বাড়ি > ময়দান > স্পনসর খুঁজে পেয়েছে ইস্টবেঙ্গল, তবে তিনটি কাঁটার জন্য থমকে রয়েছে চুক্তি
গ্যালারির রং লাল-হলুদ। ছবি- টুইটার।
গ্যালারির রং লাল-হলুদ। ছবি- টুইটার।

স্পনসর খুঁজে পেয়েছে ইস্টবেঙ্গল, তবে তিনটি কাঁটার জন্য থমকে রয়েছে চুক্তি

  • সমস্যা না মেটালে বিনিয়োগকারীদের মন গলানো মুশকিল।

কোয়েসের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর ইস্টবেঙ্গলের সামনে প্রধান চ্যালেঞ্জ ছিল নতুন স্পনসর খুঁজে বার করা। বিশেষ করে অতিমারির মাঝে আইএসএল খেলার জন্য বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করতে পারে, এমন সংস্থার খোঁজ পাওয়া সত্যিই কঠিন। যদিও বাংলায় শিকড় গাঁথা এমন একটি বিদেশি সংস্থাকে লাল-হলুদ শিবির রাজি করাতে পেরেছে, যারা ক্লাবে বিপুল অর্থ লগ্নি করতে প্রস্তুত। তবে তাদের সঙ্গে চুক্তির পথে কতকগুলি প্রতিবন্ধকতা রয়েছে এখনও।

ইস্টবেঙ্গলে বিনিয়োগ করতে রাজি হয়েছেন প্রবাসী বাঙালি শিল্পপতি প্রসূন মুখোপাধ্যায়। আসিয়ান জয়ের সময় যিনি ইস্টবেঙ্গলকে জাকার্তায় প্রভূত সাহায্য করেছিলেন। ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গে কথাবার্তা প্রায় পাকা জাকার্তার ইউনিভার্সাল সাকসেস এন্টারপ্রাইজেস লিমিটেড, সংক্ষেপে ইউএসইএল-এর। তবে মূলত তিনটি শর্তে থমকে রয়েছে চুক্তি।

শেয়ার ছাড়া নিয়ে সমঝোতা:- প্রাথমিকভাবে ইস্টবেঙ্গল ক্লাব স্পনসরদের ৪৯ শতাংশ শেয়ার ছাড়তে চেয়েছিল। বিনিয়োগে রাজি সংস্থা চায় ক্লাবের সংখ্যাগরিষ্ঠ শেয়ার। পরে ক্লাব ৫১ শতাংশ শেয়ার ছাড়তে রাজি হয়। লগ্নিতে প্রস্তুত সংস্থার তরফে প্রশ্ন তোলা হয়ে যে, কোয়েস যদি আই লিগের জন্য বিনিয়োগ করেই ৭০ শতাংশ শেয়ার পেতে পারে, তবে তারা আইএসএলের জন্য বিপুল অর্থ খরচ করেও কেন তার থেকে বেশি শেয়ার পাবে না। শোনা যাচ্ছে ইস্টবেঙ্গল শেষমেশ ৭০ শতাংশ শেয়ার দিতে পারে স্পনসরদের।

আইএসএল খেলা নিয়ে অনিশ্চয়তা:- বিনিয়োগে উদ্যত সংস্থাকে ক্লাবের তরফে জানানো হয়েছিল যে, দল এবছরই আইএসএল খেলবে। তবে ইন্ডিয়ান সুপার লিগের আয়োজক সংস্থা ফুটবল স্পোর্টস ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড বা এফএসডিএল জানিয়ে দিয়েছে, তারা এবছর আর টুর্নামেন্টে দল সংখ্যা বাড়াতে চায় না। আইএসএল না খেললে প্রচুর টাকা বিনিয়োগ করেও প্রচারে থাকা যাবে না, এটা উপলদ্ধি করেই ইউএসইএল নিশ্চিত হতে চাইছে ক্লাবের ইন্ডিয়ান সুপার লিগ খেলার বিষয়ে। সংবাদ প্রতিদিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সংস্থার কর্ণধার প্রসূন মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন যে, তিনি শুধু এফএসডিএলের কাছ থেকে ক্লাব কর্তাদের ইস্টবেঙ্গলের আইএসএল খেলার বিষয়ে লিখিত নিশ্চয়তা নিয়ে আসতে বলেছেন।

ক্লাবের নামের আগে স্পনসরের নাম ব্যবহার করতে না পারা:- সঙ্গত কারণেই সব স্পনসররাই চায় ক্লাবের নামের আগে তাদের নাম ব্যবহার করা হোক। অতীতে ইস্টবেঙ্গল মাঠে নেমেছে কিংফিশার ইস্টবেঙ্গল বা কোয়েস ইস্টবেঙ্গল নামে। তবে এক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন সংক্রান্ত নিয়মে আটকে যাওয়ায় এবছর ইস্টবেঙ্গল তাদের নামের আগে নতুন স্পনসরের নাম ব্যবহার করতে পারবে না বলেই খবর। সেক্ষেত্রে নিজেদের পরিচিতি জাহির করতে না পারলে ইউএসইএল বিপুল অর্থ ইস্টবেঙ্গলে বিনিয়োগ করবে কিনা, তা নিয়ে সংশয় থেকেই যায়।

বন্ধ করুন