বাংলা নিউজ > ময়দান > অনাহারে দিন কাটছে প্রাক্তন তারকা ক্যারিবায়ান বোলারের, সাহায্যের আর্জি অশ্বিনের
অনাহারে দিন কাটছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রাক্তন তারকা বোলারের।
অনাহারে দিন কাটছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের প্রাক্তন তারকা বোলারের।

অনাহারে দিন কাটছে প্রাক্তন তারকা ক্যারিবায়ান বোলারের, সাহায্যের আর্জি অশ্বিনের

  • প্যাট্রিক প্যাটারসনের কেরিয়ার গ্রাফটা কিন্তু অসাধারণ। ২৮টি টেস্টে ৯৩ টি উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। আবার ৫৯টি একদিনের ম্যাচে ৯০টি উইকেট রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ৪৯৭টি উইকেট রয়েছে তাঁর।

প্যাট্রিক প্যাটারসেনের কথা এই প্রজন্মের অনেকেই হয়তো জানেন না। কিন্তু একটা সময়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই জোরে বোলারই বিপক্ষের ব্যাটসম্যানদের ত্রাস ছিলেন। আর সেই তারকা বোলারের দিন কাটছে এখন অভুক্ত থেকে। অনাহারে। অতীত এখন তাঁর কাছে পুরোটাই সাদা পাতার মতোই। সোনালী দিনগুলি কী করে যেন স্মৃতি থেকে মুছে গিয়েছে। অতীত ভুলে না খেয়েই বেঁচে থাকার জন্য় ভাঙাচোরা লড়াই চালাচ্ছেন প্যাট্রিক প্যাটারসন।

প্যাটারসনকে দেখাশোনার দায়িত্বে ছিল জামাইকার এক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। কিন্তু তাদের পক্ষেও প্যাটারসনের চিকিৎসা ও খাওয়া দাওয়ার খরচ চালানো সম্ভব হচ্ছে না। এই অজুহাতে তারাও হাত তুলে নেয়। এই বিষয়টি প্রথম নজরে আসে, যখন ভারতের এক ক্রিকেট সাংবাদিক ২০১৭ সালে তাঁর খোঁজ করতে শুরু করেন। তিনিই প্যাটারসনের এই দুর্দশার কথা জানতে পেরে, সেটা সকলের সামনে তুলে ধরেন। গত বছর একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এই সাংবাদিক  প্রাক্তন ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটারের জন্য ২০ হাজার মার্কিন ডলার অর্থ সংগ্রহের উদ্যোগও নিয়েছিলেন। অর্থ সংগ্রহের জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি একটি লিঙ্কও শেয়ার করেছিলেন। যার মাধ্যমে সাহায্য করা যেত প্যাটারসনকে।

সেই লিঙ্কটাই শেয়ার করে প্যাটারসনের সাহায্যের জন্য নতুন করে আবেদন জানিয়েছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। অশ্বিন লিখেছেন, ‘বেঁচে থাকার জন্য প্যাট্রিক প্যাটারসনের সাহায্যের খুব প্রয়োজন। কিন্তু ভারতীয় মুদ্রায় এই মুহূর্তে তাঁকে সাহায্যের কোনও উপায় নেই। যদি কোনও সহৃদয় ব্যক্তির পক্ষে সম্ভব হয়, তা হলে প্লিজ সাহায্য করুন।’

প্যাট্রিকের কেরিয়ার গ্রাফটা কিন্তু অসাধারণ। ২৮টি টেস্টে ৯৩ টি উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। আবার ৫৯টি একদিনের ম্যাচে ৯০টি উইকেট রয়েছে তাঁর ঝুলিতে। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ৪৯৭টি উইকেট রয়েছে তাঁর। সেই বোলারই একটা সময়ে হারিয়ে গিয়েছিলেন।

এমনিতেই জোয়েল গার্নার, মাইকেল হোল্ডিং, ম্যালকম মার্শালদের দাপটে কিছুটা হলেও আড়াল হয়ে গিয়েছিলেন প্যাটারসন। সেই সঙ্গেই কেরিয়ারের মধ্যগগনে থাকাকালীন অনুশাসনের কারণে বাদ পড়েছিলেন দল থেকে। তার পর আর সে ভাবে ফিরে আসতে পারেননি। ক্রিকেট থেকে সরে যাওয়ার পর প্রায় ২৪ বছর তাঁর কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। তিনি কোথায় ছিলেন, কী ভাবে ছিলেন বা তাঁর সঙ্গে কী ঘটেছিল সেটা আজও রহস্যই রয়ে গিয়েছে।

বন্ধ করুন