চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ (ছবি সৌজন্য পিটিআই)
চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ (ছবি সৌজন্য পিটিআই)

U19 World Cup final: ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশের

পঞ্চমবার অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ের দোরগোড়ায় পৌঁছেও খালি হাতে ফিরল ভারত। ফাইনালে রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ে ৩ উইকেটে(D/L মেথড)জয় পেল বাংলাদেশ। এই প্রথম কোনও আইসিসি টুর্নামেন্টে জয়ী হল বাংলাদেশ। ব্যাট হাতে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক অধিনায়ক আকবর আলি (অপরাজিত ৪৩) এবং পারভেজ হুসেন ইমন (৪৭)।

কাজে এল না রবি বিষ্ণোই, যশস্বী জয়সওয়ালদের দুরন্ত লড়াই। বরং কাঁপুনি সামলে বাংলাদেশকে যে কোনও পর্যায়ে প্রথম বিশ্বকাপ জেতালেন অধিনায়ক আকবর আলি।

৪২.১ ওভারে ১৭০-৭

খেলা শুরু হওয়ার পর মাত্র ১ ওভার ১ বলেই জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ৭ রান তুলে নিল বাংলাদেশ। ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে তিন উইকেটে জয় পেল বাংলাদেশ।

৪১ ওভারে ১৬৩-৭

বৃষ্টির জন্য বন্ধ খেলা। ডার্কওয়ার্থ লুইস মেথডে ১৬ রানে এগিয়ে বাংলাদেশ।

৪০ ওভারে ১৬২-৭

ক্রিজে রয়েছেন আকবর আলি। তিনি ৭৫ বলে ৪১ রান করেন। সঙ্গে রয়েছেন রাকিবুল হাসান। তিনি ১৭ বলে তিন রান করেছেন।

৩২ ওভারে ১৪৩-৭

আউট হলেন পারভেজ হোসেন ইমন। তিনি ৭৯ বলে ৪৭ রান করেন। আউট করলেন যশস্বী জয়সওয়াল। ভারতের জন্য বড়সড় সাফল্য। জেতার জন্য বাংলাদেশের চাই আর ৩৫ রান।

৩০ ওভারে ১৩৬-৬

ক্রিজে রয়েছেন পারভেজ হোসেন ইমন ও আকবর আলি। ইমন ৬৯ বলে ৪১ রান করেছেন। ৩৯ বলে ৩১ রান করেছেন আকবর।

২৩ ওভারে ১০২-৬

আউট অভিষেক দাস। তিনি পাঁচ রান করেন। আউট করলেন সুশান্ত মিশ্র।

২০.১ ওভারে ৮৫-৫

আউট হলেন শামিম হোসেন। ১৮ বলে সাত রান করেন তিনি। উইকেট নিয়েছেন সুশান্ত মিশ্র।

২০ ওভারে ৮৫-৪

ক্রিজে রয়েছেন শামিম হোসেন ও আকবর আলি। ১৭ বলে সাত রান করেছএন শামিম। ১৪ বলে ৯ রান করেছেন আকবর।

১৬.১ ওভারে ৬৫-৪

রবি বিষ্ণোইয়ের জাদুতে আচমকা বাংলাদেশ ইনিংসে কাঁপুনি শুরু। লেগস্পিনারের এবারের শিকার শাহদাত হোসেন। এরফলে চলতি বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক হলেন বিষ্ণোই।

১৪.১ ওভারে ৬২-৩

তোহিদ হৃদয়কে প্যাভিলিয়নে ফেরালেন রবি বিষ্ণোই। তিনি কোনও রান করতে পারেননি।

১২.৫ ওভারে ৬২-২

ফের রবি বিষ্ণোইয়ের কামাল। আউট হলেন সেমিফাইনালের নায়ক মাহমুদুল হাসান জয়। ১২ বলে আট রান করেন তিনি।

১০ ওভারে ৫৫-১

ক্রিজে রয়েছেন পারভেজ হোসেন ইমন ও মাহমুদুল হাসান জয়। ইমন ৩৩ বলে ২২ রান করেছেন। চার বলে চার রান করেছেন মাহমুদুল।

৮.৫ ওভারে ৫০-১

অবশেষে প্রথম উইকেট পড়ল বাংলাদেশের। আউট হলেন তানজিদ হাসান। ২৫ বলে ১৭ রান করেন তিনি।

১ ওভারে ১৩-০

দুরন্ত ছন্দে রান তাড়া শুরু করল বাংলাদেশ। প্রথম ওভারেই এল ১৩ রান। জেতার জন্য চাই আর ১৬৫ রান।

---------------------------------------------------------------------------

এতদিন ওপেনারদের চওড়া ব্যাটের সৌজন্যে পরীক্ষার মুখে পড়েনি ভারতের মিডল অর্ডার। এদিন চাপের মুখে তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ল ভারত। একমাত্র যশস্বী জয়সওয়াল ছাড়া বাকিরা তেমন কিছুই করতে পারলেন না। ৮৮ রান করেন যশস্বী। কিছুটা চেষ্টা করেছিলেন তিলক ভার্মা ও ধ্রুব জুরেলও। তাঁদের সৌজন্যেই ১৭৭ রান তুলতে পেরেছে ভারত।

