বাংলা নিউজ > ময়দান > ভবিষ্যতে কী হবে, ভেবে শিউরে উঠছেন আফগানিস্তানের মহিলা ক্রীড়াবিদ
অনুশীলন করছেন মিনা আসাদি (ছবি:রয়টার্স) (REUTERS)
অনুশীলন করছেন মিনা আসাদি (ছবি:রয়টার্স) (REUTERS)

ভবিষ্যতে কী হবে, ভেবে শিউরে উঠছেন আফগানিস্তানের মহিলা ক্রীড়াবিদ

  • আফগানিস্তানে তালিবানদের রাজত্ব শুরু হওয়ার পর থেকেই ভয়ে তটস্থ রয়েছেন মিনা। যদিও তিনি আফগানিস্তানে থাকেন না, তবু দেশের মহিলা ক্রীড়াবিদদের নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন মিনা আসাদি।

এ বার দেশের মহিলা ক্রীড়াবিদদের সব স্বপ্ন শেষ হতে চলেছে। এমনটাই মত আফগানিস্তানের ক্রীড়াবিদ মিনা আসাদি। মিনা হলেন ক্যারাটেতে আফগানিস্তানের জাতীয় চ্যাম্পিয়ন। মহিলা ক্যারাটে খেলোয়াড় ও কোচ হিসাবে গোটা বিশ্বে তাঁর নাম ডাক রয়েছে। আফগানিস্তানে তালিবানদের রাজত্ব শুরু হওয়ার পর থেকেই ভয়ে তটস্থ রয়েছেন মিনা। যদিও তিনি আফগানিস্তানে থাকেন না, তবু দেশের মহিলা ক্রীড়াবিদদের নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন মিনা আসাদি। 

তালিবানদের আগ্রাসনের পরে নতুন করে কোনও আশাই আর দেখতে পাচ্ছেন না মিনা আসাদি। তাঁর মতে, দেশের মহিলা ক্রীড়াবিদদের সব স্বপ্ন ধ্বংস হয়ে যাবে। তিনি জানান, ‘আমি বিধ্বস্ত। সব আশা শেষ হয়ে গিয়েছে আমার। আফগানিস্তানের মানুষের অবস্থাও একইরকম।’ দেশে তালিবান রাজত্ব শুরু হওয়ার পর থেকে মেয়েদের খেলাধুলোর অধিকার শেষ হয়ে গিয়েছে। এমনটাই মনে করছেন মিনা আসাদি।

১২ বছর বয়সে আফগানিস্তান থেকে পরিবারের সঙ্গে পালিয়ে পাকিস্তানে আশ্রয় নিয়েছিলেন মিনা। সেখানে ক্যারাটের অনুশীলন শুরু করেন। ২০১০-এ সাউথ এশিয়ান গেমসে আফগানিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি। পরের বছরই কাবুলে ফিরে সেখানে একটা ক্যারাটের ক্লাব খোলেন। কিন্তু তালিবান আগ্রাসনের ফলে প্রাণ বাঁচাতে এক বছরের মেয়ে এবং স্বামীকে নিয়ে যিনি এই মুহূর্তে ইন্দোনেশিয়ায় আশ্রয় নিয়েছেন। নিজের ক্যারাটের ক্লাব বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছিলেন তিনি। মিনা আসাদি বলেছেন, ‘এতদিন ধরে পরিশ্রম করে যে কীর্তি অর্জন করেছিলাম আমরা, এক লহমায় তা সব ধূলিসাৎ হয়ে গিয়েছে। আফগানিস্তানের সমস্ত মানুষ, বিশেষত মহিলা এবং ছোট ছোট মেয়েদের কাছে একটা অন্ধকার সময় আসতে চলেছে।’

বন্ধ করুন