বাংলা নিউজ > ময়দান > করোনা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন ভারতীয় অ্যাথলিটরা
করোনার থাবা অ্যাথলিটে।
করোনার থাবা অ্যাথলিটে।

করোনা আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন ভারতীয় অ্যাথলিটরা

  • করোনার জেরে করুণ দশা দেশের অ্যাথলিটদের। একের পর এক অ্যাথলিটের আক্রান্ত হওয়ার খবর আসছে। যার জেরে অলিম্পিক্সের প্রস্তুতিতেও ব্যাঘাত ঘটছে।

ভারতের করোনা দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তেই হুহু করে বাড়ছে সংক্রমণের মাত্রা। সাধারণ মানুষ থেকে সেলেব কেউই করোনার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছেন না। ভারতীয় অ্যাথলিটদের অবস্থা তো খুবই খারাপ। বেঙ্গালুরু থেকে দিল্লি, পাতিয়ালার সাইতে করোনা মারাত্মক আকার নিয়েছে।

সাইয়ের দক্ষিণ কেন্দ্র থেকে জানা গিয়েছে, শ্যুটার দীপক কুমারর করোনায় আক্রান্ত। সেই সঙ্গে প্রিয়াঙ্কা গোস্বামী, জিনসন জনসন থেকে শুরু করে একজন লংজাম্পার, একজন ওয়াকার, একজন বিদেশি কোচ সহ তিনজন কোচ করোনায় আক্রান্ত। এ ছাড়াও আরও অনেক পজিটিভ কেস রয়েছে। আরও কিছু নাম এই তালিকায় যোগ হওয়ার অপেক্ষা। অন্য কেন্দ্রগুলিতেও তথৈবচ দশা।

সাই দক্ষিণ কেন্দ্রের তরফে বলা হয়েছে, ‘এখানে করোনা পরিস্থিতি খুবই জটিল। বহু পজিটিভ কেস রয়েছে। জুনিয়র হকি প্লেয়ার থেকে শুরু করে প্রথম সারির অ্যাথলিট যেমন প্রিয়াঙ্কা গোস্বামী, জিনসন জনসনদের  করোনার রেজাল্ট পজিটিভ এসেছে। এ ছাড়াও সাপোর্ট স্টাফ, কোচেরাও করোনায় আক্রান্ত। এই কোচেদের মধ্যে একজন বিদেশি কোচও রয়েছেন।’ এদের মধ্যে কাউকে কাউকে হাসপাতালেও ভর্তি করতে হয়েছে। বর্ষীয়ান কোচ রেনু কোহলিও করোনায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি।

ওয়াকার টিমের প্রধান কোচ, সহকারী কোচ, প্লেয়ার, ফিজিও প্রত্যেকেই করোনায় আক্রান্ত। জুনিয়র হকি টিমের প্রায় প্রত্যেকেই করোনা পজিটিভ। তার মধ্যে ৮ জন প্লেয়ার এখনও সাইতেই রয়েছে। এ ছাড়া পাতিয়ালাতেও বহু পজিটিভ কেস ধরা পড়েছে। করোনা জন্য অলিম্পিক্সের আগে বক্সারদের ট্রেনিংয়েও ব্যাঘাত ঘটেছে। মহিলা বক্সার সিমরানজিৎ কাউরের (৬০ কেজি) করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার পর আপাতত অনির্দিষ্টকালের জন্য বক্সিংয়ের ট্রেনিং বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।  

বন্ধ করুন