তবে ভারতের মিডল অর্ডার ব্যর্থ না হলেও সেজন্য বাাংলাদেশের বোলারদের কৃতিত্ব কোনওভাবে খাটো যাবে না। এদিন প্রথম থেকেই দুর্ধর্ষ বোলিং করেন তাঁরা। ভারতের দুর্বলতা যেন তাঁরা পড়ে ফেলেছিলেন। বোলারদের সঙ্গে যোগ্যসঙ্গত করেন ফিল্ডাররা। দুইয়ের সৌজন্য বিশ্বকাপে ভারতের অশ্বমেধের ঘোড়াকে ১৭৭ রান আটকে দেয় বাংলাদেশ। ন'ওভারে ৪০ রান দিয়ে তিন উইকেট নেন অভিষেক দাস। দুটি করে উইকেট পান শরিফুল ইসলাম ও তানজিম হাসান সাকিব। একটি উইকেট নেন রকিবুল হাসান।

৪৭.২ ওভারে ১৭৭-১০

আউট হলেন সুশান্ত মিশ্র। ১৭৭ রান অলআউট হয়ে গেল ভারত।

৪৫ ওভারে ১৭২-৯

আউট হলেন কার্তিক ত্যাগী।

৪৪.১ ওভারে ১৭০-৮

তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ছে ভারত। এবার আউট হলেন অথর্ব আনকোলেকার।

৪৩.৫ ওভারে ১৭০-৭

আবারও রান-আউট। এবার প্যাভিলিয়নে ফিরলেন রবি বিষ্ণোই।

৪২.৩ ওভারে ১৫৭-৬

রান আউট ভারতীয় ব্যাটসম্যান ধ্রুব জুরেল। ২২ রান করে শামিমের ছোড়া বলে আউট হন ধ্রুব।

৪০ ওভারে ১৫৬-৫

পরপর দু'বলে দু'উইকেট পড়ল ভারতের। প্রথমে আউট হন যশস্বী জয়সওয়াল। ১২১ বলে ৮৮ রান করেন তিনি। এরপর ক্রিজে আসেন সিদ্ধেশ বীর। প্রথম বলেই আউট হন তিনি।

৩১.৩ ওভারে ১১৪-৩

পুরো টুর্নামেন্টে ব্যাটিংয়ের তেমন সুযোগ পাননি। ফাইনালে চাপের মুখে সুযোগ ছিল নিজের জাত চেনানোর। কিন্তু তা পারলেন না প্রিয়ম গর্গ। ন'বলে সাত রান করেন তিনি।

২৯ ওভারে ১০৩-২

সবে মনে হচ্ছিল, যশস্বী জয়সওয়ালের পথে অর্ধশতরান পূরণ করবেন তিলক ভার্মা। কিন্তু দ্রুত রান তুলতে গিয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরলেন তিনি। ৬৫ বলে ৩৮ রান করেন।

২৭.৪ ওভারে ৯৪-১

এক রান নিয়ে অর্ধশতরান পূরণ করলেন যশস্বী জয়সওয়াল। চলতি বিশ্বকাপে এটি যশস্বীর চতুর্থ অর্ধশতরান।

২০ ওভারে ৬৩-১

বাংলাদেশি বোলারদের দাপটে সামলে ভারতীয় ইনিংস টানছেন যশস্বী জয়সওয়াল ও তিলক ভার্মা। ৬২ বলে ৩৭ রান করেছেন যশস্বী। ৪১ বলে ১৮ রান করেছেন তিলক।

১০ ওভারে ২৩-১

দুরন্ত বোলিং পারফরম্যান্স বাংলাদেশের। ভারতকে চাপে রেখেছেন বাংলাদেশের বোলাররা। ক্রিজে রয়েছেন যশস্বী জয়সওয়াল। তিনি ৩৫ বলে ১৪ রান করেছেন। অন্যদিকে রয়েছেন তিলক ভার্মা। আট বলে তাঁর স্কোর দুই।

৬.৪ ওভারে ৯-১

প্রথম উইকেট হারাল ভারত। অভিষেকের দাসের বলে আউট হলেন দিব্যাংশ সাক্সেনা। ক্রমাগত ডট বলের জন্য চাপ বাড়ছিল। হাত খুলতে গিয়ে আউট হলেন দিব্যাংশ। ১৭ বলে দুই রান করেন তিনি।

৩ ওভারে ৪-০

টসে হেরে প্রথম ব্যাটিং করছে ভারত। সাবধানী শুরু করলেন যশস্বী জয়সওয়াল ও দিব্যাংশ সাক্সেনা।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ফাইনালে টসে জিতে প্রথমে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিল বাংলাদেশ। অপরিবর্তিত রয়েছে ভারতীয় দল।

ভারতের প্রথম একাদশ : যশস্বী জয়সওয়াল, দিব্যাংশ সাক্সেনা, তিলক ভার্মা, প্রিয়ম গর্গ (অধিনায়ক), ধ্রুব জুরেল (উইকেটরক্ষক), সিদ্ধেশ বীর, অথর্ব আনকোলেকার, রবি বিষ্ণোই, শাশ্বত রাওয়াত, কার্তিক ত্যাগী, আকাশ সিং।

বাংলাদেশের প্রথম একাদশ : পারভেজ হোসেন ইমন, তানজিদ হাসান, মাহমুদুল হাসান জয়, তোহিদ হৃদয়, শাহদাত হোসেন, অভিষেক দাস, আকবর আলি (অধিনায়ক ও উইকেটরক্ষক), শামিম হোসেন, রকিবুল হাসান, শরিফুল ইসলাম ও তানজিম হাসান সাকিব।

বন্ধ করুন