বাংলা নিউজ > ময়দান > ব্যাটিং কোচ কী করছে? ধারাবাহিক ব্যর্থতার জন্য এবার বিক্রম রাঠোরকে নিশানা করলেন আকাশ চোপড়া
বিক্রম রাঠোরকে নিশানা করলেন আকাশ চোপড়া 

ব্যাটিং কোচ কী করছে? ধারাবাহিক ব্যর্থতার জন্য এবার বিক্রম রাঠোরকে নিশানা করলেন আকাশ চোপড়া

  • চোপড়া মন্তব্য করেছেন যে বোলিং বিভাগের উন্নতির জন্য লোকেরা যেমন কৃতিত্ব নিয়েছেন, তেমনই বিরাট কোহলি, অজিঙ্কা রাহানে এবং চেতেশ্বর পূজারার খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য কাউকে দায় নিতেই হবে।

ভারতীয় দলে ব্যাটারদের পারফরম্যান্স বেশ কিছুদিন ধরেই খারাপ চলছে। এই বিষয়ে বর্তমান ব্যাটিং কোচ বিক্রম রাঠোরকে নিশানা করেছেন ভারতের প্রাক্তন খেলোয়াড় আকাশ চোপড়া। তার মতে, দলের খারাপ ব্যাটিং পারফরম্যান্সের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যাটিং কোচ বিক্রম রাঠোরের অবদান পুনর্বিবেচনা করা দরকার। চোপড়া মন্তব্য করেছেন যে বোলিং বিভাগের উন্নতির জন্য লোকেরা যেমন কৃতিত্ব নিয়েছেন, তেমনই বিরাট কোহলি, অজিঙ্কা রাহানে এবং চেতেশ্বর পূজারার খারাপ পারফরম্যান্সের জন্য কাউকে দায় নিতেই হবে।

আকাশ চোপড়া বলেন, ‘ভারতকে দেখতে হবে রাঠোরের কাজে কোনও ত্রুটি আছে কি না। কীভাবে তিনি সেগুলোকে কাটিয়ে উঠবেন।’ চোপড়া তার ইউটিউব চ্যানেলে বলেন, ‘ভারতের বোলিংয়ে উন্নতির কৃতিত্ব সবাই নিয়েছেন। কেউ কৃতিত্ব দিয়েছেন বিরাট কোহলিকে, কেউ ভরত অরুণকে, কেউ রবি শাস্ত্রীকে। সবাই বলেছে, 'ভারতীয় বোলিংয়ে অনেক উন্নতি হয়েছে।' কিন্তু ব্যাটিংয়ে পতনের জন্য দায়ী কে? আপনি যদি ক্রেডিট নিচ্ছেন তবে আপনাকে দায়িত্ব নিতে হবে। গত ২ থেকে ২.৫ বছরে চেতেশ্বর পূজারা, অজিঙ্কা রাহানে এবং বিরাট কোহলির পরিসংখ্যান কমেছে, তাহলে ব্যাটিং কোচ কোথায়?’

চোপড়া আরও বলেছেন, ‘বিক্রম রাঠোর, যিনি বেশ কিছুদিন ধরে দলের সাথে আছেন, তিনি তার কাজটি ঠিকঠাক করছেন কিনা এবং যদি না করেন তবে তার ত্রুটিগুলি কী এবং কীভাবে তিনি সেগুলি সংশোধন করছেন তা দেখতে দেখতে হবে।’ বিক্রম রাঠোর ২০১৯ সালে ব্যাটিং কোচের দায়িত্ব নেন। তার সতীর্থ রবি শাস্ত্রী এবং ভরত অরুণের মেয়াদ গত বছর শেষ হয়েছিল, তার মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানো হয়েছে। রাহুল দ্রাবিড় প্রসঙ্গে আকাশ চোপড়া বলেন, ‘তিনি একজন নতুন কোচ তার পক্ষে এটা বুঝে ওঠা কঠিন। তিনি যদি সেখানে আরও বেশি সময় থাকতেন তবে নতুন অধিনায়কের জন্য তার একটি নীলনকশা থাকত। এখন একজন নতুন অধিনায়ক, একজন নতুন কোচ এবং তাদের নতুন পথ রয়েছে। কোচকে হঠাৎ ফুটবল ম্যানেজার মনে হয় বেশি দায়িত্বের কারণে।’

বন্ধ করুন