বাড়ি > ময়দান > কেন বার্সেলোনা ছাড়তে চেয়েছিলেন মেসি, কেনই বা থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন, নিজেই জানালেন LM-10
লিওনেল মেসি। ছবি- টুইটার।
লিওনেল মেসি। ছবি- টুইটার।

কেন বার্সেলোনা ছাড়তে চেয়েছিলেন মেসি, কেনই বা থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন, নিজেই জানালেন LM-10

  • আদালতে যাওয়ার রাস্তা খোলা থাকলেও মেসি জানিয়ে দেন, কেন তিনি সেপথে হাঁটতে চান না।

গত কয়েক সপ্তাহ ধরে চলা যাবতীয় জল্পনায় শেষমেশ জল ঢেলে দিলেন লিওনেল মেসি। যে জল্পনাটার জন্ম দিয়েছিলেন তিনি নিজেই। ক্লাব ছাড়তে চান বলে ঘোষণা করার পর থেকেই ফুটবল বিশ্বের প্রধান আলোচ্য বিষয় ছিল প্রায় দু'দশক বার্সেলোনায় থাকার পর কোন দলের হয়ে মাঠে নামতে পারেন মেসি। শেষমেশ আর্জেন্তাইন তারকা নিজেই জানিয়ে দেন, আরও একবছর বার্সেলোনাতেই থাকছেন তিনি।

কেন ক্লাব ছাড়তে চেয়েছিলেন মেসি:- লিওনেল মেসির ক্লাব ছাড়তে চাওয়ার সম্ভাবনা একদিনে তৈরি হয়নি। বেশ কয়েক মরশুম ধরেই দলবদলের সময় এলেই মেসিকে ঘিরে আগ্রহ তৈরি হয় আন্তর্জাতিক ফুটবলমহলে। বার্সেলোনায় প্রায় ২০ বছর কাটানোর পর গুরুত্ব যে কমছে, এটা বুঝতে পারছিলেন তিনি। 

এবার মরশুমের মাঝপথেই ক্লাব কর্তাদের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েন মেসি। আর্জেন্তাইন তারকার দায়বদ্ধতা নিয়েও প্রশ্ন তোলা হয়। যে কারণে ক্ষুব্ধ ছিলেন এলএম টেন। তাঁকে ক্লাব প্রেসিডেন্ট জানিয়েছিলেন, মরশুমের শেষে ক্লাবে থাকা-না থাকার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। রিয়ালের কাছে লা লিগা খেতাব হাতছাড়া হওয়া এবং বায়ার্ন মিউনিখের কাছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ৮ গোল হজম করার পর শেষমেশ ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন মেসি।

বার্সেলোনা ছাড়ার উদ্যোগ:- চ্যাম্পিয়ন্স লিগে হারের পরেই বার্সেলোনা কোচ বদল করে। নতুন কোচ রোনাল্ড কোম্যান জানিয়ে দেন, তিনি নতুন মরশুমে বেশ কয়েকজন তারকার কথা ভাবছেন না। সেই তালিকায় সুয়ারেজ, ভিদাল, রাকিটিচদের নাম থাকলেও মেসিকে ছেড়ে দেওয়ার কথা বলেন নি নতুন বার্সা কোচ। যদিও মেসির সঙ্গে বৈঠকে কোম্যান স্পষ্ট জানিয়ে দেন যে, দলে বাড়তি গুরুত্বের দিন শেষ লিওর। বার্সায় এবার বাকিদের মতোই বিবেচিত হবেন মেসি।

এর পরেই মেসি ফ্যাক্স করে বার্সেলোনাকে জানিয়ে দেন, তিনি থাকতে চান না। বার্সেলোনার তরফে যদিও মেসিকে ছেড়ে দেওয়ার কোনও তাগিদ দেখা যায়নি। মেসি ফ্রি ট্রান্সফারের জন্য বিস্তর চেষ্টা করেন। ক্লাব যদিও জানিয়ে দেয়, ৭০০ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফার ফি দিয়ে মেসি সরে যেতে পারেন।

