বাংলা নিউজ > ময়দান > পিঠের ব্যথা থেকে মুক্ত বিরাট, কৃতিত্ব এক বাঙালির!
জিমে সময় কাটাচ্ছেন বিরাট কোহলি (ছবি:টুইটার)
জিমে সময় কাটাচ্ছেন বিরাট কোহলি (ছবি:টুইটার)

পিঠের ব্যথা থেকে মুক্ত বিরাট, কৃতিত্ব এক বাঙালির!

  • ২০১৪ সালে পিঠে ব্যথার সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছিলেন বিরাট। কিভাবে তৎকালীন ভারতীয় দলের স্ট্রেন্থ এবং কন্ডিশানিং কোচ বাসু শঙ্করের তত্ত্বাবধানে কিভাবে তিনি নিজেকে সুস্থ করে তুলেছিলেন সেকথা জানাতে ভুললেন না বিরাট।

শুভব্রত মুখার্জি: খেলোয়াড়দের ক্যারিয়ারে চোট, আঘাত নতুন কিছু নয়। পেশাদার জগতে খেলতে গিয়ে চোট আঘাতকে সঙ্গী করেই এগিয়ে যেতে হয়। ঠিক তেমন এক কাহিনী এবার জনসমক্ষে নিয়ে এলেন ভারতের ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ২০১৪ সালে পিঠে ব্যথার সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছিলেন বিরাট। কিভাবে তৎকালীন ভারতীয় দলের স্ট্রেন্থ এবং কন্ডিশানিং কোচ বাসু শঙ্করের তত্ত্বাবধানে কিভাবে তিনি নিজেকে সুস্থ করে তুলেছিলেন সেকথা জানাতে ভুললেন না বিরাট।

শুভব্রত মুখার্জি: খেলোয়াড়দের ক্যারিয়ারে চোট, আঘাত নতুন কিছু নয়। পেশাদার জগতে খেলতে গিয়ে চোট আঘাতকে সঙ্গী করেই এগিয়ে যেতে হয়। ঠিক তেমন এক কাহিনী এবার জনসমক্ষে নিয়ে এলেন ভারতের ক্রিকেট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ২০১৪ সালে পিঠে ব্যথার সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছিলেন বিরাট। কিভাবে তৎকালীন ভারতীয় দলের স্ট্রেন্থ এবং কন্ডিশানিং কোচ বাসু শঙ্করের তত্ত্বাবধানে কিভাবে তিনি নিজেকে সুস্থ করে তুলেছিলেন সেকথা জানাতে ভুললেন না বিরাট।|#+|

সম্প্রতি শঙ্কর তার জীবনের প্রথম বইটি লিখেছেন। '১০০,২০০ প্র্যাক্টিক্যাল অ্যাপ্লিকেশান্স ইন স্ট্রেন্থ অ্যান্ড কন্ডিশানিং' - বইটির মুখবন্ধ লিখেছেন বিরাট কোহলি। সেখানেই একথা জানিয়েছেন বিরাট। তিনি লেখেন ' ২০১৪ সালের শেষ ভাগে আমি আমার পিঠে ধারাবাহিক একটি ব্যথা অনুভব করি। ব্যথাটা কিছুতেই কমছিল না। প্রতিদিন সকালে আমাকে ৪৫ মিনিট ধরে ব্যয়াম করতে হত আমার পিঠের ব্যথা কমাতে। তবে পিঠে ব্যথা,কাঠিন্য দিনের যে কোন সময়ে ফিরে আসতে পারত।'

তিনি আর ও বলেন 'সেই সময় আমি এবং বাসু স্যার এই বিষয়ে আলোচনা করি। কিভাবে আমার শরীরের শক্তি আরও বাড়ানো যায় সেই বিষয়ে আলোচনা করি।' উল্লেখ্য ২০১৫-১৯ এই সময়ে ভারতীয় দলের স্ট্রেন্থ এবং কন্ডিশানিং কোচ ছিলেন শঙ্কর। বিরাট বলেন 'প্রথম প্রথম আমি ওজন তোলাতে বিশ্বাসী ছিলাম না। বাসু স্যার আমাকে সেই বিশ্বাস যোগান। ২০১৫ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের সময় থেকেই আমি ওজন তোলা শুরু করি। আমি ধীরে ধীরে এই ডায়নামিক্সটা বুঝতে শুরু করি।'

বন্ধ করুন