বাংলা নিউজ > ময়দান > অ্যাম্বুলেন্সে মাঠ ছেড়েছিলেন, এখন কেমন আছেন KKR তারকা বেঙ্কটেশ আইয়ার
ভালো আছেন বেঙ্কটেশ আইয়ার।

অ্যাম্বুলেন্সে মাঠ ছেড়েছিলেন, এখন কেমন আছেন KKR তারকা বেঙ্কটেশ আইয়ার

  • অল্পের জন্য বড় ধরনের চোটের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন বেঙ্কি। বিপক্ষ বোলার চিন্তন গাজার ছোড়া থ্রো সরাসরি তাঁর ঘাড়ের কাছে এসে লাগে। যন্ত্রণায় কুঁকড়ে ওঠেন বেঙ্কটেশ। মাঠে ডাকতে হয় অ্যাম্বুল্যান্স। চলে আসে স্ট্রেচারও।

শুক্রবার (১৬ সেপ্টেম্বর) দলীপ ট্রফির সেমিফাইনালের দ্বিতীয় দিনে ওয়েস্ট জোনের বিরুদ্ধে ব্যাট করার সময়ে বেঙ্কটেশ আইয়ারের ঘাড়ে বাজে ভাবে আঘাত লেগেছিল। যার জেরে কোয়েম্বাটুরে এসএনআর কলেজ ক্রিকেট গ্রাউন্ডে স্বাভাবিক ভাবেই টেনশনের চোরাস্ত্রোত বয়ে চলে। আন্তঃজোনাল প্রতিযোগিতায় সেন্ট্রাল জোনের তারকা অলরাউন্ডারকে হাসপাতালেও নিয়ে যেতে হয়। তবে জানা গিয়েছে, প্রথাগত স্ক্যানের পরে হাসপাতাল থেকে বেঙ্কটেশকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

তামিলনাড়ু ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের (টিএনসিএ) একজন কর্মকর্তা, যিনি ঘটনাটি ঘটার সময় মাঠে ছিলেন, বেঙ্কটেশ আইয়ারের শারীরির পরিস্থিতি সম্পর্কে ক্রিকবাজকে বলেছেন, ‘ও এখন ভালো আছে। এবং টিম হোটেলে ফিরে এসেছে। আমি ওর সঙ্গে কথা বলেছি এবং ওকে এখন বেশ ভালো দেখাচ্ছে।’

অল্পের জন্য বড় ধরনের চোটের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছেন বেঙ্কি। বিপক্ষ বোলার চিন্তন গাজার ছোড়া থ্রো সরাসরি তাঁর ঘাড়ের কাছে এসে লাগে। যন্ত্রণায় কুঁকড়ে ওঠেন বেঙ্কটেশ। মাঠে ডাকতে হয় অ্যাম্বুল্যান্স। চলে আসে স্ট্রেচারও। এমন পরিস্থিতি তৈরি হয় যে মাঠে দ্রুত অ্যাম্বুলেন্স চলে আসে। রীতিমতো আতঙ্ক তৈরি হয়। তবে অ্যাম্বুলেন্সে ওঠেননি বেঙ্কটেশ। হেঁটেই মাঠ থেকে বেরিয়ে যান।

আরও পড়ুন: হাফ-সেঞ্চুরি হাতছাড়া মায়াঙ্কের, রোহনের পাশাপাশি লড়াকু শতরান ক্যাপ্টেন বিহারীর

তবে প্রাথমিক চিকিৎসার পর জানা যায়, আয়ারের চোট অতটাও গুরুতর নয়। সাময়িক ভাবে মাঠ থেকে উঠে গেলেও পরের দিকে মাঠে নামেন তিনি। ৯৪ রানে সেন্ট্রাল জোনের সাত উইকেট পড়ে যাওয়ার পর ফের মাঠে নামেন কেকেআর তারকা। মাঠে নামার পর কভার দিয়ে দুর্ধর্ষ একটা চার মারেন। পরের বলটা ব্যাটের কাণায় লেগে বাউন্ডারি পেরিয়ে যায়। তবে বেঙ্কটেশের ঝোড়ো ইনিংস দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। ৯ বলে ১৪ রান করে আউট হয়ে যান। যা সেন্ট্রাল জোনের তৃতীয় সর্বোচ্চ রান। সেন্ট্রাল জোন ১২৮ রানের বেশি তুলতে পারেনি।

দ্বিতীয় দিনের শেষে পশ্চিমাঞ্চল এগিয়ে ২৫৯ রানে। প্রথম ইনিংসে পশ্চিমাঞ্চল তোলে ২৫৭ রান। জবাবে জয়দেব উনাদকাট এবং তনুষ কোটিয়ানের তিন উইকেটের দাপটে ১২৮ রানে শেষ মধ্যাঞ্চল। দ্বিতীয় দিনের শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে পশ্চিমাঞ্চল তিন উইকেট হারিয়ে ১৩০ রান তুলে ফেলেছে। তার মধ্যে পৃথ্বী শ একাই ১০৪ রানে অপরাজিত। যশস্বী জয়সওয়াল তিন এবং অজিঙ্কা রাহানে ১২ রান করেছেন।

বন্ধ করুন