ক্লাব ছাড়তে মরিয়া মেসি আসরে নামায় নিজের পিতা তথা এজেন্ট জর্জকে। ক্লাব কর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে তিনি পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে ব্যর্থ হন। ফলে বাধ্য হয়েই নিজের সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হঠতে হয় মেসিকে।

কেন বার্সেলোনায় থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেন মেসি:- আসলে মেসি বাধ্য হলেন বার্সেলোনাতেই থেকে যেতে। মেসির সঙ্গে ক্লাবের চুক্তির শর্ত ছিল, মরশুমের শেষে তিনি চাইলে সরে যেতে পারেন। তবে মরশুম শেষ হওয়ার কথা ছিল জুনে। করোনা মহামারির জন্য লা লিগা মরশুম আরও দীর্ঘায়িত হয়। মরশুম শেষের প্রস্তাবিত দিন ১০ জুনের আগে মেসিকে জানাতে হতো ক্লাব ছাড়ার কথা, যা তিনি করেননি।

অগত্যা তাঁর সঙ্গে নতুন মরশুমের চুক্তি শুরু হয়ে গিয়েছে বলে দাবি জানায় বার্সা। মেসির সঙ্গে ক্লাবের চুক্তি রয়েছে ২০২১ পর্যন্ত। তার পরেই একমাত্র ক্লাব ছাড়া সম্ভব লিওর পক্ষে। মাঝে বার্সেলোনা ছাড়তে হলে ক্লাবকে ৭০০ মিলিয়ন ইউরো ট্রান্সফার ফি দিতেই হবে, যা কার্যত অসম্ভব বলে মেনে নিয়েছেন মেসি নিজেও। 

বার্সার সঙ্গে এই টানাপোড়েন অনায়াসে আদালতে টেনি নিয়ে যেতে পারতেন মেসি। তবে ছেলেবেলা থেকে যে ক্লাব তাঁকে সবকিছু এনে দিয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে কোর্টে যেতে মন সায় দেয়নি লিওর।

ক্লাবে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে মেসি যা বললেন:- বার্সেলোনায় থেকে যাওয়া প্রসঙ্গে গোল ডট কমকে মেসি বলেন, 'আমি ভেবেছিলাম এবং নিশ্চিত ছিলাম যে, চাইলে আমি ক্লাব ছাড়তে পারি। প্রসিডেন্ট সবসময় বলতেন, মরশুমের শেষে ক্লাবে থাকা-না থাকার বিষয়ে আমি সিদ্ধান্ত নিতে পারি। এখন ওরা বলছে ১০ জুনের আগে আমি ক্লাব ছাড়তে চাওয়ার কথা জানাইনি। লা লিগা শেষ হওয়ার কথা ছিল জুনে। করোনা মহামারির জন্য মরশুম দীর্ঘায়িত হয়। আমার এবছর বার্সেলোনায় থেকে যাওয়ার একটাই কারণ। আমি থাকছি কারণ, প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন এবছর আমার ক্লাব ছাড়ার একটাই উপায়। ৭০০ মিলিয়ন ইউরোর শর্ত পূরণ করতে হবে, যেটা সম্ভব নয়।'

মেসি আরও বলেন, 'আদালতে যাওয়ার একটা রাস্তা খোলা ছিল। তবে আমি বার্সেলোনার বিরুদ্ধে কখনই আদালতে যাব না। কারণ, এই ক্লাবটাকে আমি ভালোবাসি। এখানে আসার পর থেকে এই ক্লাবই আমাকে সবকিছু দিয়েছে। এটা আমার প্রাণের ক্লাব। এই ক্লাব আমাকে জীবন দিয়েছে। বার্সা আমাকে সবকিছু দিয়েছে। আমি ক্লাবকে সবকিছু দিয়েছি। আমি জানি, বার্সাকে আদালতে টেনে নিয়ে যাওয়ার সায় দেবে না আমার মন।'

বন্ধ করুন