হরভজন সিং ও শোয়েব আখতার। ছবি- টুইটার।
হরভজন সিং ও শোয়েব আখতার। ছবি- টুইটার।

হরভজনকে মারার জন্য হোটেলের রুমে খুঁজতে গিয়েছিলেন আখতার, বিস্ফোরক দাবি পাক স্পিডস্টারের

  • ২০১০ এশিয়া কাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের পরের এই ঘটনার কথা একদা উল্লেখ করেন ভাজ্জিও।

শ্রীলঙ্কায় এশিয়া কাপ চলাকালীন একদা হরভজন সিংকে মারার জন্য ভারতের টিম হোটেলে তারকা স্পিনারকে খুঁজতে গিয়েছিলেন শোয়েব আখতার। Helo app-এ ক্রিকেট নিয়ে আলোচনা প্রসঙ্গে এমনই বিস্ফোরক ঘটনার প্রসঙ্গ সামনে আনলেন রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস।

আখতার জানান, মাঠে ভাজ্জি তাঁর সঙ্গে নিতান্ত খারাপ ব্যবহার করেছিলেন, যা তিনি মেনে নিতে পারেননি। তাঁর মনে হয়েছিল, যে ভাজ্জি তাঁর সঙ্গে বেড়াতে যেতেন, একসঙ্গে বসে খাওয়া দাওয়া করতেন, তিনিই কিনা আবার খারাপ ব্যবহার করবেন মাঠে! সেই কারণেই টিম হোটেলে হরভজনের সঙ্গে মারামারি করার উদ্দেশ্য নিয়েই তাঁকে খুঁজতে গিয়েছিলেন শোয়েব।

আখতার বলেন, ‘আমি হোটেল রুমে হরভজনকে খুঁজতে গিয়েছিলাম ওকে মারার জন্য। ও আমাদের সঙ্গে একসঙ্গে বসে খাওয়া-দাওয়া করেছে বহুবার। লাহোরে আমরা একসঙ্গে ঘুরতে বেরিয়েছি। আমাদের সংস্কৃতি কার্যত একই রকমের। ও একজন পঞ্জাবি ভাই। অথচ আমাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করবে? আমি ঠিক করেছিলাম হোটেল রুমে গিয়ে ওর সঙ্গে মারামারি করব। ও জানত শোয়েব আসবে। রুমে গিয়ে ওকে খুঁজে পাইনি। পরের দিন আমার রাগ কমে গিয়েছিল। ও নিজের ব্যবহারের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছিল।’

২০১০ এশিয়া কাপের সময়কার এই ঘটনার কথা হরভজন আগেই উল্লেখ করেছেন। ভাজ্জি জানিয়েছিলেন, ‘শোয়েব একবার আমার হোটেলে এসে আমাকে মারার হুমকি দিয়েছিল। আমি বলেছিলাম এসো, কে কাকে মারে দেখা যাবে। তবে আমি সত্যিই ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। ওর যা পেশিশক্তি তা আমাদের জানা আছে। একদা আমাকে আর যুবরাজকে হোটেল রুমে মজা করে একবার আঘাত করেছিল। তখন থেকেই ওর শক্তি সম্পর্কে আমাদের জানা আছে। ও এতটাই শক্তিশালী যে, ওকে ধরে রাখাও মুশকিল।’

যদিও আখতার ও হরভজন উভয়েই স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, এই ঘটনা নিছক কয়েক মুহূর্তের। তাঁরা বরাবরের ভালো বন্ধু। আসলে এশিয়া কাপে ভারত-পাকিস্তান ম্যাচের সময় হরভজন ও আখতারের মধ্যে বেশ কয়েকবার কথা কাটাকাটি হয়েছিল। তবে ছক্কা মেরে ভারতকে ম্যাচ জেতানোর পর ভাজ্জি রীতিমতো আস্ফালন দেখান আখতারকে উদ্দেশ্য করে। তাতেই চটে যান পাক স্পিডস্টার।

বন্ধ করুন