বাংলা নিউজ > ময়দান > জেতার চেষ্টা না করায় কড়া সমালোচনার মুখে পড়ল জো রুটের ইংল্যান্ড
সিরিজের প্রথম টেস্ট ড্রয়ের পরে (ছবি: গুগল)
সিরিজের প্রথম টেস্ট ড্রয়ের পরে (ছবি: গুগল)

জেতার চেষ্টা না করায় কড়া সমালোচনার মুখে পড়ল জো রুটের ইংল্যান্ড

  • নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টে জো রুট অ্যান্ড কোম্পানির ব্যাটিংকে তিরস্কার করলেন ইংল্যান্ডের প্রাক্তন অধিনায়ক নাসের হুসেন।

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম টেস্টে জো রুট অ্যান্ড কোম্পানির ব্যাটিংকে তিরস্কার করলেন ইংল্যান্ডের প্রাক্তন অধিনায়ক নাসের হুসেন। তিনি জানিয়েছেন, কিউইদের দেওয়া এমন একটা লক্ষ্যে পৌঁছানোর আগেই যেভাবে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা নিজেদের দোকান বন্ধ করে নিয়েছেন তাতে তিনি একরকম অবাক হয়েছেন। যা তিনি মানতে পারছেন না। হুসেন বলেছেন যে বিষয়টা তাঁর কাছে 'অদ্ভুত'। 

প্রথম ইনিংসের নিরিখে ১০৩ রানে এগিয়ে থাকা নিউজিল্যান্ড দ্বিতীয় ইনিংস ডিক্লেয়ার করে ৬ উইকেটে ১৬৯ রান তুলে। ইংল্যান্ডের সামনে জেতার জন্য লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়ায় ২৭৩ রান। লর্ডসের মাঠে রুটদের নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে সিরিজের প্রথম জিততে হলে ৭০ ওভারে ২৭৩ রান করতে হত। অর্থাৎ ওভারে ৩.৯ গড়ে রান তুলতে হত রুটদের। কিন্তু এমন অবস্থায় ৭০ ওভারে ৩ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৭০ রান তোলে ইংল্যান্ড। ফলে ম্যাচ ড্র হয়ে যায়। লর্ডস টেস্ট শেষমেশ এই রকম নিস্ফলা ড্র দেখে রেগে যান নাসির হুসেন। তিনি জানান একটা সুযোগ নিতে পারত জো রুট অ্যান্ড কোম্পানি। 

আসলে তৃতীয় দিনের খেলা বৃষ্টিতে ভেস্তে যাওয়ায় ম্যাচের চারটি ইনিংসে শেষ হওয়ার মতো পর্যাপ্ত সময় ছিল না। নিউজিল্যান্ড শেষ দিনে সাহসী হয়ে ইংল্যান্ডের সামনে ৭০ ওভারে ২৭৩ রানের লক্ষ্যমাত্রা ঝুলিয়ে দেয় বটে, তবে শেষ ইনিংসে ইংল্যান্ডকে অল-আউট করা সম্ভব হয়নি কিউয়িদের পক্ষে।

ইংল্যান্ড শেষ ইনিংসে ৫৬ রানের মধ্যে ররি বার্নস ও জ্যাক ক্রাউলির উইকেট খুইয়ে বসায় আগ্রাসী হওয়ার সাহস দেখায়নি। ররি বার্নসের ৮১ বলে ২৫, ডমিনিক সিবলির ২০৭ বলে অপরাজিত ৬০, ক্রাউলির ২৫ বলে ২ রানের ইনিংসগুলির দিকে তাকালেই বোঝা যায় যে, ইংল্যান্ড ড্র'য়ের জন্যই খেলছিল, জয়ের জন্য নয়। নাহলে টি-২০'র যুগে ওভার প্রতি ৩.৯ রান তোলে অসম্ভব নয়।শেষ ইনিংসে জো রুট ৪০ রান করে আউট হন। 

ম্যাচের পরে নাসের হুসেন জানিয়েছেন, ‘এটা কিছুটা অদ্ভুত লেগেছে, যে দুপুরের পরে ইংল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা জেতার জন্য কোনও চেষ্টাই করলনা। কেন উইলিয়ামসন দারুন জায়গায় ইনিংসের ডিক্লিয়ার করেছিল যা খুব সাহসী ছিল, নইলে চাইলেই তারা বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালের আগে ব্যাটিং চালিয়ে যেতে পারত এবং নিজের অনুশীলনটা সেরে নিতে পারত, সে তার দলকে চাগাড় দিয়েছিল। তিনি তার দলকে ধাক্কা দিতে চেয়েছিলেন। তাই এটা লজ্জার বিষয় যে ইংল্যান্ড সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করল না। আমার মনে হয় তাদের শেষ চার পাঁচটা উইকেট পড়ে যাওয়া পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়া উচিত ছিল, এবং তারপর যখন তারা দেখত তারা ম্যাচ হারতে পারে তখন তাদের দোকান বন্ধ করে দেওয়া উচিত ছিল।’

বন্ধ করুন