। ক্যাপ্টেন হিসেবে তাঁর কিছু অনবদ্য সিদ্ধান্ত ভারতীয় ক্রিকেট দলকে শুধু তাৎক্ষণিক সুফল এনে দেয়নি, বরং দীর্ঘমেয়াদি ভিত্তিতে লাভবান করেছিল। বলাবাহুল্য, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট মানচিত্রে ভারতকে নতুন করে চিহ্নত করেছিল সৌরভের ছোঁয়ায় বদলে যাওয়া টিম ইন্ডিয়া।

ভারতীয় ক্রিকেটের গতিপ্রকৃতি বদলে দেওয়া সৌরভের এমনই তিনটি সিদ্ধান্তের দিকে আলোকপাত করা যাক।

দ্রাবিড়ের হাতে উইকেটকিপারের দস্তানা: ব্যাটসম্যান দ্রাবিড়ের নির্ভরযোগ্যতা নিয়ে ভারতীয় ক্রিকেটে কখনই কোনও সংশয় ছিল না। তবে বিশেষজ্ঞমহলের মত, উইকেটকিপার হিসেবে ব্যবহার করে রাহুলের ওয়ান ডে কেরিয়ার দীর্ঘায়িত করেছিলেন সৌরভ। এটা যদি দ্রাবিড়ের ব্যক্তিগত কেরিয়ারের জন্য উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ হয়ে থাকে, তবে টিম ইন্ডিয়ার জন্যও অত্যন্ত কর্যকরী হয়ে দেখা দিয়েছিল। দ্রাবিড় উইকেটকিপিং করায় দলে একজন বাড়তি বোলার খেলানোর সুযোগ পেয়েছিল ভারত।ব্যাটিং-বোলিংয়ের এই ভারসাম্যই ভারতকে ২০০৩ বিশ্বকাপের ফাইনালে তুলতে সাহায্য করেছিল।

সেহওয়াগকে ওপেন করতে পাঠানো: বীরেন্দ্র সেহওয়াগের আন্তর্জাতিক অভিষেক হয়েছিল মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান হিসেবে। অভিষেক ম্যাচেই আগ্রাসী সেঞ্চুরি করেছিলেন তিনি। ধ্বংসাত্মক মেজাজের জন্য বীরুকে কেউই টেস্ট ক্রিকেটের উপযুক্ত মনে করেননি। সমালোচনার প্রবল ঝুঁকি নিয়ে সৌরভ সেহওয়াগকে টেস্ট ম্যাচে ওপেন করতে পাঠান এবং নিজের আগ্রাসী মেজাজ ধরে রাখার পরামর্শ দেন। বাকিটা ইতিহাস। দুটি ট্রিপল সেঞ্চুরি করে ও বহু ম্যাচের শক্ত ভিত গড়ে দিয়ে বীরু টেস্ট ওপেনারের সংজ্ঞাটাই বদলে দেন।

ইডেনের ঐতিহাসিক টেস্টে সচিনের হাতে বল তুলে দেওয়া: ২০০১'এর ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজে স্টিভ ওয়ার অস্ট্রেলিয়া মুম্বইয়ে ভারতকে বিধ্বস্ত করে খেলতে এসেছিল কলকাতায়। ইডেনেও অজিরা ফলো-অন করতে পাঠিয়েছিল ভারতকে। রাহুল-লক্ষ্মণের রূপকথার জুটি যদি টিম ইন্ডিয়াকে লড়াইয়ের রদস জোগায়, তবে শেষ ইনিংসে সচিনের বোলিং ভারতের জয়ের পথ সুগম করেছিল। গিলক্রিস্ট, হেডেন ও ওয়ার্নের তিনটি উইকেট তুলে নিয়ে সচিন ভারতকে জয়ের দোরগোড়ায় নিয়ে গিয়েছিলেন। আলাদা করে বলার অপেক্ষা রাখে না যে, ইডেন টেস্টের সেই জয়ের পর ভারতীয় ক্রিকেট দলকে কুর্নিশ জানাতে বাধ্য হয় ক্রিকেটবিশ্ব।

বন্ধ করুন