বাংলা নিউজ > ময়দান > কেন KKR থেকে নাম তুলে নেওয়া সহজ ছিল, যুক্তি দিলেন কামিন্স

কেন KKR থেকে নাম তুলে নেওয়া সহজ ছিল, যুক্তি দিলেন কামিন্স

প্যাট কামিন্স (AFP)

২০২২ সালে কেকেআরের হয়ে মাত্র পাঁচটি ম্যাচ খেলেছিলেন তিনি। সাতটি উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি করেছিলেন ৫৩ রান। কামিন্স গতকাল অর্থাৎ মঙ্গলবারেই জানিয়ে দিয়েছিলেন আসন্ন মরশুমে তিনি আইপিএল থেকে তাঁর নাম প্রত্যাহার করছেন।

শুভব্রত মুখার্জি: অস্ট্রেলিয়ার টেস্ট দলের অধিনায়ক আগেই হয়েছিলেন প্যাট কামিন্স। তারপরে ওয়ানডে অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ অবসরের পরে তাঁকেই ওয়ানডে দলের নয়া অধিনায়ক হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে। টেস্ট এবং ওয়ানডে দলের অধিনায়ক হওয়ার পর আগামী ১২ মাস ঠাসা আন্তর্জাতিক ক্রীড়াসূচি রয়েছে প্যাট কামিন্সের অস্ট্রেলিয়ার। আর সেই কারণেই যে আগামী বছর আইপিএল থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়ার কাজটা সহজ হয়েছে তা জানিয়ে দিলেন প্যাট কামিন্স।

প্রসঙ্গত আইপিএলের শেষ তিন মরশুমে কলকাতা নাইট রাইডার্স দলের হয়ে খেলেছেন প্যাট কামিন্স। ২০২২ সালে পশ্চাৎদেশের চোটের কারণে অবশ্য পুরো টুর্নামেন্ট তাঁর পক্ষে খেদা সম্ভব হয়নি। ২০২২ সালে কেকেআরের হয়ে মাত্র পাঁচটি ম্যাচ খেলেছিলেন তিনি। সাতটি উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি করেছিলেন ৫৩ রান। কামিন্স গতকাল অর্থাৎ মঙ্গলবারেই জানিয়ে দিয়েছিলেন আসন্ন মরশুমে তিনি আইপিএল থেকে তাঁর নাম প্রত্যাহার করছেন। কারণ আগামী ১২ মাস টেস্ট এবং ওয়ানডেতে ঠাসা ক্রীড়াসূচি রয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার। পাশাপাশি তিনি কেকেআর কতৃপক্ষের প্রতিও কৃতজ্ঞতা, ধন্যবাদ জানিয়েছিলেন। তাঁর বক্তব্য ছিল তাঁর পরিস্থিতি বোঝার জন্য তিনি কেকেআর কর্তৃপক্ষের প্রতি কৃতজ্ঞ। পাশাপাশি টুইট করে শীঘ্রই কেকেআরে ফিরে আসার কথাও জানিয়েছিলেন তিনি।

সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে প্যাট কামিন্স জানিয়েছেন 'আইপিএলে খেলতে আমি খুব ভালোবাসি। তবে আগামী বছরের আন্তর্জাতিক ক্রীড়াসূচি দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়াটা (নাম প্রত্যাহার) সহজ ছিল। শারীরিকভাবে সতেজ থাকাটা অবশ্যই লক্ষ্য। পাশাপাশি যেহেতু আমি অধিনায়ক সেই কারণে মানসিকভাবে সতেজ থাকাটা ও আমার ক্ষেত্রে খুব জরুরি। মানসিকভাবে সতেজ থাকতে পারলে আমার সিদ্ধান্ত নিতে ও অনেক সুবিধা হবে।'

তিনি আরও যোগ করেন 'আইপিএল শেষ হওয়ার পরেই ছটি টেস্ট ম‌্যাচ রয়েছে। আশা করব আমরা বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে পৌঁছব। ২০১৯ সালের অ্যাসেজ সিরিজের পরে আমি খুবই হতাশাগ্রস্ত ছিলাম। সেই কারণে আমি চেয়েছিলাম যতটা সম্ভব সতেজ অবস্থায় আমি আন্তর্জাতিক ম্যাচগুলোতে যেতে পারি। শেষ ১২-২৪ মাসে টি-২০ ক্রিকেটের উপর জোর দেওয়া হচ্ছে। আমি মনে করি এবার ফোকাস হবে ওয়ানডে ক্রিকেট। কারণ ১২ মাস পরেই রয়েছে ওয়ানডে বিশ্বকাপ। বর্তমানের শিরোপা ধারীদের এবং বিশ্ব ক্রিকেটের সেরাদের চ্যালেঞ্জ জানাতে গেলে আমাদেরকে সেরা ফর্মে থাকতে হবে। ফিঞ্চ ওর অধিনায়কত্বের মধ্যে দিয়ে দলে যে পরিবর্তন এনেছিল তার থেকে খুব বেশি কিছু পরিবর্তন আপনারা আশা করি দলে দেখবেন না। আমি আশা করব আমি এমন একটা পরিবেশ তৈরি করতে পারব, যেখানে ক্রিকেটাররা নির্দ্বিধায় নিজেদেরকে মেলে ধরতে পারবে এবং পারফরম্যান্স করতে পারবে।'

বন্ধ করুন