বাংলা নিউজ > ময়দান > বদলে গেল চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের ঠিকানা, পর্তুগালে দ্বৈরথে নামবে সিটি- চেলসি

বদলে গেল চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের ঠিকানা, পর্তুগালে দ্বৈরথে নামবে সিটি- চেলসি

এস্তাদিও দে ড্রাগো স্টেডিয়াম। ছবি- চ্যাম্পিয়ন্স লিগ।

করোনা পরিস্থিতিতে সদ্য ব্রিটিশ সরকারের লাল তালিকাভুক্ত দেশগুলির মধ্যে সামিল হয় তুরস্ক। স্বভাবতই জল্পনা শুরু হয়, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল আয়োজন নিয়ে।

তিন সপ্তাহে আবারও ইংল্যান্ডের দুই দল মাঠে নামবে ইউরোপ সেরা ক্লাবের শিরোপা অর্জনে। চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালে পেপ গুয়ার্দিওলার ম্যাঞ্চেস্টার সিটির মুখোমুখি হবে থমাস টুশেলের চেলসি। তবে ফাইনাল ঘিরে বড়সড় রদবদলের ঘোষণা করল ইউরোপের ফুটবল নিয়ামক সংস্থা ইউয়েফা।

প্রথমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল আয়োজনের কথা ছিল তুরস্কের ইস্তানবুলে। তবে করোনা পরিস্থিতিতে সদ্য ব্রিটিশ সরকারের লাল তালিকাভুক্ত দেশগুলির মধ্যে সামিল হয় তুরস্ক। তুরস্কে কেউ গেলে তাঁকে বা তাঁদেরকে দেশে ফিরে নিজ খরচায় হোটেলে নিভৃতবাস কাটাতে হবে। সরকারের এই কড়াকড়ি পরই জল্পনা শুরু হয় চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল আয়োজন নিয়ে। দুই ইংলিশ ক্লাব একে অপরের বিপক্ষে খেলবে তাই লন্ডনের ওয়েম্বলির সাথে ফাইনাল আয়োজনের সাল অদল বদল করার প্রস্তাবও দেওয়া হয় ইউয়েফাকে।

অবশেষে ফাইনালের স্থান বদল করার সিদ্ধান্তে শিলমোহর দিল ইউয়েফা। তবে ওয়েম্বলি নয়, পর্তুগালের পোর্তোর ঘরের মাঠ এস্তাদিও দে ড্রাগোতে বসবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনালের আসর। ইউয়েফা তাঁদের এক বিবৃতিতে জানায়, ‘এফএ ও ব্রিটিশ সরকার সবরকম চেষ্টাই করেছিল। তবে সরকারের কঠোর নিভৃতবাসের নিয়মে কোনরকম পরিবর্তন করাই সম্ভব হচ্ছিল না। তাই পর্তুগিজ সরকার ও ফুটবল সংস্থার সাথে কথা বলে ইউয়েফা এই সিদ্ধান্ত নেয়। পর্তুগাল সবুজ তালিকাভুক্ত হওয়ায় সমর্থক বা ফুটবলারদের দেশে ফিরে নিভৃতবাসে কোনরকম সমস্যা হবে না।’

গত মরশুমেও ইস্তানবুল থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ ফাইনাল সরিয়ে পর্তুগালেই তা আয়োজন করা হয়েছিল। তবে সেক্ষেত্রে বেনফিকাক লিসবনে তা অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর ফাইনালে অবশ্য উভয় দলেরই ছয় হাজার করে সমর্থক উপস্থিত থাকতে পারবেন, যা আগের বছর সম্ভব হয়নি।

বন্ধ করুন