তুরস্কের ফুটবলার শেভহার তোকতাস। ছবি- টুইার।
তুরস্কের ফুটবলার শেভহার তোকতাস। ছবি- টুইার।

৫ বছরের ছেলেকে হত্যা করে আত্মসমর্পণ করলেন তুরস্কের ফুটবলার

  • করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিল ছেলে। তার সঙ্গে আইসোলেশনে ছিলেন পিতাও।

নিজের পাঁচ বছরের পুত্র সন্তানকে হত্যা করে পুলিশের কাছে আত্নসমর্পণ করলেন তুরস্কের প্রথম সারির লিগে খেলা ফুটবলার। ছেলেকে পছন্দ করতেন না বলেই ঠাণ্ডা মাথায় এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে স্বীকার করে নিয়েছেন তিনি।

৩২ বছর বয়সি শেভহার তোকতাস বুরসা ইলদিরিমসপোর ক্লাবের হয়ে খেলেন। গত ২৩ এপ্রিল তিনি ছেলে কাসিমকে নিয়ে হাসপাতালে যান। ছেলের গায়ে জ্বর ছিল এবং শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। করোনার উপসর্গ থাকায় ডাক্তাররা শেভহার ও তাঁর ছেলেকে একসঙ্গে আইসোলেশনে রাখেন।

গত ৪ এপ্রিল শেভহার ঘুমন্ত ছেলের শ্বাসরোধ করে খুন করেন। যদিও তৎক্ষণাৎ মারা যায়নি কাসিম। ছেলে নিস্তেজ হয়ে পড়লে শেভাহর চিৎকার করে ডাক্তারদের সাহায্য চান। তড়িঘড়ি কাসিমকে আইসিইউতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই ঘণ্টা দুয়েক মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে হার মানে সে। আগে থেকেই শ্বাসকষ্ট থাকায় মৃত্যুকে স্বাভাবিক বলে ধরে নেন ডাক্তাররা। যদিও করোনা পরীক্ষায় কাসিমের নমুনা নেগেটিভ আসে।

খটকা থাকলেও মৃত্যু নিয়ে বিশেষ হেলদোল ছিল না কারও। ছেলের মৃত্যু ১১ দিন পর অপরাধবোধে ভুগতে থাকা শেভহার নিজেই থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করেন এবং স্বীকার করে নেন, সুযোগ বুঝে ১৫ মিনিট ছেলের মুখে বালিশ চাপা দিয়ে তাকে হত্যা করেছেন তিনি। কারণ হিসেবে তোকতাস বলেন, তিনি কখনই চাননি ছেলেকে। রীতিমতো অবাঞ্ছিত ছিল কাসিম। কেন নিজের ছেলেকে সহ্য করতে পারতেন না, সে সম্পর্কে স্পষ্ট কোনও কারণ জানাননি শেভহার।

আপাতত পুলিশ গ্রেফতার করেছে ফুটবলারকে। ছেলের দেহ পাঠানো হয়েছে ময়নাতদন্তের জন্য। শেভহারের এমন কান্ডে স্তম্ভিত তুরস্কের ফুটবলমহল।

বন্ধ করুন