বাংলা নিউজ > ময়দান > দেশে মহিলা ক্রিকেট ও IPL সম্প্রচার বন্ধ! এরপরেও ICC -র সভায় ভারতের সমর্থন চায় আফগানিস্তান
ICC -র সভার দিকে তাকিয়ে ক্রিকেট বিশ্ব
ICC -র সভার দিকে তাকিয়ে ক্রিকেট বিশ্ব

দেশে মহিলা ক্রিকেট ও IPL সম্প্রচার বন্ধ! এরপরেও ICC -র সভায় ভারতের সমর্থন চায় আফগানিস্তান

  • কোন পথে যাবে আফগানিস্তানের ক্রিকেট। কী লেখা আছে আফগানিস্তানের ক্রিকেটের ভাগ্যে। আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের বৈঠক। সেখানেই ঠিক হবে আফগানদের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ।

কোন পথে যাবে আফগানিস্তানের ক্রিকেট। কী লেখা আছে আফগানিস্তানের ক্রিকেটের ভাগ্যে। আগামী মাসে অনুষ্ঠিত হতে চলেছে ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের বৈঠক। সেখানেই ঠিক হবে আফগানদের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ। আইসিসির সেই সভায় আফগানিস্তানের ক্রিকেট নিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তখনই জানা যাবে আফগান ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ কোন পথে যেতে চলেছে। যদি সেই সভায় সকল পূর্ণ সদস্য দেশের সমর্থন পায় আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ড, তাহলে আফগানিস্তানের ক্রিকেটে কোনও সমস্যা তৈরি হবে না। আর যদি সমর্থন না পায় সেক্ষেত্রে আফগানিস্তানের ক্রিকেটের ভবিষ্যৎ অন্ধকারে যেতে পারে। সেই কারণেই এসিবি অর্থাৎ আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যান আজিজুল্লাহ ফাজলি সকল ক্রিকেট বোর্ডের কাছে সমর্থন চেয়েছেন।

গত এক দশকে ক্রিকেটে বেশ উন্নতি করেছে আফগানিস্তান। কিন্তু সম্প্রতি তালিবানরা ক্ষমতা দখলের পর পাল্টে গেছে দেশটির ক্রিকেটের চিত্র। ইতিমধ্যেই দেশটিতে নারী ক্রিকেট নিষিদ্ধসহ ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের মত জনপ্রিয় আসরের সম্প্রচার নিষিদ্ধ করা হয়েছে। দেশে নারী ক্রিকেট নিষিদ্ধ করা হলেও পুরুষ ক্রিকেটারদের সমর্থন দিচ্ছে তালিবান সরকার। এসিবি'র চেয়ারম্যান আজিজুল্লাহ বলেন, ‘দেশের ক্রিকেট উন্নয়নে কাজ করতে এসিবি প্রতিজ্ঞাবদ্ধ এবং আশা করছি আইসিসির পূর্ণ সদস্যের দেশগুলো আমাদের সহযোগিতা করবে।’

আফগানিস্তানে মহিলাদের ক্রিকেট নিষিদ্ধ করায় কিছুদিন আগে দেশটির বিরুদ্ধে টেস্ট খেলতে রাজি হয়নি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। এসিবি প্রধান বলছিলেন, ‘টেস্ট ম্যাচ নিয়ে সিএ'র সঙ্গে কথা চলছে। খুব শীঘ্রই এ ব্যাপারে ও দুই ক্রিকেট বোর্ডের পারস্পরিক সম্পর্ক নিয়ে সিএ কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসব।’ এরপরে বাকি বহু দেশ আফগানিস্তানকে সমর্থন করা বন্ধ করে দেয়। এরপরে চাপে পড়ে যায় আফগানিস্তান। এর মাঝেই দেশে আইপিএল সম্প্রচার নিষিদ্ধ করায় তালিবানদের নীতি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এখন দেখার পরের মাসে আইসিসি কী সিদ্ধান্ত নেয়।  

বন্ধ করুন