বাংলা নিউজ > ময়দান > আন্তর্জাতিক ম্যাচে উইকেটকিপিংও করেছেন কোহলি, তাও প্যাড না পরেই, বিশ্বাস না হয় দেখুন ভিডিও
উইকেটকিপারের ভূমিকায় কোহলি। ছবি- টুইটার।
উইকেটকিপারের ভূমিকায় কোহলি। ছবি- টুইটার।

আন্তর্জাতিক ম্যাচে উইকেটকিপিংও করেছেন কোহলি, তাও প্যাড না পরেই, বিশ্বাস না হয় দেখুন ভিডিও

  • বিরাটের কিপিং করার কারণটাও ছিল মজাদার।

ভারতীয় ক্রিকেটমহলে একটা মিথ প্রচলিত যে, স্যার রবীন্দ্র জাদেজা নাকি সব পারেন। তিনি ব্যাট হাতে অসম্ভবকে সম্ভব করতে পারেন। অনবদ্য বোলিংয়ে দলকে ম্যাচ জেতাতে পারেন। আবার অবিশ্বাস্য ক্যাচ ধরা এবং দুরন্ত সব রান-আউট করাতেও তাঁর জুড়ি নেই।

তবে এই নিরিখে বিরাট কোহলিও যে খুব একটা পিছিয়ে রয়েছেন, এমনটা ভাবা উচিত নয়। কেননা, দক্ষতার সঙ্গে না হোক, আম্পায়ারিং বাদে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কার্যত এমন কিছু নেই, যে ভূমিকায় তাঁকে দেখা যায়নি।

ব্যাটসম্যান কোহলির মাহাত্ম্য কারও অজানা নয়। ক্যাপ্টেন কোহলির আগ্রাসনের সঙ্গেও সবাই পরিচিত। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বল করতেও দেখা গিয়েছে কোহলিকে। দ্বাদশ ব্যক্তি হিসেবে জল নিয়ে মাঠেও ঢুকেছেন। এমনকি ওয়ান ডে ম্যাচে উইকেটকিপিংও করেছেন তিনি। তাও প্যাড না পরেই।

উইকেটকিপার কোহলিকে নিতান্ত অপরিচিত মনে হতে পারে ক্রিকেটপ্রেমীদের। তবে কারও কারও চোখে ভেসে উঠতেই পারে গ্লাভস হাতে কোহলির উইকেটকিপিং করার ছবি।

২০১৫ সালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মীরপুরে একটি ওয়ান ডে ম্যাচে ওভার খানেক উইকেটকিপিং করেন বিরাট। আসলে ধোনি টয়লেট ব্রেক নিতে বাধ্য হয়েছিলেন ম্যাচের মাঝেই। ইনিংসের ৪৪তম ওভারে কোহলির হাতে দস্তানা জোড়া তুলে দিয়ে মাঠ ছেড়েছিলেন ধোনি। এক ওভার পরেই তিনি ফিরে এসে পুনরায় উইকেটকিপিংয়ের দায়িত্ব সামলান। মাঝে উমেশ যাদবের যাদবের ওভারে কিপিং করেন কোহলি। সেই সঙ্গে তাঁকে প্রয়োজন মতো ফিল্ডিং সাজাতেও দেখা যায়।

একদা বিসিসিআইয়ের ‘ওপেন নেটস উইথ মায়াঙ্ক’ চ্যাট শো-এ আগরওয়াল বিরাট কোহলির কাছে জানতে চেয়েছিলেন, এমনটা কীভাবে ঘটেছিল।

উত্তরে বিরাট বলেছিলেন, ‘কখনও সুযোগ পেলে মাহি ভাইকে জিজ্ঞাসা কোরো, এমনটা কীভাবে হয়েছিল। মাহি ভাই হঠাৎই আমাকে বলে, দু-তিন ওভার উইকেটকিপিং করে দে। আমি উইকেটকিপিং করি এবং প্রয়োজন মতো ফিল্ডিংয়েও রদবদল করি। তখন বুঝতে পারি, মাই ভাইকে প্রত্যেকটা বলে খেয়াল রাখতে হয়। সেইসঙ্গে ফিল্ডিংটাও সাজাতে হয়। কাজটা মোটেও সহজ নয়।’

কোহলি এও জানান যে, তখন সবার আগে তার কী মনে হয়েছিল। তাঁর কথায়, ‘সমস্যা ছিল একটাই। বল করছিল উমেশ যাদব। ও খুব জোরে বল করছিল। মনে হচ্ছিল বুঝি এবার বল এসে নাকে লাগবে। তাই ভাবছিলাম হেলমেট পরব। পরে মনে হয় সেটা খুব অপমানজনক দেখাবে।’

বন্ধ করুন